ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯শে অক্টোবর ২০২০ ইং | ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে বীরাঙ্গনা টেপরি বেওয়ার সংসারের অভাব আজও ঘোচেনি ।

মোঃ মজিবর রহমান শেখ ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি:ঠাকুরগাঁও জেলার   রানীশংকৈল উপজেলা বলিদ্বারা গ্রামের বীরাঙ্গনা টেপরি বেওয়া (৬৫)। বাড়িতে ঢুকতেই মুখে মৃদু হাসি দিয়ে পরিচয় জানতে চাইলেন। এরপর বসতে দিলেন চেয়ারে। সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে কাছে এসে বললেন, কী জানতে চান বলেন?   ১৮ অক্টোবর রবিবার সকালে একান্ত সাক্ষাৎকারে টেপরি বেওয়া তাঁর নিজ বাড়িতে আলাপকালে জানান, ১৯৭১ সাল। দেশে তখন ভয়াল স্বাধীনতাযুদ্ধ। আমার বয়স তখন ১৬-১৭-এর মতো হবে। প্রতিদিন বাবা-ভাইয়ের সঙ্গে ভয়ে ভয়ে কাটত দিন। প্রতিদিনই মনে হতো, এই বুঝি পাঞ্জাবিরা এসে তাদের মেরে ফেলবে। এপ্রিলের শেষ দিকে টেপরির গ্রামের এক নেতৃস্থানীয় লোক তার বাবা-ভাইকে বলে, যদি তোমরা তোমাদের এই মেয়েটাকে পাকিস্তানের ক্যাম্পে পাঠিয়ে দাও তাইলে এই মেয়ের উছিলায় তোমার পুরো পরিবার বেঁচে যেতে পারে।
কোনো উপায় না থাকায় সহজ-সরল বাবা মেয়ের হাত ধরে কাছের পাকিস্তানি সৈন্যদের ক্যাম্পে দিয়ে আসে আমাকে। সারা রাস্তা ধরে একটা কথাও হয় নাই বাপ-মেয়ের মধ্যে। টেপরিকে দিয়েই মাথা নিচু করে ফিরে আসেন। এরপর সাত মাস টেপরি ছিল সেই পাক ক্যাম্পে। টেপরির কাছে প্রতিরাতেই আসত তিন-চারজন পাকিস্তানি শুয়োরের বাচ্চা। পালা করে প্রতিদিনই পাশবিক নির্যাতন করত তারা। আর বাকি অত্যাচারের কথা মুখে বলার নয়। এভাবেই দীর্ঘ সাত মাস নিজের দেহের বিনিময়ে নিজের পরিবার ও দেশকে রক্ষা করে টেপরি বেওয়া। এর মধ্যে সময় অতিবাহিত হওয়ার পর দেশ স্বাধীন হলে পাকিস্তান ক্যাম্প থেকে বাবা টেপরিকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। টেপরি তত দিনে গর্ভবতী।  গ্রামের লোকেরা  টেপরির বাচ্চাটাকে নষ্ট করে ফেলতে বলে। কিন্তু টেপরির বাবা তাকে বলেন, রেখে দে মা। তোর তো আর কেউ রইবে না। এই বাচ্চাই তোর একমাত্র সম্বল হবে। শেষ বয়সে তোর দেখাশোনার জন্য সেই তোকে আগলে রাখবে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর এরই মধ্যে জন্ম হয় টেপরি বেওয়ার একমাত্র ছেলের। ছেলের নাম রাখা হয় সুধীর।  ছোট থেকেই সুধীরের সঙ্গে কেউ খেলত না, তার থেকে সবাই দূরে দূরে থাকত। যেন সুধীর কোনো ছোঁয়াছে রোগ। তাকে সব সময় পাঞ্জাবির বাচ্চা, জারজ বলে ডাকত সবাই। অনেক অপমান সইতে হয়েছে তাকে। কিন্তু সুধীর কিছুই বলত না। বলার ভাষাও ছিল না তার জানা।  কেন কোনো প্রতিবাদ করত না- সুধীরকে জিজ্ঞেস করা হলে সুধীর বলছিলেন, ঝগড়া করতে তো লোক লাগে; কিন্তু আমার সাথে কেউ মিশত না। জীবনটা এখনো তার ফাঁকা ফাঁকা লাগে। এভাবে একাই জীবন কাটে ভ্যানচালক সুধীরের। পরিবারে মা, বউ আর দুই মেয়ে- এই সুধীরের পৃথিবী। গ্রামের আর কারো সঙ্গে তাদের সম্পর্ক তেমন নেই। সুধীরের ছোট মেয়ে জনতা রায়। তিনি দিনাজপুর কেবিএম কলেজে অনার্স তৃতীয় বর্ষে অর্থনীতি বিভাগের ছাত্রী। বড় মেয়ের বিয়ে হয়েছে। তাঁর দুই যমজ মেয়েকে সুধীর আগলে রাখেন। এ নিয়ে টেপরি বেওয়াসহ ছয় সদস্যের ভরণপোষণ কষ্ট করে চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। টেপরি বেওয়া সরকারি বীরাঙ্গনার ভাতা ১২ হাজার টাকা পেলেও ঋণের কিস্তি বাবদ অর্ধেক টাকা চলে যায়। এরই মধ্যে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসকের দেওয়া একটি অটোচার্জার সুধীরকে দেওয়া হলে তিনি এখন ভ্যান ছেড়ে অটো চালাচ্ছেন। তবু সংসারের ঘানি টানতে হিমশিম খাচ্ছেন। টেপরি বেওয়ার ছোট নাতনি জনতা রায় বলেন, দাদির ভাতার টাকা, বাবার অটো চালানোর টাকা দিয়ে ছয়জনের পরিবারের ভরণপোষণ ও আমার লেখাপড়ার খরচ চালানো বাবার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। গত বছর ডিসি স্যার আমাদের বাড়িতে এসে আমার পড়ালেখার বিষয়ে খরচ দেওয়ার কথা বলেছিলেন। কিন্তু তা এখনো আমি পাইনি। সাংবাদিক মজিবর রহমান শেখ কে বীরাঙ্গনা টেপরি বেওয়া বলেন, শরীর তেমন আমার ভালো নেই, কোমরে সব সময় ব্যথা লেগেই আছে। সুধীরের সংসার টানতে খুব কষ্ট হচ্ছে। এই করোনাকালে ছেলের আয় কমে গেছে। সব মিলিয়ে এখনো অনেক কষ্ট করে সংসার চলে!

