ঢাকা, রবিবার, ২৯শে নভেম্বর ২০২০ ইং | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

আকাশ মেঘলা কুয়াশাচ্ছন্ন হওয়্ায় দেখা মিলছেনা কাঞ্চনজঙ্ঘার ত্ঁেতুলিয়ায় পর্যটকদের ভীর বাড়ছে-আবাসিক সংকট

আবু তাহের আনসারী পঞ্চগড় সংবাদদাতা : আকাশ মেঘলা কুয়াশাচ্ছন্ন হওয়্ায় দেখা মিলছেনা কাঞ্চনজঙ্ঘার । ত্ঁেতুলিয়ায় দিনদিন পর্যটকদের ভীর বাড়ছে- অসংখ্য পর্যটকের আনাগোনা হওয়ায় রাত যাপনের জন্য সরকারি ও বেসরকারি আবাসিক সংকট থাকায় চলে যেতে হচ্ছে দুর থেকে দুরান্তরে। ফেসবুকের টাইমলাইন থেকে শুরু করে বিভিন্ন গ্রুপ ও পেজে এখন ট্রল হিমালয়-কাঞ্চনজঙ্ঘা। দেশের একমাত্র উত্তরের সীমান্তবর্তী জেলা পঞ্চগড় হতেই সুস্পষ্ট কাছ থেকে দেখা মেলে পৃথিবীর সুউচ্চ এ দুই পর্বতশৃঙ্গ। চলতি মৌসুমে গত এক সপ্তাহ মেঘমুক্ত আকাশে হিমালয়-কাঞ্চনজঙ্ঘা দৃশ্যমান হওয়ায় পর্যটকের ঢল নেমেছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত হতে আসছেন সহস্র ভ্রমণ পিপাসু পর্যটক। কেউ আবহাওয়ার খবর নিয়ে আসছেন, কেউ খবর না নিয়েই আসছেন। এতে করে প্রচুর পর্যটকের সমাগমের ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। এ সমাগমে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে হোটেল-রেস্তোরা, আবাসিক হোটেলগুলো। ব্যস্ত হয়ে উঠেছে দু ও তিন চাকার ভ্যান আর অটোরিকশার মতো যানগুলো।
গত বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত টানা ৩ দিন পঞ্চগড়ের বিভিন্ন স্থান থেকে হিমালয়ের সর্বোচ্চ পর্বত শৃঙ্ঘ কাঞ্চনঙ্ঘা খালি চোখে দেখা গেলেও ১ নভেম্বর থেকে তা দেখা যাচ্ছে না। এতে করে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঘুরতে আসা অনেককেই হতাশ হয়ে ফিরতে দেখা যাচ্ছে।
পর্যটকদের কেন এতো আগ্রহ কাঞ্চনজঙ্ঘা, ভারতের পাহাড়কন্যা দার্জিলিং, কাঞ্চনজঙ্ঘা আর নেপালের আকাশচুম্বী হিমালয় পর্বত দেখতে ভ্রমণ করেন হাজার হাজার পর্যটক। পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে সারা পৃথিবী থেকে সিকিম নেপাল ও পশ্চিমবঙ্গে ভীড় জমান। কাঞ্চনজঙ্ঘা মূলত হিমালয় পর্বতমালার পর্বতশৃঙ্গ। মাউন্ট এভারেস্ট ও কেটু’র পরে এটি পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ। যার উচ্চতা ২৮হাজার ১৬৯ ফুট বা ৮হাজার ৫৮৬ মিটার। ভারতের সিকিম রাজ্যের সঙ্গে নেপালের পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্তে অবস্থিত নান্দনিক টুরিস্ট স্পট কাঞ্চনজঙ্ঘা। পশ্চিমবঙ্গের বহু জায়গা থেকেই দেখা যায় পাহাড়ের রানী কাঞ্চনজঙ্ঘা।
রঙ বদলায়, দৃষ্টি মোহিত করে
শুভ্র সাদা বরফে আচ্ছাদিত পর্বতমালা কাঞ্চনজঙ্ঘা। কাঞ্চনজঙ্ঘার ওপর সূর্যোদয়ের দিনের প্রথম সূর্যকিরণের সৌন্দর্যের ঝিলিক মারে। ভোরে উষার সময় কাঞ্চনজঙ্ঘার ওপর রোদ পড়ে সেই রোদ যেন ঠিকরে পড়ে দু’চোখে। দিনের স্বচ্ছ রৌদ্র আলোয় দেখা মেলে হিমালয়ের সর্বোচ্চ পর্বত কাঞ্চনজঙ্ঘার নানা রুপ। একই অঙ্গে অনেক রূপ এই কাঞ্চনজঙ্ঘার। প্রথমে কালচে, এরপর ক্রমান্বয়ে টুকটুকে লাল, কমলা, হলুদ এবং সাদা রং ধারণ করে।
যারা পাসপোর্টÑভিসার অভাবে নেপালের হিমালয় আর ভারতে সিকিমে কাঞ্চনজঙ্ঘা পাহাড় দেখার সুযোগ হয় না। তাদের জন্য বিনা পাসপোর্ট ছাড়াই দেশের মাটিতে দাঁড়িয়ে খুব কাছ হতে দেখার সুযোগ রয়েছে। প্রয়োজন হয় না দূরবীন বা কোন বাইনোকুলারের। খালি চোখেই কাছ হতে দেখা যায় দেশের উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় আসলেই। প্রতিবেশী দেশ ভারত কাঁটাতারে ঘিরে রাখলেও সীমান্তক থেকে খুব কাছ হতেই দেখা যায় ভারতের পাহাড়কন্যা দার্জিলিং , কাঞ্চনজঙ্ঘা আর নেপালের আকাশচুম্বী হিমালয় পর্বত।
