ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০শে অক্টোবর ২০২০ ইং | ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

আমাদের প্রিয় কালাম ভাইয়ের শুন্যতা আমরা হৃদয় দিয়ে অনুভব করছি : এমরান আল আমিন

৭ই আগস্ট ২০২০ ইং বৃদ্ধা মাতা, স্ত্রী, সন্তান ও ভাইবোনসহ আমাদের সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কালাম ভাই। ছাত্রজীবন থেকেই কালাম ভাইয়ের সাথে আমার বড় ভাইয়ের বন্ধু হওয়ার সুবাদে বিশেষ সম্পর্ক ছিল। ছোট বেলা থেকেই কালাম ভাই নম্র, ভদ্র, বিনয়ী, মায়াবী এবং পরোপকারী ছিলেন। তিনি মেধাবী ও পরিশ্রমী ছিলেন। বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের একজন কর্মকর্তা হিসেবে দেশের এবং মানুষের জন্য কাজ করার প্রবল আগ্রহ ও স্বপ্ন লালন করতেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য তিনি জীবনের শুরু থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। কিন্তু হঠাৎ উনার বাবা মরহুম ইব্রাহিম চাচা একদল ডাকাতের সাথে লড়াই করে ইহধাম ত্যাগ করেন। বাবার মৃত্যুর পর উনাদের পরিবারে একটা ছন্দপতন হয়। পরিবারের হাল ধরেন কালাম ভাই। বাবার রেখে যাওয়া কাপড়ের ব্যবসা, কৃষি কাজের পাশাপাশি নিজের লেখাপড়া সমানতালে চালিয়ে যান। কাংঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছাবার জন্য দুবার বিসিএস দেন। বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের মৌখিক পরীক্ষা দিয়েও চাকুরীতে অণুর্ত্তীন থাকার বিষাদগ্রস্ততা উনাকে পেয়ে বসেছিল। শেষ পর্যন্ত চান্স না হলে ২য় বারে বিসিএস রেজাল্টের দিন ঢাকা ফকিরেরপুল গরমপানির গলির বাসায় প্রচন্ড মন খারাপ করে থাকা আমার দৃষ্টি এড়াতে পারেনি। কিন্তু কয়েকদিন পরেই এই চাকুরীটা হয়ে যায়, যে চাকুরী থেকে তিনি গত- এপ্রিল ২০২০ ইং তারিখে অবসর প্রাপ্ত হন। চাকুরী পাওয়ার কিছুদিন পরেই উনার পছন্দের মমতাজ ভাবিকে বিবাহ করেন। ভাবির সঙ্গে উনার পূর্ব থেকেই জানাশুনা ছিল। বিয়েতে আমি বরযাত্রী গিয়েছিলাম। কি অদ্ভত-ব্যাপার ! বিয়ের পরদিন থেকেই ‘‘ভাবি যেন কুড়িতেই বুড়ি হয়ে গেল’’। ইসলামি মূল্যবোধের মধ্যে নিজেকে পরিচালনা করা শুরু করলেন, যা তিনি ০৩ (তিন) সন্তানের জননী হওয়ার পরও আজোবধি পালন করছেন।

আমার বড় ভাই ইঞ্জিনিয়ার হারুন অর রশিদ (যিনি বর্তমানে চীপ ইঞ্জিনিয়ার বর্তমানে বাপাউবো এ দায়িত্ব পালন করছেন)। আমাদের বোদা পাইলট মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ১২৫ বছর উদ্যাপনের স্মরনীকায় তাঁর লেখায় কালাম ভাই সম্পর্কে ৫৫ পৃষ্টায় সংক্ষেপে লিখেছেন, ‘‘নবম শ্রেণীতে আমাদের সঙ্গে যোগ দেয় চন্দনবাড়ীর ইব্রাহিম চাচার ছেলে ‘‘কালাম’’। দীর্ঘদেহী ‘‘ইব্রাহিম চাচা’’ খালি হাতে এক দল সশস্ত্র ডাকাতের সাথে যুদ্ধ করে মরে গিয়েও অমর। সীমাহীন ধৈর্যের অধিকারী কালামের মুখে সদা হাসি থাকত।  প্রেম করে বিয়ে করে তার মতো এত সুখী আর কাউকে দেখিনি’’।

