ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ই মে ২০২২ ইং | ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ আটোয়ারীর পুণ্যভূমি বার আউলিয়া মাজার শরীফে ওরশ মোবারক অনুষ্ঠিত হচ্ছে

আটোয়ারী (পঞ্চগড়) সংবাদদাতা: নানান জীব বৈচিত্র্য, অফুরন্ত ফুল, ফসল আর শত শত মসজিদে ভরা প্রকৃতির সৌন্দর্যের লীলাভূমি হিমালয় কন্যা পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার ঐতিহাসিক বার আউলিয়া মাজার শরীফে আজ একদিনের বার্ষিক ওরশ মোবারক অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রতি বছরের ন্যায় বৈশাখের শেষ বৃহস্পতিবার ( ১২ মে-২০২২) সকাল থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ওরশ কার্যক্রম শুরু হয়ে রাতে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে। ওরশ উপলক্ষে দিনব্যাপি চলছে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, মাজার জিয়ারত, ওয়াজ নসিহত, মিলাদ মাহফিল ও তবারক বিতরণ। জেলার প্রত্যন্ত এলাকা সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানতের চাল, মুরগী, কবুতর, গরু-ছাগল ও নগদ টাকা-পয়সা সহ ভক্তরা কাক ডাকা ভোর হতে সমবেত হতে শুরু করেছেন মাজার প্রাঙ্গণে।
উপজেলা সদর হতে ৯ কিঃমিঃ উত্তর-পূর্বে মির্জাপুর ইউনিয়নের বার আউলিয়া গ্রামের বিস্তীর্ণ ভূমিতে অবস্থিত বার আউলিয়া মাজার শরীফ। বার আউলিয়া ওলীদের আগমনের ইতিহাস বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেলেও ওলীদের ইতিহাস রহস্যাবৃত। এঁদের লিখিত কোন ইতিহাস আজও পাওয়া যায়নি। জানাগেছে, বার জন ওলী খাজা বাবার নির্দেশে চট্রগ্রাম সহ পূর্ববঙ্গের বিভিন্ন অঞ্চলে আস্তানা গড়ে তুলে ইসলাম প্রচার শুরু করেন। পরে স্থল পথে রওয়ানা হয়ে ইসলাম প্রচার করতে করতে উত্তরবঙ্গের শেষ প্রান্তে হিমালয় কন্যা খ্যাত পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের বার আউলিয়ায় এসে আস্তানা গড়ে তুলে ইসলাম প্রচার শুরু করেন। আটোয়ারীর মাটিকে পুণ্য ভূমিতে পরিণত করে সময়ের বিবর্তনে ওই বার জন ওলীকে এখানেই সমাহিত করা হলে গড়ে ওঠে বার আউলিয়া মাজার শরীফ। এই বারজন আউলিয়ার নাম তাম্রপদে খোদিত ছিল। শোনা যায়, জমিদার কানাইলাল দলুইগং মাজারের জমি দান করার সময় তা সকলের নামে তাম্রপদে দানপত্রটি খোদিত করেন। সেই তাম্রপদটি হারিয়ে গেলেও ওলীদের নাম হারিয়ে যায়নি। বার জন আউলিয়া হলেন-হেমায়েত আলী শাহ্ (র.), নিয়ামত উল্লাহ শাহ্ (র.), কেরামত আলী শাহ্ (র.), আজহার আলী শাহ্ (র.), হাকিম আলী শাহ্ (র.), মনসুর আলী শাহ্ (র.), মমিনুল শাহ্ (র.), শেখ গরীবুল্লাহ্ (র.) আমজাদ আলী মোল্লা, ফরিজউদ্দীন আখতার(র.), শাহ্ মোক্তার আলী(র.), শাহ্ অলিউল্লাহ (র.)