রাজধানী থেকে পঞ্চগড়ের দূরত্ব ৫শ কিলোমিটার হলেও ভারতের সীমান্তের কোল হতে ভারতের সিকিমের দূরত্ব অতি কাছে। দেশের চারদেশীয় ব্যবসা ও পর্যটনের গুরুত্বপূর্ণ স্থান বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর। এ বন্দর থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘার দূরত্ব মাত্র ১১ কিলোমিটার। নেপালের দূরত্ব মাত্র ৬১ কি.মি, এভারেষ্ট চূড়া ৭৫ কি:মি, ভূটান ৬৪ কি:মি:, চীন ২০০ কি:মি: ভারতীয় পশ্চিমবঙ্গে সমৃদ্ধ শহর শিলিগুড়ি ও শৈল্যশহর দার্জিলিং। এ বন্দর হতে শিলিগুড়ির দূরত্ব মাত্র ৮ কিলোমিটার ও দার্জিলিংয়ের দূরত্ব ৫৪ কিলোমিটার। পাসপোর্ট-ভিসা থাকলে এ বন্দর দিয়ে ঘুরে আসা যাবে এসব দৃষ্টিনন্দিত পর্যটন স্পটগুলো।
কাঞ্চনজঙ্ঘার রূপশৈর্য কাছ হতে দেখতে প্রতিদিন ছুটে আসছেন শতশত পর্যটক। মেঘমুক্ত নীল আকাশে উত্তর-পশ্চিম কোণে দৃশ্যমান হয়ে উঠা কাঞ্চনজঙ্ঘাকে দেখতে পেয়ে বিমোহিত হচ্ছেন। দেখছেন, ঘুরছেন, ছবি তুলছেন। প্রযুক্তির উৎকর্ষে ক্যামেরা ও স্মার্টফোনে ধারণ করা ছবি-ভিডিও সোস্যাল নেটওয়ার্ক ফেসবুক, টুইটারসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোষ্ট ও শেয়ার করছেন। এভাবে যতো প্রচার বাড়ছে, ততোই আকৃষ্ট হয়ে প্রতিদিন পারি দিচ্ছেন ভ্রমণ পাগল পর্যটক।
তিনি আরো জানান সমুদ্রে লঘু চাপ থাকার কারনে কিছু মেঘ সৃষ্টি হওয়ার কারনে দৃষ্টিসীমা অনেকটা কমে আসে। লঘু চাপ কেটে গেলে কাঞ্জনজঙ্ঘা আবারো পরিস্কার দেখা যাবে।
গত ২৯ নভেম্বর থেকে গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত দুর-দুরান্ত থেকে তেঁতুলিয়া উপজেলা ঘুরে দেখা গেছে ভ্রমন পিপাসুদের উপচেপড়া ভিড়। অনেকেই দুর দুরান্ত থেকে তেঁতুলিয়া পিকনিক কর্ণারে কাঞ্চনজঙ্ঘার অপরুপ দৃশ্য ধারন করতে ও দেখতে এসেছেন। কিন্তু সকাল থেকে অপেক্ষায় থাকতে থাকতে অনেকেই হতাশ হয়ে ফিরে যেতে দেখা গেছে।
জানাযায়, কাঞ্চনজঙ্ঘা ভারতের সিকিম ও নেপাল জুড়ে অবস্থিত। এটি পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ যার উচ্চতা ৮,৫৮৬ মিটার বা ২৪,১৬৯ ফুট। পর্যটকদের কাছে অন্যতম জনপ্রিয় একটি আকর্ষণ কাঞ্চনজঙ্ঘা । ভারতের অন্যতম শৈল শহর দার্জিলিং, ঘুম বা কালিম্পংয়ের প্রধান আকর্ষণ কাঞ্চনজঙ্ঘা। স্থানীয় বাসীন্দারা জানান, আকাশ খুব পরিস্কার থাকলে প্রায় সময় কাঞ্চনজঙ্ঘা পর্বতশৃংগের বাস্তব দৃশ্যপট দেখা মিলে। তবে প্রতি বছর জানুয়ারীর তৃতীয় সপ্তাহ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত আকাশ খুব পরিস্কার থাকায় এটি ভাল দেখা যায়। কিন্তু এবছর ব্যতিক্রম করোনা কালীন পৃথিবীর আকাশ ও বাতাস স্বচ্ছ পরিস্কার থাকায় অক্টোবর মাসের শেষ সপ্তাহে উত্তরবঙ্গের সীমান্ত উপজেলা হিমালয়ের কাছাকাছি তেঁতুলিয়া থেকেই দেখা মিলেছে কাঞ্চনজঙ্ঘার । পর্যটকরা তা দেখে তাদের ফেসবুক আইডিতেও কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে পাওয়া ছবি পোস্ট করছেন। স্থানীয় উদীয়মান যুবসমাজও মোবাইলে কাঞ্চনজঙ্ঘাা পর্বতশৃংঘের ছবি সপ্তাহ জুড়েই পোস্ট করেছে। এছাড়া বিভিন্ন ইলেক্ট্রিক ও প্রিন্টমিডিয়া কর্মীরা ফলাও করে প্রচার করায় দেশের ভ্রমণ পিপাসু পর্যটকদের রীতিমত নজর কেড়েছে। যে কারণে কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখার জন্য দেশের দূর দূরান্ত থেকে আসা পর্যটকরা জেলার বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে