ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ই আগস্ট ২০২১ ইং | ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রূপসা উপজেলার কৃষকদের নিরব কান্না দেখার কেউনেই বিসিআইসি ডিলার কর্তৃক সারের দাম বৃদ্ধির কারণে উৎপাদন বৃদ্ধির আসঙ্খা বদনামির জুব্বা গায়ে পরতে হচ্ছে কৃষি বান্ধব সরকারের

খান আঃ জব্বার শিবলীঃ রূপসা উপজেলা একটি কৃষি নির্ভরশীল এলাকা। এখানে প্রায় অর্ধলাখ পরিবার চাষাবাদের মাধ্যমে জিবীকা নির্বাহ করে থাকে। ধান, পানসহ নানা প্রকার সবজি চাষ করে রপ্তানির মাধ্যমে দেশকে অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বি করে আসছে সেই প্রাচিন কাল থেকে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য কতিপয় অসাধু সারের ডিলার চতুরতার সাথে সারের দাম বৃদ্ধিকরে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়ছে অন্যদিকে কৃষকরা উৎপাদিত ফসল বিক্রি করে ফসলের উৎপাদন খরচ ঘরে তুলতে পারছেনা। ফলে কৃষকরা চাষাবাদের প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে দিনে দিনে। কৃষকদের কাছ থেকে টিএপি, ডিএপি, ইউরিয়াসহ বিভিন্ন সারের দাম বেশি নেওয়া হলেও ডিলাররা কোনো পাকা রসিদ (ভাউচার) দিচ্ছেন না। এতে বেশি দামে সার বিক্রির বিষয়ে প্রমাণসহ কারও কাছে অভিযোগও দিতে পারছেন না কৃষকেরা। রূপসা উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের ৭৮টি গ্রামে ৬৪ টি মৌজায় প্রায় ৩০ হাজার একর কৃষি জমি রয়েছে। এ উপজেলার আয়তন ১২০.১৫ বর্গ কিঃমিঃ। ইউনিয়ন সার ডিলারদের সংখ্যা বিসিআইসি ৫ জন ও ৫ টি ইউনিয়নে ৪৫ জন সাব ডিলার রয়েছে। এছাড়া প্রায় অর্ধশত অবৈধ সার ব্যবসায়ী রয়েছে। ডিলারদের চরম হঠকারিতার কারণে ভেস্তে যেতে বসেছে কৃষকদের স্বপ্ন। ইউনিয়ন পর্যায়ের বাজার ঘুরে দেখা যায়, সারের দোকানে প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) ইউরিয়া সার বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা কেজি দরে বস্তা ১০০০ টাকা। যেখানে সরকার নির্ধারিত মূল্য ছিল ১৬ টাকা কেজি দরে বস্তা ৮০০ টাকা। ট্রিপল সুপার ফসফেট (টিএসপি) বিক্রি করছে ৩০ টাকা কেজি দরে বস্তা ১৫০০ টাকা। যেখানে সরকার নির্ধারিত মূল্য ছিল ২২ টাকা দরে বস্তা ১১০০ টাকা। ডাই অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ডিএপি) ২৫ টাকা কেজি দরে বস্তা ১২৫০ টাকা যেখানে সরকার নির্ধারিত মূল্য ছিল বস্তা ৮০০ টাকা। মিউরেট অব পটাশ (এমওপি) ১৯ টাকা কেজি দরে ৯৫০ টাকা যেখানে সরকার নির্ধারিত বিক্রয় মূল্য ছিল ৭৫০ টাকা। অন্যদিকে ডিলাররা বিসিআইসি লাইসেন্স ভাড়া দিয়ে জিবীকা নির্বাহ করলেও চাষীদের চিন্তা তারা করছেনা। উপজেলার বিসিআইসি লাইসেন্সধারী ডিলারদের তৎপরতা কোথাও নেই। হৃদয় এন্টার প্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী শেখ জালাল