ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৬শে নভেম্বর ২০২০ ইং | ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

ঠাকুরগাঁওয়ে অস্তিত্ব সংকটে জেলা বিএনপি!

ঠাকুরগাও জেলা প্রতিনিধিঃবিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের নির্বাচনী এলাকা হওয়ায় বিএনপির শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ঠাকুরগাঁও জেলা। কিন্তু দীর্ঘ ৯ বছর দল ক্ষমতায় না থাকায়  এবং অভ্যন্তরীন কোন্দলে ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপি রাজনৈতিক মাঠে দূর্বল হয়ে পড়েছে এমনটাই মনে করছেন দলের প্রবীণ নেতারা।জেলা বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ না করা, সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক নিজেদের মত করে নির্ধারণ করা, জেলা কমিটির কিছু পদে নির্ধারিত নেতাদের নাম ঘোষণা করা, রাজপথের ত্যাগী নেতাদের কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে নাম না থাকায় জেলা বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনগুলো এখন চরম অস্তিত্ব সংকটের মুখে।যোগ্য, দক্ষ, রাজনৈতিক মেধাবী, সাহসী নেতৃত্বের অভাবে বর্তমান সময়ে সরকারবিরোধী আন্দোলনে পিছিয়ে পড়েছে বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তাই এখন অফিসকেন্দ্রিক কর্মসূচিতেই সীমাবদ্ধ দলটি। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ‘জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা’য় ৫ বছর কারাদণ্ড থেকে মুক্তির দাবিতে ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির কিছু নেতা ঘরোয়াভাবে কর্মসূচি পালন করলেও রাজপথে কোন নেতাকর্মীকে দেখা যায়নি।বিগত সময় সরকারবিরোধী আন্দোলনে জেলার সাবেক শীর্ষ ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের নিয়ে বিএনপি রাজনৈতিক ময়দানে সরব ছিল। কিন্তু বর্তমান ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা প্রকৃত ছাত্র, শিক্ষিত, ঐক্যবন্ধ ও রাজনৈতিক মাঠ দখল করতে না পারায় জেলায় ছাত্রদলের কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়েছে।গত ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির আগে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের আন্দোলনে মাঠে জেলা বিএপির কর্মসূচি নিয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের রাজপথ বিএনপির দখলে ছিল। কিন্তু বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পছন্দ মতো নতুন কমিটি করার পর দলীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ভূমিকা নিয়ে হতাশা ও অসন্তোষ বিরাজ করছিল বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে।শুধুমাত্র বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এলাকায় এলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হয়ে ওঠে। কিন্তু চলে গেলেই রাজপথ ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে যা ইতিপূর্বে লক্ষনীয়।সদর উপজেলা বিএনপির ইউনিয়ন পর্যায়ের কয়েকজন নেতাকর্মীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, ঠাকুরগাঁও জেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীরা সুবিধাবাদি। তারা শুধু দলের পদ নিয়েই ব্যস্ত সময় পার করছেন। এতদিন আমাদের ব্যবহার করেছে বিভিন্ন বিক্ষোভ, সমাবেশে অংশ গ্রহন করে মামলা খেয়ে জেল হাজতে পাঠানোর জন্য। কিছুদিন খোঁজ খবর নেওয়ার পরে জেলার কোন নেতা আর যোগাযোগ পর্যন্ত করে না। মামলার হাজিরা দিতে গিয়ে অর্থনৈতিক ভাবে আমরা এখন পঙ্গু। কিন্তু দলকে ভালবাসি বলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আবারো আন্দোলনে নামতে রাজি আছি।দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সহিংসতা, ভাংচুর, প্রিজাইডিং অফিসার হত্যাসহ দেড় শতাধিক মামলার প্রায় ৪ হাজার আসামি করে মামলা দায়ের করেন ঠাকুরগাঁও পুলিশ। এ সময় মামলার জন্য অনেক নেতাকর্মী দীর্ঘদিন জেল খেটেছেন। বর্তমানে মামলার হাজিরা দিচ্ছেন নিয়মিত।ক্ষোভ প্রকাশ করে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাবেক এক ছাত্র নেতা বলেন, ঠাকুরগাঁওয়ের মতো বিএনপির শক্ত দূর্গে পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ না করে ব্যক্তিগতভাবে পদের নাম ঘোষণা নিয়ে হতাশ জেলা বিএনপির অনেক ত্যাগী নেতা। তবে নেতাকর্মীরা দাবি করছেন তাদের কথা চিন্তা করে জেলা বিএনপি অতীত মনে রেখে গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে সুবিধাবাদিদের সরিয়ে দিয়ে যারা রাজপথে আন্দোলনে সংগ্রামে অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা রেখেছেন তাদের নিয়ে সময় উপযোগী একটি শক্তিশালী পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা দিবেন। তাহলেই চাঙ্গা হয়ে উঠবে বিএনপি।জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো: কায়েস বলেন, বর্তমান জেলা ছাত্রদলের নতুন কমিটির ভেতরে কোনো গ্রুপিং নেই। জেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন, উপজেলাতে ছাত্রদলের কমিটি হচ্ছে। আগামীতে আন্দোলনের জন্য হাইকমান্ডের অপেক্ষায় আমরা সকলে।এ বিষয়ে জেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান তৈমুর রহমান বলেন, অবৈধ সরকারের রোষানলে পড়ে মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা গা-ঢাকা দিয়েছে, পুলিশি হয়রানি ও গ্রেফতার আতংঙ্কে জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন নেতাকর্মীরা আড়ালে রয়েছেন।পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা না দিয়ে ব্যক্তিগতভাবে কমিটিতে পদ দেওয়ার ব্যপারে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, আমাদের কাছে এ ব্যাপারে কোনো নেতাকর্মী অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে সাংগঠনিক প্রক্রিয়ায় ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমরা আগামী নির্বাচন ও দলের প্রধানকে মুক্ত করার লক্ষ্যে তৃণমূল পর্যায়ে সক্রিয় হচ্ছি।পূর্ণাঙ্গ কমিটির বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে মুঠো ফোনে পাওয়া যায়নি।উল্লেখ্য, গত বছরের ২৩মে অনুষ্ঠিত ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি নির্বাচিত হয় সদর উপজেলা চেয়ারম্যান তৈমুর রহমান। সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন পৌর মেয়র ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ভাই মির্জা ফয়সল আমিন।সর্বশেষ ২০০৯ সালের ২৫ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়া ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির সম্মেলনে সভাপতি নির্বাচিত হন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তৈমুর রহমান। পরে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বিএনপির মহাসচিব নির্বাচিত হলে আগের কমিটি বিলুপ্ত করে তৈমুর রহমানকে আহবায়ক করে একটি কমিটি গঠন করা হয়।তবে ওই বছরের ৩১ ডিসেম্বর দলের সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তবে পূর্ণাঙ্গ কমিটির নামের তালিকা বার্তায় উল্লেখ করা হয়নি।

