ঢাকা, শুক্রবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গড়েয়া হাটের  সৃষ্টির কাথা ও তার সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে। 

রহমত আরিফ ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতাঃ ঠাকুরগাঁও জেলায় উত্তর বঙ্গের ঐতিহ্যবাহি নুতুন গড়েয়া হাট ঠাকুরগাঁও শহর থেকে পূর্ব দিকে ১২ কিলোমিটার দুরত্বে সদর উপজেলার গড়েয়া ইউনিয়নে অবস্থিত।
সপ্তাহে দুইদিন হাট লাগে রবিবার ও বুধবার হাট এবং প্রতিদিন বাজার বসে।
পঞ্চগড়, দিনাজপুর,নীলফামারী জেলার মানুষের সমাগম হয় এই প্রাচীন বৃহৎ গড়েয়া বাজারে।
এক কোটি ত্রিশ থেকে চল্লিশ লাখ টাকার উর্ধে প্রতি বছরে ডাক হয়। এবং পহেলা বৈশাখে ইজারাদার দের কাছে হাট হস্তান্তর করে সরকার।
গড়েয়া হাটে প্রায় এক থেকে দুই হাজারে অধিক দোকান পাট রয়েছে।
ইতিহাসঃ বৃটিশ আমলের  ঘটনা গড়েয়া এলাকায় ছিলো পাশাপাশি  দুই জমিদার সাহেবের পরগণা।
হাট ছিলো একটি তাই ঝামেলা লেগে থাকতো।
পুরানো গড়েয়া হাটে হিন্দু জমিদার বাবু বোমকেশ দাস চৌধুরী উনার প্রভাব। সকলের পুরানা গড়েয়া হাটে ছিলো আনা গোনা।
নুতুন গড়েয়া হাট ছিলো না ঐ সময় নুতুন গড়েয়া এলাকা  চাষাবাদের জায়গা জমি বাড়ি কাছারি ঘড় এবং একটা দুইটা ঘুনটি দোকান ছিলো বিহারিদের বাড়ির সাথে।
বর্তমানে যেখানে দুই হাজারের উপরে দোকান।
নুতুন গড়েয়া হাটের পুরো জায়গাটা ছিলো পশ্চিম বাংলার বর্ধমান জেলার কুসুমগ্রাম জমিদারির, মুন্সী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জমিদার সাহেবের সকলের কাছে তিনি মুন্সী জমিদার বলে পরিচিত পরবর্তী ওয়ারিশ জমিদার সৈয়দ মোহাম্মদ বদরুদ্দোজা সাহেব।
জমিদার বাবু গড়েয়াতে আনুমানিক ১৯৩৫ সালে একজন নায়েব নিযুক্ত করেছিলেন জমা জমি খাজনা আদায় জন্য উনার নাম মোহাম্মদ মজিদ শাহ্ এবং উনার একটা কাছারি ঘড় ছিলো সেখানে তিনি পরগণার খাজনা আদায় করতেন জায়গাটা বর্তমানে নুতুন গড়েয়া হাটের গোশত হাটির পাশে।
জমিদার মুন্সী মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেব লোক পাঠাতেন উনারা প্রতি বছর এসে জমিদার সাহেবের নিযুক্ত নায়েব মোহাম্মদ মজিদ শাহ্ কাছ থেকে খাজনা গুলো নিয়ে  বর্তমানে ভারতের পশ্চিম বাংলা বর্ধমান জেলায় জমিদারের বাসায় পৌঁছায় দিতেন।
কোন এক বছর জমিদারের লোক জন খাজনা নিতে এসেছিলো তারা ঠিক করলো পিকনিক খাবে বা বড় খাসি কিনে জমিদারের জন্য ইন্ডিয়া নিয়ে যাবে এখানে  দ্বিমত আছে।
তবে পুরান গড়েয়া হাটে খাসি কিনতে গিয়েছিল এখানে মতভেদ নাই।  মুন্সী জমিদারের খাজনা আদায়ে নিযুক্ত কয়েকজন লোক গেলো পুরানা গড়েয়া হাটে খাসি কিনতে। কিন্তু হাটে মাল ক্রয় বিক্রয় সময় কান্ড বাধলো।
ঐ সময় বাজারে মাল সামান ক্রয় বিক্রয় করলে টেকস দিতে হতো বোমকেশ দাস চৌধুরীকে।
মুন্সী জমিদারের লোকজন খাসি কিনলেন এবং টেকস দেওয়া নিয়ে লেগে গেলো ঝগড়া ।
তখন বাবু বোমকেশ দাস চৌধুরীর লোকজন মুন্সী  জমিদারের লোকজনকে আটক করে রাখে।