। তারা সম্ভবত সপ্তদশ শতকের মধ্যভাগে এ অঞ্চলে আসেন। ১৯৯০-৯১ সালের দিকে মাজার সংস্কার করার সময় যে সব পুরাতন চেপ্টা আকৃতির ইট পাওয়া যায় প্রত্নতাত্ত্বিকদের মতে এই সব ইট কয়েক শত বছর পূর্বে ব্যবহৃত হয়েছে। বিশেষ করে দিল্লীর সম্রাট শেরশাহের আমলে এই রকম ইট ব্যবহৃত হতো বলে জনশ্রুতি রয়েছে। অন্যান্য অঞ্চলের মতো এই অঞ্চলটি হিন্দু রাজা বা জমিদারের অধীন ছিল। এই মৌজা রানীগঞ্জের জমিদারের অধীনে ছিল। জমিদার মারা যাওয়ার পর রানী রাশমনি এই জমিদারি ষ্টেটটিকে দেবোত্তর ষ্টেট হিসেবে ঘোষণা দেন এবং কানাইলাল দলুইগং জমিদার বার আউলিয়ার অলীদের নামে ৪৭.৭৯ একর জমি ওয়াকফ করে দেন। যা ১৯৪০ সালে রেকর্ডভূক্ত হয়। মাজারের সেবায়েত হিসেবে বাসারত আলী শাহকে দেখানো হয়।
মূল মাজারের চারদিকে বিশাল এলাকা জুড়ে ঘন জঙ্গলে পরিপূর্ণ ছিল। জঙ্গলে বাঘ, ভাল্লুক ও বুনো শুকরসহ হিংস্্র জীবজন্তু বাস করতো। মাজারের উপরে ছনের ঘর ছিল। তৎকালীন সময়ের স্থানীয় কিছু মানুষ ও খাদেমগণ বৈশাখ মাসের শেষ বৃহস্পতিবার খুব স্বল্প পরিসরে ওরস পালন করতেন। ওরসের আগের দিন মাটি দিয়ে মাজার শরীফ মোছা হতো। কথিত আছে, দু’টি বাঘ ও দু’টি সাপ সবসময় মাজার পাহাড়া দিতো। মাজারের পাশে একটি কাঠের দানবাক্স ছিল। সেখানে ভক্তজনরা মানতের টাকা-পয়সা ফেলত। চুরির উদ্দেশ্যে কেউ বাক্সের কাছে গেলে দু’টো সাপ বের হতো আর খারাপ উদ্দেশ্যে গেলে বাঘ দু’টো বের হতো। তবে বসবাসরত খাদেম আলী শাহের স্ত্রী সপ্তাহে একদিন মাটি দিয়ে মাজার শরীফ মুছতো। এতে বাঘ বা সাপ বের হতো না। বর্তমানে সেই গভীর জঙ্গল নেই। আছে শুধু মাজার উন্নয়ন আর সম্প্রসারণের ইতিহাস। ১৯৯০ সালের দিকে পঞ্চগড় জেলার তৎকালীন জেলা প্রশাসক আবুল বাশার আহাম্মদ একদিন জীপ গাড়ীতে বার আউলিয়া মাজার রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ তার জীপ বন্ধ হয়ে যায়। অনেক চেষ্টার পরও জীপের ইঞ্জিন চালু না হওয়ায় স্থানীয় লোকজন মাজার শরীফ দেখিয়ে দেন। তিনি তাৎক্ষণিক ওযু করে মাজার জিয়ারত করেন এবং বেয়াদবি হলে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। প্রার্থনা শেষে, গাড়ীতে বসে চাবি দিলে বিনা ধাক্কায় অলৌকিকভাবে গাড়ীর ইঞ্জিন চালু হয়। ওইদিন রাতেই তিনি ওলীদের দ্বারা স্বপ্নে বার আউলিয়া মাজার উন্নয়নের নির্দেশ পান এবং পরের দিন সকালে আবার মাজার জিয়ারত করতে আসেন। সে সঙ্গে তার অসুস্থ দুই পুত্রের জন্য মানত করে মাজার উন্নয়নে এগিয়ে আসেন। তাঁর আহবানে এলাকায় ব্যাপক সাড়া জাগে এবং প্রথমে তিনি জোড়া কবর নামে খ্যাত হেমায়েত আলী শাহ্ (র.) ও নিয়ামত উল্লাহ শাহ্ (র.) এই দু’জন ওলীর কবরের উপর একটি পাঁকা দালান নির্মাণ করেন। কিছুদিন পর উপজেলার নলপুখুরী গ্রামের জনৈক মোঃ খলিলুর রহমান অবশিষ্ট দশ জন ওলীর কবরের প্রতিটির চার পার্শ্বে দেয়াল নির্মাণ করেন। এরপর তৎকালীন স্পীকার, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী মরহুম মির্জা গোলাম হাফিজের প্রচেষ্টায় প্রায় ৪৭.