ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০শে অক্টোবর ২০২০ ইং | ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

রংপু‌রের তারাগ‌ঞ্জে দূ‌র্যোগ সহনীয় ঘর নির্মা‌নে ব‌্যাপক অ‌নিয়ম

এম.এ.শাহীন, রংপুর: দূযোর্গ সহনীয় ঘর পেয়ে খুঁশিতে আত্মহারা হলেও কাজের মান নিয়ে সুবিধাভোগীদের মধ্যে রয়েছে চাপা ক্ষোভ। রয়েছে ঘরগুলোর স্থায়িত্ব নিয়ে শঙ্কা। এরপরেও ‘ঘরতো পেয়েছি’ এই শান্তনা বুকে নিয়েই মনের ক্ষোভকে বুকে চাপা দিচ্ছে রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার দূযোর্গ সহনীয় ঘর পাওয়া গৃহহীনরা।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তাবায়ন অফিস সূত্রে জান যায়, তারাগঞ্জ উপজেলায় ২০১৯-২০ অর্থ বছরে টিআর কর্মসূচির আওতায় বিশেষ বরাদ্দ হতে উপজেলার গৃহহীনদের জন্য দূযোর্গ সহনীয় সাতচল্লিশটি বাসগৃহ নির্মাণের লক্ষ্যে ১,৪০,৯৩,৪২০/- (এক কোটি চল্লিশ লক্ষ তিরানব্বই হাজার চারশত কুড়ি) টাকা বরাদ্দ দেয় দূযোর্গ মন্ত্রণালয়। যা থেকে প্রতি ঘরের জন্য বরাদ্দ ধরা হয়েছে ২,৯৯,৮৬০ (দুই লক্ষ নিরানব্বই হাজার আটশত ষাট) টাকা।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব ছিল উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নের ৫ সদস্য বিশিষ্ট পাচটি ইউনিয়ন কমিটির উপর। কিন্তু ইউনিয়ন কমিটিগুলোর অধিকাংশ সদস্যরাই জানেনা তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে। অনেকে আবার দায়িত্ব সম্পর্কে জানলেও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ওই কমিটিতে থাকা না থাকা একই ব্যাপার হয়েছে। কমিটিতে থাকার চেয়ে বরং না থাকাটাই বেশি ভালো ছিল। কমিটিতে নাম থাকায় বরং আমরা দূর্নামের ভাগিদার হয়েছি।

পাচ কমিটির বেশ কয়েকজন সদস্য বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য তাদেরকে কমিটিতে রাখা হলেও সমস্ত কাজ সরাসরি ইউএনও ও পিআইও নিজেই তদারকি করেছেন। কমিটির কোন সদস্যের এখানে কোন ভূমিকাই রাখতে দেয়া হয়নি।

উপজেলার সেরমস্ত বানিয়াপাড়ায় বসবাসরত মিস্ত্রী ওমর ফারুক ও লেবার সুমনের সাথে কথা হলে তারা জানান, ইটের ভালো মন্দ আছে। এই কাজে ভালো খারাপ সব ধরনের ইটের সংমিশ্রন করাহয়েছে। তবে এক নব্বর ইট কমই আছে। বেশি আছে দুই নম্বর ও তিন নম্বর ইট। বাড়িগুলো তৈরির কাজে ব্যবহৃত সমস্ত মালামাল ইউএনও স্যার ও পিআইও স্যার সরবরাহ করেছেন।

ইকরচালী ইউনিয়নে ঘর প্রাপ্ত সোনা মিয়ার স্ত্রী লিপি বেগম এ প্রতিবেদককে তার ঘরের বারান্দা ও একটি দেয়াল দেখিয়ে বলেন, এই কয়েক দিনেই সিমেন্ট খসি খসি পড়েছে, এখনও তো সারা জীবন আছে। কয়দিন যে থাকবার পামো এই ঘরোত আল্লায় জানে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আ. মমিন এর সাথে কথা হলে তিনি বরেন, কয়েক জায়গায় লেবারদের কারণে কিছু খারাপ মানের ইট গিয়েছিল। পরে আমরা সেগুলো তুলে নিয়ে ভালো ইট সরবরাহ করেছি। কাজ খারাপ হওয়ার প্রশ্নই আসে না।

প্রকল্প বাস্তবায়নে ইউনিয়ন কমিটির কোন ভূমিকা ছিল না অভিযোগটি অস্বীকার করে তিনি বলেন, কেউ যদি ফায়দা লুটতে না পারায় মিথ্যা অভিযোগ করে তা হলে তো আমার বলার কিছু নেই।

ইউএনও আমিনুল ইসলাম বলেন, প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নে ইউনিয়ন কমিটির পাশাপাশি আমাদের পিআইওকে সাথে নিয়ে আমি নিজেও কাজ তদারকি করেছি। এরপরেও যদি বলেন কাজ ভালো হয়নি তাহলে কিভাবে কাজ করলে ভালো হবে তা আমার জানা নেই।

You must be Logged in to post comment.

রাণীশংকলৈে শালবাগান রক্ষায় মানববন্ধন পালতি     |     মেহেরপুর জেলা বিএনপির প্রতিবাদ সমাবেশ     |     গাংনী সীমান্তে ২ লাখ টাকার ফেন্সিডিল ও ট্যাবলেট উদ্ধার     |     মেহেরপুরের গাংনীতে ভ্রাম্যমান আদালতে ইভটিজারের ৩ হাজার টাকা জরিমানা     |     আশাশুনির একটি মৎস্য ঘের থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার     |     রূপসায় নারী নির্যাতন প্রতিরোধে উঠান বৈঠক     |     সিভিল সার্জনের কথা উপেক্ষা করেই চলছে ঝিকরগাছার আয়সা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার     |     ঝিকরগাছায় ৭৪৮টি গভীর নলকূপ বিতরণ করলেন এমপি ডা. নাসির উদ্দিন     |     সাতক্ষীরায় ব্যাংকের সিল ও বিআরটিএ’র নকল রশিদসহ দালাল চক্রের ৩ সদস্য আটক     |     আশাশুনির একটি মৎস্য ঘের থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার     |