রাত যাপন করে ভোরে এসে ডাকবাংলো মহানন্দা নদীর পাড়ে ক্যামেরা, বাইনোকুলার নিয়ে ভিড় জমাচ্ছে। মুন্সিগঞ্জ থেকে আসা ডাক্তার দম্পত্তি জানান, তেঁতুলিয়ায় রাত যাপনের জন্য সরকারি ও বেসরকারি আবাসিক সংকট থাকায় পঞ্চগড় শহরেই রাত যাপন করেছি। এমন দৃশ্যপট দেখার জন্য ভোরে মাইক্রোবাস নিয়ে চলে এসেছি। নাটোর থেকে আসা একদল তরুন শিক্ষার্থী জানান, আমরা কাঞ্চনজঙ্ঘা পর্বত দেখার জন্য সংবাদ মাধ্যমে ছবি দেখে এসেছি। কিন্তু আবহাওয়া প্রতিকূল থাকায় পর্বত দেখতে পারিনি। তেঁতুলিয়া থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা পর্বতশৃংঘ দেখতে আসা পর্যটকদের এমন অপেক্ষার দৃশ্যপট যেনো দার্জিলিং শহরের টাইগারহিলকে হার মানাবে। কারণ খালি চোখে দার্জিলিং শহরের টাইগারহিল থেকে খুব কাছাকাছি সূর্যোদয় দেখা মিলে। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পর্যটকরা কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখার জন্য আসলেও সারা দিন অপেক্ষা করেও দেখা মিলছে না কাঞ্চনজঙ্ঘার।
কাঞ্চনজঙ্ঘা নিয়ে কথা হয় আলোকচিত্রী ফিরোজ আল সাবাহর সাথে। তিনি জানান, আমি ২০১০ সাল থেকে ডিজিটাল ক্যামেরায় কাঞ্চনজঙ্ঘার ছবি তুলে আসছি। এ অঞ্চলের সৌন্দর্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। তেঁতুলিয়া হতে ভারতের সিকিমে অবস্থিত শুভ্র বরফে আচ্ছাদিত কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে এখন প্রচুর পরিমাণে পর্যটক আসছে দেখে বেশ ভালো লাগছে। পর্যটন শিল্প অঞ্চল হিসেবে ঘোষনা করার দাবি এ আলোকচিত্রীর।তেঁতুলিয়াবাসির প্রানের দাবি তেঁতুলিয়ায় একটি পর্যটন শিল্প স্থাপনের জন্য সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানান
তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানিয়েছেন আকাশে লঘু চাপ সৃষ্টি হওয়ায় এবং মেঘ জমে থাকায় আগামী ১০ নভেম্বর পর্যন্ত পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখা যাবে না।
তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম আরো জানিয়েছেন তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং গতকাল শুক্রবার তেঁতুলিয়ায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ২৯ দশমিক ৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

You must be Logged in to post comment.

ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ এর স্বকৃীতর এক বছর ।     |     শিশুদের সুরক্ষার জন্য সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে সরকার কাজ করে যাচ্ছে – গাইবান্ধার ডিসি     |     সাতক্ষীরার দেবনগরে পল্লী সমাজের উদ্যোগে সম্প্রীতির মেলা     |     নিজ পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে সুন্দরগঞ্জে ধর্ষক শ্বশুর গ্রেফতার     |     কলারোয়ায় নিজের জমিতে ঘর বাধতে পারছে না এক জনস্বাস্থ্য প্রকৌশ অধিদপ্তরের সদস্য     |     ঝিকরগাছার গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদে ব্রাকের সিটিসি আলোচনা সভা     |     গাংনীতে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে ইস্যুকৃত আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠান     |     বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জে ঘরের অভাবে রোদ বৃষ্টির দিনলিপি এক দিনমজুরের     |     সুন্দরগঞ্জে জাতীয় যুব সংহতির সভা     |     গাংনীতে সারা দেশের ন্যায় হেল্থ এ্যাসিস্ট্যান্টদের ৩য় দিনের মত কর্মবিরতি চলছে।     |