উদ্দিনের নামে কয়েকমাস পূর্বে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে সার নিয়ে অনিয়মের কারনে কৃষকরা স্মারক লিপি প্রদান করলেও জালাল উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট মুসলেকা দিয়ে রক্ষা পায়। তাছাড়া বর্তমানে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সরকারি মূল্য উপেক্ষা করে প্রতি বস্তা সারে ১০০ টাকা বেশি বিক্রি করছে এবং সাব-ডিলারদের নিকট ন্যায্য মূল্যে সার বিক্রি না করে অবৈধ সারের দোকানদারের কাছে সরকারি সার বিক্রি করে চাষিদের বেশি দামে সার ক্রয় করতে বাধ্য করছে। তাছাড়া অতিরিক্ত দামে বিক্রি করলেও কৃষকদের দেওয়া হচ্ছেনা পাকা রসিদ। যে কারনে চাষিরা অভিযোগ করতে পারছেনা। তাছাড়া প্রতি মাসে কৃষকের জন্য সারের সরকারি বরাদ্দ থাকলেও জালাল বছরে ১ থেকে ২ বার সার উত্তোলন করে। অন্যদিকে বাকি ৪ টি ইউনিয়নের ডিলাররা বিসিআইসি লাইসেন্স ভাড়া দিয়ে বিভিন্ন নামে বেনামে নামেমাত্র সার বিক্রয় করলেও তাতে কৃষকের চাহিদা মিটছেনা। অনুসন্ধানি সূত্রে জানা যায় পূর্বাঞ্চল ট্রেডিং কোং এর স্বত্ত্বাধিকারী এস এম মঈন উদ্দিনের ভাইয়ের ছেলে জাহিদুল ইসলাম লাভলু রূপসা উপজেলাসহ বিভিন্ন উপজেলার লাইসেন্স নিয়ন্ত্রনের মাধ্যমে সারের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে লাভলুর নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন ২০০৯ সালে সারের মূল্য সরকার নির্ধারন করেছিল। আমরা কৃষিসম্প্রসারন অধিদপ্তরের মাধ্যমে আমাদের যাতায়াত খরচ বৃদ্ধির ব্যপারে অবহিত করেছি। করোনা কালিন সময় না হলে আমাদের সমাস্যার সমাধান হয়েযেত। ডিলার, সাব-ডিলার এবং যাতায়াত বাবদ ১০০ টাকা সে তুলনায় ঘর ভাড়া, লেবারের বিল, যাতায়াত সব কিছুর মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু সার ডিলারদের একই নিয়মে চলছে। তাছাড়া সার প্রতি বস্তায় ২ থেকে ৩ কেজি কম হয়ে থাকে। সার্বিক মিলিয়ে কেজি প্রতি সামান্য টাকা বেশি না নিলে ডিলারদের সার ক্রয়ের খরচও ঘরে ফেরেনা। তবে অতি উৎসাহি কিছু ব্যবসায়ী সারের মূল্য লাগামহীনভাবে বৃদ্ধি করায় তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ শাস্তি দাবি করছি। উপজেলার সার ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ বলেন, সম্প্রতি টিএসপির সংকট দেখা দিয়েছে। সরকারিভাবে মাত্র ৫ বস্তা সার পেয়েছিলাম যা চাহিদার তুলনায় অনেক কম। এ কারনে সমমানের অন্য কোম্পানির মিশ্র সার ক্রয় করে কৃষকের চাহিদা মেটাতে গিয়ে দাম বেশি নিচ্ছি যেমন ক্রয় করেছি তেমনি বিক্রি করছি। রূপসার অন্তত ৫০ জন কৃষকের ভাষ্য, গত রবি মৌসুম থেকে অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, ঘুর্নিঝড়সহ বন্যার কবলে পড়ে অপুরনিয় ক্ষতি হয়েছে কৃষকের। তারা এনজিও, এবং ব্যাংক লোনের সুদের টাকা গুনতে