ঢাকা, মঙ্গলবার, ২রা মার্চ ২০২১ ইং | ১৮ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মেহেরপুরে বিএডিসি অফিস এখন দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত। টাকা ছাড়া যেখানে কোন কাজ হয় না।

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম মেহেরপুর প্রতিনিধি ঃমেহেরপুরের গাংনীতে বিএডিসি অফিস এখন দুর্নীতি,অর্থ কেলেঙ্কারী, স্বজনপ্রীতি ও চরম অব্যবস্থাপনার আখড়ায় পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছ্।ে
লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার অধীন বিভিন্ন অঞ্চলের গভীর নলকূপ, এলএলপি ক্ষুদ্র সেচ প্রকল্পের গাংনী উপজেলা বিএডিসি এর অন্তর্গত গ্রুপ ম্যানেজারবৃন্দ ও ব্যক্তি ক্ষুদ্র সেচ মালিকগন জানান, গাংনী উপজেলা বিএডিসি অফিস এখন দুর্নীতি, অনিয়ম, অবৈধ অর্থ লেনদেনের মহাকারখানা তৈরী হয়েছে। অনিয়ম ও অর্থ কেলেঙ্কারীর তালিকায় উক্ত অফিসের কর্মকর্তা, কর্মচারীরা সমন্বিত মুজিবনগর কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের ২০১২-১৩ অর্থ বছরের শুরুর পর থেকে অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে সরকার কর্তৃক গভীর নলকূপ কৃষি সেচ উন্নয়নের জন্য দেয়। সেচ সম্প্রসারণের জন্য দেয়া হলেও অর্থ লেন দেনের কারণে নলকূপগুলো যথাযথভাবে স্থাপন করা হয়নি। যে কারনে সরকার বিপুল অঙ্কের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, নলকূপ মেরামত বিষয়ে অফিসে কোন সহযোগিতা পাওয়া যায়না। অনেক গভীর নলকূপ অদ্যাবধি অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছ্।ে কৃষকরা হয়রানির শিকার হচ্ছে। ব্যক্তি মালিকানায় ক্ষুদ্র সেচের লাইসেন্স বাবদ ২০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়ে সেচ কমিটি থেকে পাশ করানো হয়। আরও জানা গেছে, সেচ নীতিমালা বহির্ভূত ভাবে এক স্কীমের মধ্যে অন্য স্কীমের লাইসেন্স মটর পাম্প স্থাপন করা হচ্ছে। ফলে সাধারণ কৃষকরা প্রতারিত হচ্ছে এবং আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।অনিয়মের নানা অভিযোগ উল্লেখ করে জানান, গভীর নলকূপের অপারেটর বিল বাবদ সরকারী নীতিমালায় শতকরা ১০ ভাগ দেয়ার কথা থাকলেও ২০ মাস অতিবাহিত হলেওকোন ম্যানেজারকে অপারেটর ভাতা পরিশোধ করা হয়নি। বিএডিসি কর্তৃক গভীর নলকূপ ও এলএলপির অবকাঠামো মেরামত মটর পাম্প, বারিক পাইপ, রাইডার, মিটার ইত্যাদি ক্ষতিগ্রস্থ হলে কোন প্রকার সহযোগিতা করা হয় না। এমনকি কোন কর্তৃপক্ষ সরেজমিনে দেখভালও করে না।আবার নিজস্ব খরচে মেরামতের ব্যবস্থা করা হলেও সেই খরচ দেয়া হয় না। উপরন্তু কাগজে কলমে খরচ দেখিয়ে টাকা আত্মসাত করা হয়। গাংনী উপজেলার মধ্যে ৩ টি নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে এর মধ্যে একটিতে সম্পূর্ণভাবে মাছ চাষ করা হচ্ছে।এক একটি এলএলপি মেশিন এর অনুকূলে ৫ লক্ষ থেকে ৬ লক্ষ টাকা করে উৎকোচ নেয়া হয়েছে। এছাড়া বারিক পাইপ বর্ধিত করণের জন্য ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকা করে নিয়ে সংযোগ দেয়া হচ্ছে। একইভাবে কৃষকের নিকট থেকে নতুন ভাবে গভীর নলকূপ দেয়ার নামে অগ্রিম টাকা ঘুষ নেয়া হচ্ছে।
এব্যাপারে উপজেলা বিএডিসি সেচ প্রকল্প কর্মকর্তার সাথে বিষয়টি জানতে একাধিকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
উল্লেখিত বিষয়গুলো বিবেচনা করে সরেজমিনে তদন্ত সাপেক্ষে প্রকল্প ছাড়পত্র দেয়ার আবেদন ও দুর্নীতি খতিয়ে দেখে দোষী কর্মকর্তা-কর্মকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন গ্রুপ ম্যানেজারদেও পক্ষে হারুণর রশীদ, আকবর আলী, ওসমান আলী, নুরুজ্জামান, মিজানুর রহমান, মোজাম্মেল হক, আলী হোসেন প্রমুখ।

You must be Logged in to post comment.

অর্থ টোকাও ছাইফুল ইসলাম     |     কাল বোশেখী আঃ রশিদ তালুকদার     |     মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি ঘর ভাঙচুর প্রতিবাদে ভূঞাপুরে মানববন্ধন     |     টাঙ্গাইলে সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের পতাকা মিছিল     |     গাইবান্ধায় লাল মিয়া খুনের ঘটনায় হত্যাকারীদের গ্রেফতার দাবীতে বিক্ষোভ     |     টাঙ্গাইলে পুলিশ মেমোরিয়াল ডে পালিত     |     গাইবান্ধায় পালিত হলো ‘পুলিশ মেমোরিয়াল ডে-২০২১     |     বাগাতিপাড়ায় ইউনিয়ন আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত     |     পঞ্চগড়ে গৃহহীন-ভূমিহীন ৮টি পরিবারকে ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা।     |     তেঁতুলিয়ায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত ইউনুস রংপুর মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু      |