আসলেই তিনপুত্রের জনক কালাম ভাই প্রচন্ড সুখী ছিল। উনার তিন ছেলেই প্রচন্ড মেধাবী। ছেলেরা দেশের সবচাইতে ভালো প্রতিষ্ঠানের ছাত্র। একজন পড়ালেখা শেষ করে ভালো চাকুরী করছে। একজন জেলা হিসাবরক্ষক হিসেবে ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় ও রংপুরে অত্যন্ত সততা ও নিষ্টার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। সর্বশেষ তাঁর সততার পুরস্কার হিসেবে তাকে ঢাকায় চাকুরীতে পদায়িত করে নিয়ে যায় মন্ত্রনালয়। ছাত্র জীবনে তিনি একজন ফুটবলার ছিলেন। উনি প্রায় প্রতিদিন বোদা হাইস্কুল মাঠে ফুটবল খেলেছেন। ব্যক্তি জীবনে উনাকে সবসময়ে হাসিমুখে মানুষের সাথে কথা বলতে দেখেছি। আমাদের সবকটা ভাইবোনের সাথেই উনার মধুর সম্পর্ক ছিল। তিনি ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় চাকুরী করাকালীন আমাদের সব আত্বীয়দের খোজখবর রেখেছেন, যাদের কাজ ছিল কাজও করে দিয়েছেন। রংপুর থাকা অবস্থায় আমার বাবা অসুস্থ হয়ে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউ ইউনিটে ভর্তি থাকা অবস্থায় শত ব্যস্ততার মধ্যেও কালাম ভাই সব সময় খোজখবর রেখেছিলেন।

কবি গুরু একটি কথা বলেছেন, ‘‘বিস্মিত ক’রো না, মুগ্ধ কর’’। আমাদের অগ্রজ কালাম ভাই ছাত্র জীবন পেরিয়ে কর্মজীবনেও তাঁর আচার ব্যবহার, সততা ও নিষ্ঠার দ্বারা সবাইকে সত্যিই মুগ্ধ করেছেন। উনার জ্ঞাতি ও আত্বীয় বন্ধুবান্ধব পরিচিতদের ভরসার প্রতীক হয়ে উঠেছিলেন। অনেক ঘটনা মনে পড়ছে তবে এখানে একটি ঘটনা উল্লেখ না করলেই নয়। নিজের শত ব্যবস্তার পরও উনাকে দেখেছি, উনার এক ভাবী (মাছুমা) মেয়ের আমার কলেজে উপবৃত্তি পাইয়ে দেওয়ার জন্য নিজেই কলেজে এসেছিল অথচ আমাকে ফোন করে বললেই কাজ টা হতো। কারণ উনার ঐ ভাস্তির উপবৃত্তিটা খুব প্রয়োজন ছিল। এত ভাল একজন মানুষ বড় অসময়ে সবাইকে অবাক করে চলেগেলেন। গত- দু’মাস আগে শুনতেছিলাম আমাদের দুই প্রিয় বড় ভাই ডা. আফসার সিদ্দিকী ও আবুল কালাম আজাদ কোভিড-১৯ পজিটিভ। এলাকায় মানুষকে প্রাণখুলে দোআ করতে দেখেছি এই দুইজন গুণী মানুষের জন্য। আমার ৮২ বছর বয়স্ক মা, প্রতিদিন বাইরে থেকে বাড়ীতে ফেরার অপেক্ষায় থাকত রাতের বেলায় উনাদের খবর শুনার জন্য। সারাদিন উনাদের দু’জনের জন্য নামাজ পড়তো, কুরআন তেলওয়াত করে দোআ করতো উনাদের রোগ মুক্তির জন্য। কয়েকদিন পরে শুনলাম দু,জনেই সুস্থ্য। পরম করুনাময় আল্লাহ রাব্বুলামীনের কাছে শুকরিয়া আদায় করে এলাকাবাসী।