এদিকে মোহাম্মদ মজিদ শাহ্ ছিলো নুতুন গড়েয়ার প্রভাবশালী এবং মুন্সী  জমিদারের নিযুক্ত নায়েব তিনি শুনে তাদেরকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসেন।
এখানে মুহম্মদ মজিদ শাহ্ সাথে তুমুল বাক বিতর্ক হাতাহাতির  মত ঘটনা ঘটেছিলো।
মুন্সী  জমিদারের লোকজন কে তিনি ছাড়িয়ে নিতে সক্ষম হোন এবং গড়েয়াতে অবস্থান না করে খাজনা নিয়ে ইন্ডিয়া চলে যাওয়ার অনুরোধ করেন উনারা কথা রখলেন।
জেনেছি আনুমানিক দশ থেকে পনেরো জন লোক পাঠাতেন জমিদার।
কিছুদিন মধ্যে আবার মুন্সী  জমিদারের লোক জন আবার গড়েয়া হাটে মোহাম্মদ  মজিদ শাহ্ কাছে আসলেন। এবং বললেন জমি দার সাহেব আপনার জন্য একটা প্রস্তাব পাঠিয়েছেন।
আপনাকে কখনো আর ঐ বাজারে যেতে হবে না।
জমিদার সাহেব সেই দিনের ঘটনা শুনে আমাদের ঐ বাহনে ততক্ষণাত  আবার গড়েয়া পাঠিয়েছেন।
জমিদার সাহেব এই এলাকায় বাজার লাগাতে বলেছেন জমিদারের জমিতে।
যদি আপনারা চান তাহলে বাজার বসাতে পারেন।
মহাম্মদ মজিদ শাহ্ অনেক বিচক্ষণ ব্যক্তি ছিলেন
একটা বাজারের শুন্যতা প্রায় অনুভব করতেন কারন পুরাতন গড়েয়া  বাজারে অনেক সময় নুতুন গড়েয়া এলাকার মানুষ নির্যাতিত হতো তাই তিনি বাজার লাগাবেন বলে সম্মতি দিলেন।
কিন্তু একটা বাজার লাগানো সাধারণ বেপার ছিলো না।
মহাম্মদ মজিদ শাহ্ নুতুন গড়েয়া এলাকার এবং আশে পাশে  বিখ্যাত ১৬ টি পরিবারের বয়স্ক প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ডাকলেন এবং সবাইকে একত্রিত করে হাট লাগানোর সিদ্ধান্ত নিলেন।
একটি পরিবারের বয়স্ক প্রভাবশালী ব্যক্তি আন্ডারে চলতো একটি পুরো পাড়া বা দশ থেকে বিশটি পরিবার।
ঐ সময় গ্রামের মুরব্বিদের অনেকে মানতো।
পুরো নুতুন গড়েয়া এলাকায় ডোল পিটানো হলো এখন থেকে এখানে বাজার লাগানো হবে।
১৬ টি পরিবারের সকলে নুতুন বাজারে মাল ক্রয় ও বিক্রিয় করবে যারা বিক্রয় করতে পারবে না তাদেরকে তাদের মালের সোম পরিমাণ মূল দেয়া হবে।
একটি আজব ঘটনা ছিলো ১৬ টি পরিবারের কেউ যদি নুতুন গড়েয়া হাট বাদ দিয়ে,
পুরানা গড়েয়া হাটে কেনা বেচা করতে যেতো তাহলে তার জন্য শাস্তির ব্যবস্থা থাকতো। এবং সমাজ থেকে বয়কট হওয়ার ভয়ে তারা সবাই এই আইন মেনে চলতো।
বাস স্টেন্ড তখন ছিলোনা তবে ঐ জায়গায় পাহারা থাকতেন।  কেউ যদি আইন ভঙ্গ করে পুরানা গড়েয়া হাটে দুধ বিক্রয় করতে যেতো তাহলে তার দুধ তার মাথায় ঢালা হতো এরকম মজার শাস্তি ও ছিলো। আল্লাহ্ অশেষ রহমতে ও  উত্সব মুখর পরিবেশে সম্ভবত ১৯৩৮ সালে নুতুন গড়েয়া হাটের জন্ম হয়।
মোহাম্মদ মজিদ শাহ্ পরবতী সময় গড়েয়া পঞ্চায়েত প্রধান ছিলেন। ঐ সময় গড়েয়া ও শুখান পুখুরী মিলে একটা ইউনিয়ন ছিলো। তখন চেয়ারম্যান কে প্রেসিডেন্ট বলা হতো।
১৬ টি পরিবার মিলে গড়েয়া হাট ১৯৩৮ সালে প্রতিষ্ঠা করে এবং ১৬ ঘরিয়া বাজার বিবর্তনের ফলে ঘড়িয়া থেকে হয়ে দাড়ায় গড়েয়া বাজার।
জমিদার সাহেব প্রসঙ্গেঃ পশ্চিম বাংলার বর্ধমান
