ঢাকা, রবিবার, ২৪শে জানুয়ারি ২০২১ ইং | ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

ভারতীয় বাঘের আতঙ্কে পঞ্চগড়ের হাজার হাজার এলাকাবাসী ঢাকা থেকে আসা প্রশিক্ষিত বনকর্মীদের অভিযান

পঞ্চগড় প্রতিনিধি: পঞ্চগড়ে ভারতীয় বাঘের আতঙ্কে কাটছে কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার এলাকাবাসীর। গত একমাস থেকে আনাগোনা এবং ছাগল, গরু ও কুকুরকে ধরে নিয়ে যাওয়া বাঘের আক্রমণের রু ছাগল খেয়ে ফেলার ঘটনায় দিনরাত আতঙ্ক আর ভয়ে দিন কাটছে তাদের। বাঘের আক্রমণ থেকে বাঁচতে রাত জেগে পাহাড়া দিচ্ছেন গ্রামের মানুষ। পঞ্চগড় সদর উপজেলা ও তেতুঁলিয়া উপজেলার সাতমেরা ও দেবনগড় ইউনিয়নের মুহুরিজোত, সাহেবীজোত, উষাপাড়া ও বাদিয়াগজ গ্রামের কেউ কেউ বাঘ দেখেছেন আবার কারো কারো পশু খেয়ে ফেলার ঘটনায় আতঙ্কিত গ্রামবাসীদের মাঝে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে ওই এলাকায় চলছে প্রশিক্ষিত বনকর্মীদের অভিযান। বাঘের পায়ের ছাপ দেখতে পেলেও এখন পর্যন্ত তারা বাঘ দেখতে পায়নি। তবে বাঘ দেখার জন্য ওই এলাকায় কয়েক হাজার উৎসুক জনতা ভীড় করছে। জেলা প্রশাসন ও সামাজিক বনবিভাগ অথবা সরকারের অন্য কোন সংস্থা যদি বাঘ উদ্ধারে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা না নেয় তাহলে সড়ক অবরোধের ঘোষনা দিয়েছে গ্রামবাসী। এ খবর পেয়ে সামাজিক বনবিভাগের উদ্যোগে ওই এলাকায় মাইকিং করে গ্রামবাসীদের রাতে সচেতন থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার আরিফ হোসেন, পঞ্চগড় সদর থানা পুলিশের উপ পরিদর্শক শাহীনুজ্জামান, সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান, পঞ্চগড়ের ফরেস্ট রেঞ্জার আব্দুল হাইসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং এলাকাবাসিকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।
সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, ভারতীয় একটি চিতাবাঘ তার দুটি বাচ্চাসহ ভারত সীমান্তের একটি ব্রীজের নিচ দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে বলে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) বিষয়টি সীমান্তবর্তী এলাকার লোকজনদের অবহিত করেন। এর পর ওই এলাকার লোকজনও আকারে লম্বা ও গায়ে কালো গোল ছাপ দেখে বাঘগুলো চিতাবাঘ বলে ধারণা করছেন। দুটি বড় ও তিনটি বাচ্চা বাঘ রাত হলেই বের হয়ে গ্রামের দিকে চলে আসে। গত এক সপ্তাহ থেকে বাঘের আনাগোনা আরও বেড়ে গেছে। প্রয়োজন ছাড়া কেউ হাট বাজারে যাচ্ছেন না। গেলেও দল বেঁধে যাচ্ছেন। এখন রাতে শান্তিতে ঘুমাতেও পারছেন না তারা। প্রতিটি বাড়িতে বড় টর্চ লাইট রাখা হয়েছে। রাত জেগে বাঘ পাহাড়া দিচ্ছেন গ্রামের মানুষ। ওই এলাকার চার একর জমির পুরোনো চা বাগানের ঝোপ ঝাড়ে বাঘ লুকিয়ে রয়েছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। ওই চা বাগান এলাকায় শত শত উৎসুক মানুষের ভিড়। দূর দূরান্ত থেকে তারা বাঘ দেখতে এসেছেন। কেউ কেউ চা বাগানের ভেতরে ঢুকেও বাঘের দেখা পাওয়া চেষ্টা করছেন। বিভিন্ন স্থানে বাঘ ধরতে ফাঁদ পেতে রাখা হয়েছে।
দেবনগড় ইউনিয়নের উষাপাড়া গ্রামের আবুল কালাম জানান, বুধবার বিকেলে আমার একটি গরুকে বাঘ গলায় কামড়ে ধরে হত্যা করে। আমি নিজেই চা বাগানে চিতা বাঘকে দেখেছি এবং সে সময় আমার চিৎকারে লোকজন ছুটে আসে। অন্যরাও বাঘ দেখেছে। চা বাগানের ভিতরে আমি নিজে বাঘটিকে দেখেছি বাঘটি আমার দিকে তেড়ে আসছিল কিন্তুচা বাগানের ডালপালার কারনে কাছে আসতে পারেনি। আমি সেটা দেখে দৌড়ে বাড়ি চলে আসি। আমার ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকার গরুটি মেরে ফেলে বাঘটি। এর আগে আরেকটি ছাগলের উপর হামলা করে বাঘ।
সাহেবীজোত গ্রামের হাজিবউদ্দিন নামের একজন জানান, আমরা কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার মানুষ বাঘ আতঙ্কে ভয়ে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছি। এই এলাকায় বেশ কয়েকবার আমরা বাঘের আনাগোনা দেখেছি। বাঘ তাড়ানো বা ধরার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।
মুহুরীজোতা গ্রামের রুবেল রানা জানান, আমাদের এলাকায় এখনও বেশ কিছু এলাকায় জঙ্গলসহ পুরোনো চা বাগান রয়েছে। বাঘ আসলে এ এলাকায় ঘাপটি মেরে থাকে। ভয়ে আমরা স্বাভাবিকভাবে চলাচল করতে পারছি না। সন্ধ্যার পর কেউ বের হয় না।
পঞ্চগড় ফরেস্ট রেঞ্জার আব্দুল হাই জানান, প্রধান বন সংরক্ষককের নির্দেশে ঢাকা থেকে আসা ভেটেরেনারি সার্জনসহ ৪ সদস্যের একটি দল ও আমাদের স্থানীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমন্বয়ে বাঘ ধরার কাজ শুরু হয়েছে।
পঞ্চগড় সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আরিফ হোসেন জানান, কিছু প্রত্যক্ষদর্শী এবং গরুকে হত্যা করার মালিক ও বাঘের পায়ের ছাপ থেকে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে এ এলাকায় বাঘের অস্তিত্ব রয়েছে। বিষয়টি জেলা প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক এ বিষয়টি সার্বক্ষনিক তদারকি করছেন। এছাড়া আমরা বন বিভাগের সমন্বয়ে বাঘটিকে ধরার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আমরা এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করেছি। স্থানীয়দের প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের না হওয়ার জন্য অনুরোধ করেছি। এছাড়া বাঘের আক্রমণে যারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন তাদের সহযোগিতা করার কথাও বলেছেন তিনি।
দিনাজপুর সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আব্দুর রহমান জানান, এখানে বাঘ একটি গরুকে হত্যা করেছে। জেলা বন কর্মকর্তাকে বাঘ ধরার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ঢাকা থেকে ৪ সদস্যের একটি অভিজ্ঞ টিম পাঠিানো হয়েছে। তবে বাঘগুলোর সুনির্দিষ্ট অবস্থান এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি বাঘগুলোর অবস্থান নিশ্চিত হয়ে বাঘগুলোকে জীবিত অবস্থায় ধরতে।

