ঢাকা, বুধবার, ২৭শে জানুয়ারি ২০২১ ইং | ১৪ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আশাশুনি ও শ্যামনগরে বেঁড়িবাধ ভেঙে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত

আব্দুল আলিম সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার উপকুলীয় উপজেলা আশাশুনি ও শ্যামনগরের কপোতাক্ষ ও খোলপেটুয়া নদীর বিভিন্ন স্থানে জরাজীর্ণ বেঁড়িবাধ ভেঙে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ভেসে গেছে হাজার হাজার বিঘা মৎস্য ঘের ও ফসলি জমি। পানি বন্দী হয়ে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের দীর্ঘ তিন মাস পেরিয়ে গেলেও পানি বন্দী হয়ে প্রতাপনগর ও শ্রীউলা ইউনিয়নের মানুষ এখনও মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তার উপর বর্তমান অমাবশ্যার গোনে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩/৪ ফুট পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতাপনগর ইউনিয়নের চাকলা, কুড়িকাউনিয়া ও হরিশখালী, শ্রীউলা ইউনিয়নের হাজরাখালী ও কোলা এবং গাবুরা ইউনিয়নের লেবুবুনিয়া দিয়ে পানি লোকালয়ে প্রবেশ করে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। জোয়ার-ভাটা বইছে লোকালয়ে ও বাড়ির উঠানে। ভেঙে পড়েছে স্যানিটেশন ব্যবস্থা। এতে চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে বিশাল জনগোষ্ঠী। দেখা দিয়েছে সুপেয় পানির অভাব।

এদিকে, শ্যামনগরের গাবুরা ইউনিয়নে স্থানীয় ইউপি চেয়ারর‌্যানের নেতৃত্বে হাজার হাজার এলাকাবাসী গতকাল রাত থেকে আজ শুক্রবার দুপুর ১২ টা পর্যন্ত স্বেচ্ছাশ্রমে লেবুবুনিয়া গ্রামের ৬ টি স্থানের রিংবাধ সংস্কার করলেও দুপুরে জোয়ারে ৪ টি স্থানে তা আবারও ভেঙে গেছে। এতে প্লাবিত হয়েছে তিনটি গ্রাম।
স্থানীয়রা জানান, গতকাল দুপুরের প্রবল জোয়ারে আশাশুনি ও শ্যামনগরের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়। তারা আরো জানান, এখনই যদি বেড়িবাধ সংস্কার করা না হয় তাহলে পরবর্তী জোয়ারে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হবে।
শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা শাকিল জানান, তার গোটা ইউনিয়ন এখন পানিতে নিমজ্জিত। তার ইউনিয়নের ৩৬ হাজার মানুষ বর্তমানে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

গাবুরা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম জানান, তার ইউনিয়নে লেবুবুনিয়া, গাবুরা ও খলসিখালী তিনটি গ্রাম পানিতে প্লাবিত। তবে, হাজার হাজার এলাকাবাসীকে নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে কোন রকমে ৬ টি স্থানে রিংবাধ দিলেও দুপুরের জোয়ারে ৪ টি স্থানে তা আবারও ভেঙে গেছে। এতে তার ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজারের অধিক মানুষ পানি বন্দী হয়ে পড়েছে।
আশাশুনি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অসিম বরন চক্রবর্তী জানান, বর্তমানে তার উপজেলার প্রতাপনগর ও শ্রীউলা ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ পানি বন্দী হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। ভেসে গেছে হাজার হাজার বিঘা মৎস্য ঘের ও ফসলি জমি।
পানি উন্নয়ন বোর্ড বিভাগ-২ এর নির্বাহি প্রকৌশলী সুধাংশ কুমার সরকার জানান, কয়েকটি স্থানে রিংবাধ দিয়ে পানি বন্ধ করা হয়েছে। তবে, প্রতাপনগর ইউনিয়নের চাকলা ও কুড়িকাউনিয়া এবং শ্রীউলা ইউনয়নের হাজরাখালী পয়েন্টে বেঁড়িবাধ ভেঙে এতই গভীর হয়েছে যে সেখানে এখন বেঁড়িবাধ সংস্কার করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

You must be Logged in to post comment.

বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে শুল্ক স্টেশনে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উপলক্ষে মতবিনিময় সভা     |     রূপসায় যুবমহিলা লীগের আয়োজনে শীতবস্ত্র বিতরণ     |     রংপু‌রের তারাগ‌ঞ্জে গৃহহীন ১শ ৩০ প‌রিবার পে‌লেন সরকা‌রি বাসস্থান     |     সুন্দরগঞ্জে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর বরাদ্দে অনিয়মের প্রতিবাদে মানববন্ধন     |     গোপালপুরে কুরুচিপূর্ণ পোস্টারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল     |     টাঙ্গাইল-সখীপুরে পৌর প্রার্থীদের সঙ্গে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা     |     আটোয়ারীতে যুব মহিলাদের পাপোশ তৈরীর প্রশিক্ষণ চলছে     |     সখীপুরে প্রেমিকের প্রতারণায় এতিম যুবতী গর্ভবতী ॥ প্রেমিক গ্রেপ্তার     |     ঘাটাইলে স্বপ্নের ফসল খেতেই পঁচে নষ্ট সবজি চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক     |     এলেঙ্গায় চাঁদা না দেওয়ায় জমি জবরদখলের চেষ্টা     |