ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০শে অক্টোবর ২০২০ ইং | ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

তবুও চলছে প্রাণি সম্পদ কল্যাণ কার্যক্রম

আক্তারবানু ইতি, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি:- গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ১৭টি প্রাণি সম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র ও কৃত্রিম প্রজনন পয়েন্টের প্রতি সু-নজর না থাকলেও চলছে প্রাণি সম্পদ কল্যাণ ও কৃত্রিম প্রজনন তথা সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম। পরিবার পরিজনের ভরন-পোষণ অনিশ্চিত ভেবেও মাসিক ৫’শ টাকা সম্মানির বিনিময়ে নিরলসভাবে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন এসব কেন্দ্রে নিয়োজিত প্রজননকর্মীসহ সংশ্লিষ্টগণ।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৬ সালে উপজেলার বামনডাঙ্গা প্রাণি সম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র ও কৃত্রিম প্রজনন পয়েন্টের জন্য একটি ভবন নির্মিত হয়। তখন থেকে স্থানীয়দের গৃহপালিত পশু-পাখি সেবা ও প্রজনন কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। এ পয়েন্টে প্রথম পর্যায়ে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল একজন উপ-সহকারী প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা (ভিএসএ) ও একজন প্রজননকর্মীসহ মোট ২ জন। ১৯৮৭ সালে শোভাগঞ্জ পশু-পাখি কল্যাণ কেন্দ্র ও কৃত্রিম প্রজনন পয়েন্টের কার্যক্রম শুরুরপর একই দশকে উপজেলার অন্যান্য ইউনিয়ন গুলোতে মোট ১৫টি প্রাণি সম্পদ বা পশু-পাখি কল্যাণ কেন্দ্র কাম কৃত্রিম প্রজনন পয়েন্ট। এসব পয়েন্টে সংশ্লিষ্ট কার্যাদি পরিচালনার জন্য ২ কক্ষ বিশিষ্ট একটি করে ভবন নির্মিত হয়। এছাড়া, তিস্তা ও বহ্ম্রপুত্র নদ বেষ্টিত কাপাসিয়া ও বেলকা ইউনিয়নে একটি করে সাব-কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়। নিয়োগ দেয়া হয় প্রতিটি কেন্দ্রে ১জন করে উপ-সহকারী প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা (ভিএসএ) ও ১ জন করে প্রজননকর্মী (এআই)। এসব কেন্দ্রের দীর্ঘদিন ধরে কোন প্রকার সংস্কার হয়নি। প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র ও প্রজনন সংশ্লিষ্ট সরঞ্জামাদী সরবরাহ না করাসহ সংশ্লিষ্ট দফতরের সু-নজর না থাকায় এগুলো পয়েন্ট বর্তমানে চরম দুর্দশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছে। তবুও থেমে নেই সংশ্লিষ্ট পর্যায়ে (স্থানীয়ভাবে) পশু-পাখির সেবামূলক কার্যক্রম। ১৭ জন এআই (কৃত্রিম প্রজননকর্মী) মাসিক ৫’শ টাকা করে সম্মানী পেয়ে থাকলেও তাদিয়ে পরিবারের খাবারের নিশ্চয়তা নেই ভেবেও নিরলসভাবে দিয়ে যাচ্ছেন সেবা। তারা এ সম্মানী পাচ্ছেন কৃত্রিম প্রজনন প্রকল্প থেকে। এর বিনিময়ে এসব প্রজননকর্মী এখন মানুষের নিজ নিজ বাড়িতে গিয়ে তাদের গৃহপালিত গরু, ছাগল, মহিষকে প্রজনন করে এসব গরু, ছাগল ও মহিষের পালকরা খুশি হয়ে প্রজননকর্মীদেরকে দিয়ে থাকেন ৫০ থেকে ৭০ কিংবা ১’শ টাকা। প্রজননকর্মী না থাকলেও বামনডাঙ্গা পয়েন্টে নিয়োজিত রয়েছেন উপ-সহকারী প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. আঃ ওয়াহাব মন্ডল। শোভাগঞ্জ পয়েন্টে রয়েছেন এআই হীরালাল চৌহান। শোভাগঞ্জ পয়েন্টের নিজস্ব ২০ শতক জায়গার মধ্যে ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা ব্যায়ে ২ কক্ষ বিশিষ্ট একটি গৃহ নির্মাণ হয়। উক্ত ভবনের প্রতি কোন সু-নজর না থাকায় সংশ্লিষ্ট সরাঞ্জামাদি, আসবাবপত্র এমনকি ইট, টিন, কাঠগুলো খুঁইয়ে যাচ্ছে। বামনডাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র সীমানাভ্যন্তরে অবস্থিত বামনডাঙ্গা প্রাণি সম্পদ কল্যাণ কেন্দ্র ও কৃত্রিম প্রজনন পয়েন্টের ভবনের চাল, টিন ঠিক থাকলেও বজায় নেই অবকাঠামোসহ সরঞ্জামাদি। একই অবস্থায় রয়েছে অন্যান্য পয়েন্টগুলো। অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনায় স্থানীয় জন প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট দফতরের সু-নজর দাবি জানিয়ে সচেতন মহল এসব পয়েন্টের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা রয়েছে বলে মনে করেন।
উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. ফজলুল করিম জানান, এসব পয়েন্টর উন্নয়নকল্পে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয়ভাবেই পদক্ষেপ গ্রহণ করা দরকার। তাই উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে অবগত করা হবে।
জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. আঃ সামাদ জানান, এক বছর ধরে এ জেলায় (গাইবান্ধায়) দায়িত্ব পালন করে আসলেও এসব পয়েন্টের খোঁজ-খবর নেয়া হয়নি। এখন এসব পয়েন্টের খোঁজ-খবর নিয়ে এগুলোর সার্বিক উন্নয়নকল্পে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্দ্ধতন দফতরে অবগত করা হবে। তাছাড়া, সরেজমিনে পরিদর্শন করে এসব পয়েন্টের সার্বিক অবস্থা তুলে ধরার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

You must be Logged in to post comment.

রাণীশংকলৈে শালবাগান রক্ষায় মানববন্ধন পালতি     |     মেহেরপুর জেলা বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ     |     গাংনী সীমান্তে ২ লাখ টাকার ফেন্সিডিল ও ট্যাবলেট উদ্ধার     |     মেহেরপুরের গাংনীতে ভ্রাম্যমান আদালতে ইভটিজারের ৩ হাজার টাকা জরিমানা     |     আশাশুনির একটি মৎস্য ঘের থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার     |     রূপসায় নারী নির্যাতন প্রতিরোধে উঠান বৈঠক     |     সিভিল সার্জনের কথা উপেক্ষা করেই চলছে ঝিকরগাছার আয়সা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার     |     ঝিকরগাছায় ৭৪৮টি গভীর নলকূপ বিতরণ করলেন এমপি ডা. নাসির উদ্দিন     |     সাতক্ষীরায় ব্যাংকের সিল ও বিআরটিএ’র নকল রশিদসহ দালাল চক্রের ৩ সদস্য আটক     |     আশাশুনির একটি মৎস্য ঘের থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার     |