You must be Logged in to post comment.

কলারোয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান ও এক স্কুলের শিক্ষকসহ ১৭জনের বিরুদ্ধে প্রতারনার মামলা     |     কলারোয়ায় বীর মুক্তযোদ্ধা লুৎফর রহমানের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন     |     সাতক্ষীরার কলারোয়ার পল্লীতে কৃষকের গলা কাটা লাশ উদ্ধার     |     গাইবান্ধার সাঘাটায় যমুনা নদীতে জেলের বরশিতে ধরা পড়ল ঘড়িয়াল     |     তেঁতুলিয়ায় দুই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে তিন যুবক গ্রেফতার     |     বাগাতিপাড়ায় ভ্যান চোর সন্দেহ আটক – ১  উত্তম মাধ্যম দিয়ে থানায় সোপর্দ       |     ঠাকুরগাঁওয়ে প্যাডি সাইলো নির্মানের জন্য  জমি দান করলেন– রমেশ চন্দ্র সেন এমপি     |     গাংনীতে ১১ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে ‘আলোর পথে যুব উন্নয়ন সংস্থা’র পরিচালক উধাও। টাকা ফেরত পেতে পার্টনারদের মামলা     |     রূপসায় মুক্তিযোদ্ধার পাল্টা সংবাদ সম্মেলন নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডের মূল হোতা মাদক ব্যবসায়ী ইউপি চেয়ারম্যান সাধন     |     গাইবান্ধায় সেবা নিতে গিয়ে ধর্ষণ-ভিডিও ধারণ, গ্রেফতার ইউপি চেয়ারম্যান     |