গুনতে দিশেহারা। তার ওপরে করোনাকাল, সবকিছুর দাম বেশি। কিন্তু আয় নেই। এখন আবার সারের দাম আকাশচুম্বী। বেশি দামে সার, ওষুধ, বীজ কিনলেও কোনো পাকা রসিদ দিচ্ছেন না দোকানদার। কিন্তু দোকানের সামনে স্পষ্ট মূল্যতালিকা ঝুলিয়ে রেখেছেন, যা তাঁরা নিজেরাই মানছেনা। গত ২৩ জানুয়ারী থেকে আজ ৩০ জানুয়ারী ইউরিয়া সার ব্যাতিত ডিলারদের নিকট অন্য কোন সার নেই। অথচ কৃষি উৎপাদনে খরচ কমানোর জন্য সরকার ডিএপি সারের দাম কেজি প্রতি ১৬ টাকা নির্ধারণ করেছে। রূপসা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ ফরিদুজ্জামান বলেন, সার সংকটের প্রশ্নই উঠেনা তবে ঘূর্নিঝড়, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি এবং জ্বলস্বাসের কারণে ফসল আবাদ করে চলতি বছরজুড়ে লোকসান দিতে হয়েছে কৃষকদের। এবং একই জমিতে বছরে ২ থেকে ৩ বার চাষাবাদ ও মৎস্য ঘেরে সার প্রয়োগের কারনে কিছু সার কম হতে পারে তবে উপজেলায় সারের কোন ঘাটতি নেই। কোন বিসিআইসি সার ব্যবসায়ী সারের দাম বেশি নিলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের মাধ্যমে লাইসেন্স বাতিল করা হবে। সার, বীজ মনিটরিং কমিটির উপজেলার সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন আক্তার বলেন, বেশি দামে সার বিক্রি করার প্রশ্নই আসে না। যদি এ রকম হয়, তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ কামাল উদ্দিন বাদশা বলেন ডিলাররা সারের দাম বেশি নেওয়ায় কৃষকের লোকশানের পাল্লা আরো ভাড়ি হবে। সারের দাম সরকার বৃদ্ধি করেনাই। কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের বক্তব্য অনুযায়ী উপজেলায় সারের ঘাটতিও নেই। তবে কোন ডিলার সারের দাম বেশি নিলে কৃষি বান্ধব সরকারের বদনাম করার জন্য পরিকল্পিত ভাবে নিচ্ছে। এ কারনে কোন ডিলারকে ছাড় দেওয়া হবেনা।

You must be Logged in to post comment.

রূপসায় শেখ কামালের জন্ম বার্ষিকী পালিত     |     সালাম মূর্শেদী এমপি করোনা দুর্যোগে বিত্তশালীদের এগিয়ে আসতে হবে     |     ঠাকুরগাঁওয়ের আগুনে পুড়ে যাওয়া ৫টি পরিবারে খাদ্য সামগ্রী, কম্বল, ও আর্থিক সাহায্য প্রদান করেন ।     |     ঠাকুরগাঁওয়ে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সালিশের নামে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।     |     ঝিকরগাছা অজ্ঞাত চুরি মামলার ১দিনের মাথায় মালামাল সহ ৩আসামী গ্রেফতার     |     ঝিকরগাছায় বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুষ্প অর্পণ     |     গাংনীতে একদিনের ব্যবধানে করোনায় বাবা-ছেলের মর্মান্তিক মৃত্যু     |     গাংনীর কাজীপুর ইউপি’র একাধিকবারের চেয়ারম্যান রাহাতুল্ল্যার ইন্তেকাল     |     মুক্তিযুদ্ধের গবেষক শফিউদ্দিন তালুকদার আর নেই     |     ফুলবাড়ীতে শিশু ধর্ষন মামলায় একজন আটক     |