কয়েকদিন যেতে না যেতেই শুনলাম, কালাম ভাই আবার ‘‘স্কয়ার হাসপাতালে’’। এবার আর মনকে প্রবোধ দিতে পারছিলাম না, কিন্তু তার পরও মনকে শান্তনা দিচ্ছিলাম ‘‘কালাম ভাই বেঁচে যাবে’’ গত- ০৭/০৮/২০২০ ইং তারিখ রোজ শুক্রবার মসজিদ যাওয়ার জন্য তৈরী হচ্ছিলাম, হঠাৎ আমার বড় ভাই ইঞ্জিনিয়ার হারুন এর ফোন ‘‘কালাম আর নেই’’। ছোট ভাই মফিদুল ও আঙ্গিনায় দাঁড়িয়ে বললো ‘‘মিল্লাত ফোন করেছে কালাম ভাই আর আমাদের মাঝে নেই’’। আমার মা, ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাহি রাজিউন পড়ে বলে বসলো, কালাম বেহেস্তেবাসী হবেই। গত- ০৮/০৮/২০২০ ইং দুপুর ২.০০ ঘটিকার সময় উনার নামাযে জানাযা শেষে পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার কার্জিপাড়া গ্রামে তাঁর বাবার কবরের পার্শ্বে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হলো মরহুম কালাম ভাইকে।

মৃত্যু কারো কাম্য নয়। তারপরও এটাই সত্য, সবাইকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। করোনা কালে অনেক মৃত্যু সংবাদই নিত্যদিন আমাদের শুনতে হচ্ছে। কিছু কিছু মৃত্যু মেনে নেওয়া কঠিন। কালাম ভাইয়ের মৃত্যুটাও তাই তাঁর স্ত্রী, মাতা, ভাই, বোন, আত্বীয় স্বজন, সতীর্থরা কেউ মেনে নিতে পারছেনা। তাইতো গত- ৭/০৮/২০২০ ইং দিনভর সোস্যাল মিডিয়াতে কালাম ভাইয়ের সতীর্থদের আর্তনাদ দেখেছি। উনার মৃত্যুতে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়ে গেছে। তিনি বেঁচে থাকলে অনেক মানুষই উপকৃত হতেন। তাইতো কালাম ভাইয়ের শূন্যতা আমরা হৃদয় দিয়ে অনুভব করছি।

কালাম ভাই, আপনার আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।

You must be Logged in to post comment.

রাণীশংকলৈে শালবাগান রক্ষায় মানববন্ধন পালতি     |     মেহেরপুর জেলা বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ     |     গাংনী সীমান্তে ২ লাখ টাকার ফেন্সিডিল ও ট্যাবলেট উদ্ধার     |     মেহেরপুরের গাংনীতে ভ্রাম্যমান আদালতে ইভটিজারের ৩ হাজার টাকা জরিমানা     |     আশাশুনির একটি মৎস্য ঘের থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার     |     রূপসায় নারী নির্যাতন প্রতিরোধে উঠান বৈঠক     |     সিভিল সার্জনের কথা উপেক্ষা করেই চলছে ঝিকরগাছার আয়সা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার     |     ঝিকরগাছায় ৭৪৮টি গভীর নলকূপ বিতরণ করলেন এমপি ডা. নাসির উদ্দিন     |     সাতক্ষীরায় ব্যাংকের সিল ও বিআরটিএ’র নকল রশিদসহ দালাল চক্রের ৩ সদস্য আটক     |     আশাশুনির একটি মৎস্য ঘের থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার     |