ঢাকা, শুক্রবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঘাটাইলে কঠোর বিধিনিষেধ অমান্য করে বিদ্যালয় মাঠে কোরবানীর পশুর হাট

রবিউল আলম বাদল ঘাটাইল(টাঙ্গাইল)প্রতিনিধি:টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলা দিঘর ইউনিউনে কদমতলী হাসান পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে১৪দিনের কঠোর বিধিনিষেধ কে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে চলছে কোরবানীর গরু হাট। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক পশুর এই হাট চলছে বলে দাবী করেছেন হাটের ইজারাদার ইশতিয়াক হোসেন।
ঘাটাইল উপজেলার অন্যতম বড় গবাদিপশুর হাট বসে কমদমতলি হাসান পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে। ১৯৮৫ সাল থেকে এই বিদ্যালয়ের মাঠে বসে পশুর হাট। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ভয়াবহ সময়ে যেখানে দেশব্যাপী লকডাউন চলছে সেখানে এই হাটে আজ রবিবার (১১ জুলাই) গিয়ে দেখা গেল স্বাস্থ্যবিধির বালাই নাই। পশু আর মানুষ মিলিমিশে একাকার সেখানে। করোনার উচ্চ সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে বসছে হাট। এতে গাদাগাদি করে চলছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের দর কষাকষি ও বেচাকেনা। সামাজিক দূরত্বের বিষয়টি না মেনে একজন আরেকজনের গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে পশুর দরদাম করছেন, কেউবা তা কিনে বাড়ীর দিকে চলছেন।
উপজেলার মুজাহাটি গ্রাম থেকে গরু নিয়ে হাটে আসা ওমর আলী জানান, লকডাউনে অনেক হাট বন্ধ থাকায় আমরা গরু বিক্রি করতে পারিনি। আর তাই ঝুঁকি নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক পরে আমরা হাটে এসেছি।
দত্তগ্রাম এলাকার গরু ব্যবসায়ী শামসুল হক জানান, তারা ঋণের টাকায় তিনটি গরু কিনে পালন করেছেন। করোনার ভয়াবহতা বেড়ে যাওয়ায় আমরা আতঙ্কে আছি। যেভাবে করোনার ঢেউ চলছে, তাতে কীভাবে পশুগুলো বিক্রি করবেন তা নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন তিনি।এলেঙ্গা থেকে আসা গরু আবুল কালাম জানান, মাস্ক পরে হাটে এসেছিলাম। গরু ও মানুষের ভীড়ে মাস্ক মুখে রাখা যায় না, তাই তা খুলে পকেটে রেখে দিয়েছি। হাটে ক্রেতা কম, গরু বিক্রি হচ্ছে না, মনে হচ্ছে গরু ফেরত নিয়ে যেতে হবে বলে।
হাটে গরু কিনতে আসা জামুরিয়া এলাকার আমজাদ হোসেন বলেন, এখানে গরু কিনতে এসে বিপাকে পড়েছি। সামাজিক দুরত্বে কেউ তোয়াক্কাই করছে না। আর তাই গরু না কিনেই হাট থেকে ফেরত যাচ্ছি।
হাট থেকে গরু কিনে নিয়ে যাওয়া গৌরাঙ্গী এলাকার সোহরাব আলী জানান, করোনার কারণে ভয়ে আছি, কিন্তু ঈদে করবানি তো দিতে হবে। তাই বেশী দরদাম না করে ৬৫ হাজার টাকায় আল্লাহর ওয়াস্তে গরু কিনলাম।
হাটে আসা গৃহস্থ ও খামারিরা অনেকেই বলেন, হাটে ক্রেতা কম তাই গরু ভাল দাম পাচ্ছি না। করোনার ভয়ে ক্রেতারা হাটে আসতে অনিহা প্রকাশ করছেন। অনেক ক্রেতারাই হাটে না এসে গৃহস্থ, খামারি ও ব্যবসায়ীদের সাথে যোগাযোগ করে সেখান থেকেই কোরবানির জন্য গরু কিনছেন। অনলাইনেও কিছু গরু ছাগল বিক্রি হচ্ছে।
আব্দুল লতিফ নামের এক গৃহস্থ বলেন, দুই বছর যাবত আমি এই গরু লালন-পালন করছি, করোনার কারণে ভাল দাম হচ্ছে না।হাটের ইজারাদার ইশতিয়াক হোসেন জানান, আমাদের হাটে যারা মাস্ক পড়ে আসে নাই তাদের আমরা মাস্ক বিতরণ করছি। হ্যান্ড সেনিটাইজারের ব্যবস্থা রয়েছে পর্যাপ্ত। হাট ধোয়ার সুবিধাও হাটে আমরা রেখেছি এছাড়া সারাক্ষণ মাইকে করোনা বিষয়ক সচেতনতামূলক প্রচারণাও চালাচ্ছি। করোনার প্রভাবে গরু ছাগল বেচাকিনি এবার অনেক কম হওয়ায় আমাদের বেশ লোকসান গুণতে হবে বলে তিনি বলেন।
ঘাটাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে স্বল্প পরিসরে বড় জাায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে হাটগুলো পরিচালনার একটা লিখিত নির্দেশনা আমরা পাবো। এখনও আমরা হাট হবে কি হবে না সে বিষয়ে কিছু বলছি না। নির্দেশনা পেলে সে অনুযায়ী পশুর হাট বিষয়ক পরবর্তী পদক্ষেপ আমরা নিবো বলে তিনি জানান।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে ৯মাস থেকে উপবৃত্তির টাকা পায়নি প্রাথমিকের সাড়ে ১৭০০ শিক্ষার্থী।     |     ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনিকল রক্ষায় প্রশংসনীয় উদ্যোগ     |     গাইবান্ধা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত     |     পলাশবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার     |     গড়েয়ায় জমকালো আয়োজনে  টাইগার ক্লাব আয়োজিত ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন     |     ঝিনাইদহে বজ্রপাত প্রতিরোধে তালবীজ রোপণ     |     মাদারীপুরের কালকিনিতে মোটরসাইকেল চাঁপায় শিশু নিহত     |     রূপসায়  অপরাজিতা নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ক নাগরিক সচেতনতা সভা অনুষ্ঠিত     |     মেহেরপুরের গাংনীর বিএডিসি অফিস এখন দুর্নীতির আখড়া ভূ-গর্ভস্থ সেচ প্রকল্পের কাজ দায়সারাভাবে করার অভিযোগ     |     পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় ধান ক্ষেত থেকে নবজাতক উদ্ধার     |