৭৯ একর জমিতে মাজার কমপ্লেক্স, মাজার, গোরস্থান, পুকুর, মসজিদ, মাদ্রাসা ও ডাকবাংলা নির্মিত হয়। তারপর থেকে ক্রমান্বয়ে ওরস বিস্তৃতি লাভ করে। ১৯৯৪ সাল থেকে অদ্যবধি সরকারিভাবে পদাধিকার বলে পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক সভাপতি, জেলা দায়রা জজ ও পুলিশ সুপার যথাক্রমে সহ-সভাপতি, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সদস্য সচিব, আটোয়ারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার, স্থানীয় (মির্জাপুর) ইউপি চেয়ারম্যান, খাদেম গোষ্ঠীর একজন ও স্থানীয় গন্যমান্য একজন ব্যক্তি নিয়ে মাজার পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনা কমিটির দায়িত্ব পালন করেন। তারই ধারাবাহিকতায় বাৎসরিক ওরশ, মাজার ব্যবস্থাপনা, মাজার উন্নয়নসহ নানাবিধ কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। এঅবস্থায় পঞ্চগড় জেলা পরিষদের উদ্যোগে গত ২০২০-২১ অর্থ বছরে প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে মুল মাজার উন্নয়ন করা হয়। কিন্তু মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রকোপের কারণে বিগত দুই বছর স্বল্প পরিসরে ওরস মোবারক অনুষ্ঠিত হলেও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় এবার পবিত্র ওরস মোবারক উদযাপনের ইতিমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে মাজার উন্নয়ন কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মুসফিকুল আলম হালিম আমাদের প্রতিনিধিকে জানান। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ তৌহিদুল ইসলাম জানান, গত ২ বছর ওরস মোবারক বন্ধ ছিল। ওরস মোবারক শু হওয়ার ৩/৪দিন আগে থেকেই ভক্তজনদের সমাগম শুরু হয়ে গেছে। ধারনারা করা হচ্ছে ৩ থেকে ৪ লক্ষাধিক ভক্তের সমাগম ঘটতে পারে। এজন্য ইতিমধ্যে সকল প্রস্ততি সম্পন্ন করা হয়েছে।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন     |     সাতক্ষীরায় বিএসএফের ছিনতাই হওয়া সেই অস্ত্র উদ্ধার     |     বীরগঞ্জে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত বীর মুক্তিযোদ্ধা তরনী কান্ত রায়     |     বীরগঞ্জে জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত     |     ঠাকুরগাঁওয়ে ৩টি এলএমজি, ২৪টি বন্দুক সহ অসখ্য গুলি উদ্ধার     |     ঝিকরগাছায় দপ্তরীর ছেলে বাড়ীতে ফিরলেন হেলিকপ্টারে!     |     ঝিকরগাছার পল্লী থেকে গৃহবধূর সখী লাশ উদ্ধার     |     মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল সম্পন্ন পূণরায় সভাপতি ফরহাদ,সম্পাদক খালেক     |     ঝিনাইদহে পুর্ব শত্রুতার জেরে পুুকুরে বিষ দিয়ে মাছ নিধন, ২ লাখ টাকার ক্ষতি     |     সাতক্ষীরায় পৃথক স্থান থেকে দুই জনের মরদেহ উদ্ধার     |