You must be Logged in to post comment.

কাজলদিঘী কালিয়াগঞ্জ ইউনিয়ন গ্রাজুয়েট ফােরামের অসহায় ও দুস্থদের মাঝে কম্বল বিতরন     |     ঝিকরগাছার গদখালী ইউপি নির্বাচন আ’লীগের প্রার্থী হতে চান আলমগীর হোসেন মোল্লা     |     ঝিকরগাছায় সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ও রূপান্তর হস্তশিল্পের শুভ উদ্বোধন     |     ঝিকরগাছায় ১৯জন ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান     |     ঠাকুরগাঁওয়ে  রাণীশংকৈল শেখ রাসেল জাতীয় শিশুকিশোর পরিষদের পরিচিতি সভা ও কম্বল বিতরণ ।     |     মাদারীপুরের শিবচরে রোগীবাহী এ্যাম্বুলেন্স খাদে পড়ে নিহত-২ আহত-৪     |     রাণীশংকৈলে পরিচিতি সভা ও কম্বল বিতরণ করল শেখ রাসেল পরিষদ      |     ঠাকুরগাঁওয়ে  বালিয়াডাঙ্গীতে ভূমিহীন এবং গৃহহীনদের মাঝে জমি ও ঘর হস্তান্তর ।     |     বাগেরহাটে‘স্বপ্নের ঠিকানা’ প্রধানমন্ত্রীর ঘর উপহার পেয়ে খুশি গৃহহীনরা     |     বাগেরহাটে‘স্বপ্নের ঠিকানা’ প্রধানমন্ত্রীর ঘর উপহার পেয়ে খুশি গৃহহীনরা     |