You must be Logged in to post comment.

গাংনীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গৃহকর্তা আব্দুল বাকীর মৃত্যু     |     ঠাকুরগাঁওয়ে ১৫ হাজার পিচ ইয়াবা সহ আটক-১, জেলা পুলিশের সংবাদ সম্মেলন ।     |     সাতক্ষীরায় ১৮ পিস স্বর্ণের বারসহ চোরকারবারী আটক     |     মেহেরপুরে বিভাগীয় পুলিশ কর্মকর্তা ডিআইজির আগমন। রিজার্ভ অফিস ও পুলিশ অফিসের বার্ষিক পরিদর্শন     |     পঞ্চগড়ে বোদায় বিয়ের কথা বলে ডেকে নিয়ে মাইক্রোবাসে গৃহবধূকে রাতভর ধর্ষণ     |     তেঁতুলিয়ায় অভিনব কায়দায় চুরি অতঃপর ১৫ দিন পর মালামাল উদ্ধারসহ ৪ জন আটক     |     ঝিকরগাছা উপজেলার রাজস্ব সভা অনুষ্ঠিত     |     পার্বতীপুরে জাতীয়তাবাদী যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপিত     |     রূপসায় এমপি সালাম মূর্শেদী বাংলাদেশ আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে পা রেখেছে     |     শৈলকুপায় মধু সংগ্রহ করতে গিয়ে গাছ থেকে পড়ে যুবকের মৃত্যু     |