জেলার কুসুমগ্রাম জমিদারির, মুন্সী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জমিদার পরবর্তী ওয়ারিশ সৈয়দ বদরুদ্দোজা সাহেব।
মহাম্মদ আদর শাহ্ একমাত্র সন্তান, মহাম্মদ আব্দুল মজিদ শাহ্। তিনি অবিভক্ত দিনাজপুর জেলার ঠাকুরগাঁও মহকুমায় ১৯০৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন এবং
১৯৭০ সালে মৃত্যু বরণ করেন। মহাম্মদ আব্দুল মজিদ শাহ্ স্ত্রী ও তিন কন্যা রেখে যান।
উনারা হলেনঃ মোছাঃ মজিদা বেগম শাহ্ মেজো মেয়ে মোছাঃ সহিদা বেগম শাহ্ ও মোছাঃ খানম শাহ্।
মোহাম্মদ মজিদ শাহ্ এতো মানুষ মাঝে জায়গা করে নিয়েছিলেন তাই তাকে প্রেসিডেন্ট সাহেব বা মনথোয়া সাহেব বলে সম্ভধন করা হতো।
সকলের মন রাখতো বলে তাই উনার নাম পড়ে যায় মনথোয়া সাহেব।
পরবর্তীতে উনার মত জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন উনার নাতি মরহুম মতিয়ার রহমান শাহ্ উনাকে সকলে মনথোয়ার নাতি বলতো।
সেই মনথোয়া হলো মোহাম্মদ মজিদ শাহ্ সাবেক
 প্রেসিডেন্ট ১৩ নং গড়েয়া ইউনিয়ন এবং প্রতিষ্ঠাতা নুতুন গড়েয়া হাট।
মহম্মদ আবদুল মজিদ শাহ্ পিতা মহাম্মদ আদর শাহ্ উনার তিন ভাই ছিলো, অফির মহাম্মেদ শাহ্, যোফির মহাম্মদ শাহ্ এবং মহাম্মদ সেরামত শাহ্।
ঐ বংশে মহাম্মদ সেরামত শাহ্  পুত্র আবদুল  কাদের শাহ্ ছেলে  মতিয়ার রহমান শাহ্ পরবর্তী সময় গড়েয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হয় এবং শুধু গড়েয়া হাট নয়, ফুটবলমাঠ, মসজিদ, গড়েয়া ফাজিল মাদরাসা, ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানে অনেক অবদান রখেন। এবং মরহুম মতিয়ার রহমান শাহ্ উনার ফুফাতো ভাই আনোয়ার ইসলাম নাগরু শাহ্ তিনি গড়েয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন।
উনার বাবা সহিমুদ্দি শাহ্, গড়েয়া ডিগ্রি কলেজ ও বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বপ্নদ্রষ্টা।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে ৯মাস থেকে উপবৃত্তির টাকা পায়নি প্রাথমিকের সাড়ে ১৭০০ শিক্ষার্থী।     |     ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনিকল রক্ষায় প্রশংসনীয় উদ্যোগ     |     গাইবান্ধা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত     |     পলাশবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার     |     গড়েয়ায় জমকালো আয়োজনে  টাইগার ক্লাব আয়োজিত ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন     |     ঝিনাইদহে বজ্রপাত প্রতিরোধে তালবীজ রোপণ     |     মাদারীপুরের কালকিনিতে মোটরসাইকেল চাঁপায় শিশু নিহত     |     রূপসায়  অপরাজিতা নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ক নাগরিক সচেতনতা সভা অনুষ্ঠিত     |     মেহেরপুরের গাংনীর বিএডিসি অফিস এখন দুর্নীতির আখড়া ভূ-গর্ভস্থ সেচ প্রকল্পের কাজ দায়সারাভাবে করার অভিযোগ     |     পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় ধান ক্ষেত থেকে নবজাতক উদ্ধার     |