ঢাকা, শনিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তেঁতুলিয়ায় সমতল ভূমিতে চা বাগানে মাল্টা চাষ করে দিগুণ আয়ে আগ্রহ বাড়ছে চাষীদের

আবু তাহের আনসারী পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি : তেঁতুলিয়া উপজেলার সমতল ভুমিতে চা বাগানে সমন্বিত ফসল হিসেবে গত কয়েক বছর ধরে মাল্টার বাগান করছেন চাষিরা। এতে করে চায়ের পাশাপাশি প্রায় সমপরিমান অর্থ মাল্টা থেকে আয় করছে চা বাগান মালিকরা। চা বাগানে সমন্বিত ফল চাষ করে একদিকে যেমন ফলের পুষ্টি আহরণ করতে পারছেন অন্যদিকে প্রচুর লাভবানও হচ্ছেন ক্ষুদ্র চা চাষিরাও। সংম্লিষ্টরা বলছেন, স্বাদে এবং গুণে অত্যন্ত সুস্বাদু এই মাল্টা এখন সারাদেশে সরবরাহ করা হচ্ছে। আর মাল্টা চাষে আগ্রহী চাষিদের সকল প্রকার সহায়তা দিচ্ছে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর। উপজেলার তিরনইহাট ইউনিয়নের ইসলামবাগ এলাকার বিশ^বিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী ফেরদৌস কামালের ছেলে সাদেকুল ইসলাম সুষম দুই একর জমিতে দুইশ’ বারি-১ জাতের মাল্টা চারা রোপন করে। করোনা কালীন সময়ে বিশ^বিদ্যালয় বন্ধ হওয়ায় ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরে বাবার জমিতে মাল্টা চাষ শুরু করে । মাত্র ১৮ মাসের মধ্যে প্রত্যেক গাছেই প্রচুর পরিমানে ফল আসে। তেঁতুলিয়া উপজেলার তিরনইহাট ইউনিয়নের ইসলামবাগ গ্রামে চা বাগানে মাল্টা চাষ করে হাসি ফুটেছে চাষী সাদেকুল ইসলাম সুসমের। সুসম জানান, দুই একর চা বাগান থেকে চা পাতা বিক্রি হয় দুই থেকে আড়াই লাখ টাকা। এবার চায়ের পাশাপাশি আরও দুই লাখ টাকার মাল্টা বিক্রি করতে পারবো বলে আশা করছি। শুধু সুসমই নয়; অন্যান্য চাষিরাও চা বাগানের পাশাপাশি মাল্টা চাষ করে লাভবান হচ্ছেন। তিনি আরও জানান, চা বাগানে মাল্টা চাষ করলে আলাদা খরচ করতে হয় না। চা বাগানে যে সব সার ও কীটনাশক ব্যবহার করা হয় তা দিয়েই মাল্টা উৎপাদন করা যায়। চাষিরা বলছেন, বাগান থেকে ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা কেজি দরে মাল্টা বিক্রি হয়। আর চা বাগানে মাল্টা বাগান দেখতে প্রতিনিয়ত আসছেন পর্যটকরাও। মাল্টা এবং চা বাগানের অভিনব চাষ দেখে মুগ্ধ হচ্ছেন তারা।
ফসলের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় ফল মাল্টা সাইট্রাস । এটি ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ ফল যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। এটি ত্বকে সজীবতা বজায় রাখে এবং ত্বকের বলি রেখা প্রতিরোধ করে লাবণ্য ধরে রাখাসহ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। ভিয়েতনাম, উত্তর পশ্চিম ভারত ও দক্ষিণ চীন মাল্টার আদি উৎপত্তিস্থল। তবে বর্তমানে এই ফলটি বিশ্বের উষ্ণ ও অব-উষ্ণমন্ডলীয় এলাকায় বেশি চাষ হচ্ছে। বাংলাদেশেও পাহাড়ি এলাকা ছাড়াও দেশের অন্যান্য এলাকাতেও মাল্টা চাষ হচ্ছে। শুস্ক ও উষ্ণ জলবায়ু মাল্টা চাষের জন্য বেশি উপযোগি। আামাদের দেশেও মাল্টার চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। মাল্টা চাষ বৃদ্ধি পেলেও এখনও দেশের চাহিদা মেটাতে যার অধিকাংশই আনতে হয় দেশের বাইরে থেকে। আবহাওয়া, মাটি এবং পরিমিত বৃষ্টিপাত মাল্টা চাষের উপযোগি। এর সুফল নিয়ে জেলার সব উপজেলাতে মাল্টা চাষ সম্প্রসারিত হচ্ছে। গড়ে উঠেছে ছোট বড় অনেক মাল্টা বাগান।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, একই জমিতে চা চাষের পাশাপাশি সাথী ফসল হিসেবে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ মাল্টা চাষ করে অধিক লাভবান হচ্ছেন চাষিরা। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৫০ হেক্টর জমিতে চাষ হচ্ছে মাল্টা। প্রতি বছরই চা বাগানে সাথী ফসল হিসেবে মালটা চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়াও সমতল ভুমিতে মালটা চাষে চাষীদের আগ্রহ দিনদিন বাড়ছে। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে চাষীদের বিভিন্ন সময় প্রশিক্ষন প্রদান ও বাগন পরিচর্যার উপকরণ বিতরণ করা হয়ে থাকে।

You must be Logged in to post comment.

রাণীশংকৈলে বৈদ্যুতিক শক লেগে মা ও ছেলের মর্মান্তিক মৃত্যু     |     ঠাকুরগাঁওয়ে বৈদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ হারালেন মা-ছেলে     |     ঠাকুরগাঁওয়ে তিন স্কুলের ১৪ ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত     |     রূপসায় নির্বাচনী মত বিনিময় সভা     |     সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার     |     সাতক্ষীরায় জলবায়ু ধর্মঘট ও তরুনদের প্রতীকি ফাঁসি কর্মসূচি পালিত     |     রানীশংকৈলে মধ্যযুগীয় কায়দায় যুবককে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্মম নির্যাতন, নির্যাতিতা মহিলা গ্রেফতার      |     বিয়ে করার কারণে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল, আটক-১     |     আটোয়ারীতে সাংবাদিকদের সাথে নব যোগদানকৃত কৃষি অফিসারের মতবিনিময়     |     ফুলবাড়ীতে ৯মাস থেকে উপবৃত্তির টাকা পায়নি প্রাথমিকের সাড়ে ১৭০০ শিক্ষার্থী।     |