ঢাকা, শুক্রবার, ৩রা ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ইং | ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আশ্রয়ণের ঘরে মানবেতর জীবনযাপন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের

রবিউল এহ্সান রিপন ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: মনোয়ারা বেগম, বয়স ৬৫ পেরিয়েছে। দুই মেয়ে ও এক ছেলের জননী তিনি। মুক্তিযোদ্ধা স্বামীকে হারিয়েছেন ২৫ বছর আগে। তারপর থেকে একাই সংসার সামলাচ্ছেন তিনি। এখন শরীরে আগের মত শক্তি নেই। নানা অসুস্থতা নিয়ে চলাফেরা করতে হয় তাকে। তবে বিধিবাম এখনো শান্তির প্রবাহ আসেনি জীবনে। নয় সদস্য বিশিষ্ট পরিবার নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে।

ঠাকুরগাঁও পৌরসভার মুসলিমনগর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা (বেসামরিক গেজেট নং-৪৭০, লাল মুক্তি – ৩১০০১০৬৪৬) মৃত শাহজাহান আলীর সহধর্মিণী মনোয়ারা বেগম। বর্তমানে তারা সদর উপজেলার সালান্দর ইউনিয়নের বরুণাগাঁও আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরে বসবাস করছেন।

বিয়ের পর থেকেই স্বামী নিয়ে ভাড়া বাড়িতে থাকতে হয়েছে মনোয়ারা বেগমকে। তিন সন্তান বড় হওয়ার আগে পৃথিবী ছেড়ে গিয়েছেন তার স্বামী। পরিবারের পুরো দায়দায়িত্ব মাথায় জেঁকে বসে তার। কোনমত করে বড় মেয়েকে বিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। তবে চার বছর যেতে না যেতেই বড় মেয়ের স্বামী মারা যায়। মেয়ে আর নাতী চলে আসে আবার তার কাছে। ঋণের টাকায় ছেলেকে নিয়ে দিয়েছেন অটো আর ছোট মেয়ের বিয়ে হলেও মেনে নেয়নি শশুর বাড়ির পরিবার। তিন সন্তান আর পাঁচ নাতনিসহ তাদের পরিবারের সংখ্যা নয় জনে দাড়িয়েছে। সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘরে কোনমত বসবাস করছেন তারা।

মুক্তিযোদ্ধার বড় মেয়ে শামসুন্নাহার বলেন, আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। আমার বাবা মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। আমাদের ঘর বাড়ি ছিলনা। অনেক কষ্ট করে আমরা বড় হয়েছি। একটা সরকারি ঘর দেওয়া হয়েছে। সেখানে আমাদের জায়গা হয়না। আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর তিন সন্তান নিয়ে মায়ের সাথে থাকি। অন্যের বাড়িতে সারাদিন কাজ করি। আমি নিজেও অনেকবার ভূমি অফিসে গেছি কোন লাভ নাই। আমি সরকারের কাছে অনুরোধ করতে চাই সরকার যাতে করে আমার মাকে একটা বীর নিবাস দেয়।

ছোট মেয়ে শারমিন আক্তার বলেন, আমি ডিগ্রি প্রথম বর্ষে পড়াশোনা করেছি। অনেক জায়গায় চাকরীর চেষ্টা করেছি অথচ হয়নি। আমাদের অনেক কষ্ট করে জীবনযাপন করতে হয়। যদি একটা চাকরী পেতাম তাহলে এ কষ্টগুলো ঘুচানো যেত।

মুক্তিযোদ্ধার সহধর্মিণী মনোয়ারা বেগম বলেন, আমার স্বামীর বাসা ছিল ময়মনসিংহ। এদিকে যুদ্ধের সময় চলে আসে। বিয়ের পর তিনি আমাকে বলেন তার মুক্তিযুদ্ধের সার্টিফিকেট আছে। তারপর আমি সেটা সংগ্রহ করি। কয়েক বছর পর তিনিও মারা যায়। পরে অনেক কষ্ট করে অন্যের বাড়িতে কাজ করে সন্তানদের বড় করেছি। যা ভাতা পাই তা ঋণের টাকা পরিশোধ করতেই শেষ হয়ে যায়। সব মুক্তিযোদ্ধা গুলো বীর নিবাস পেল আমরা পেলামনা। একটা ঘরে ৯ জন সদস্য নিয়ে থাকতে অনেক কষ্ট হয়। একটা সরকারি ঘর পাইছি তাও আবার গ্রামে। এখানে এতজন আমরা থাকতে পারিনা। যদি সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের ভালো একটি ঘর দেওয়া হয়। যেখানে আমার পরিবার নিয়ে শান্তিতে থাকতে পারব। তাহলে মরেও শান্তি পাব আমি।

ঠাকুরগাঁও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল মান্নান বলেন, বীর নিবাস সকল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য। যাদের জমি নেই তারা যদি খাস জমির জন্য ভূমি অফিসে যোগাযোগ করতে পারেন তাহলে এটি সমাধান হবে বলে আশা করছি।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহের মোঃ শামসুজ্জামান বলেন, বীর নিবাসের প্রথম শর্ত হলো চার শতক জমি থাকতে হবে। নিজস্ব জমি না থাকলে এখন পর্যন্ত ঘর দেওয়ার কোন নিয়ম নেই। যদি উনার মেয়ে বিধবা হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে আবেদন করলে আমরা সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরের জন্য বিবেচনা করব। সবচেয়ে ভালো হয় যদি কোনমত করে তারা জমি কিনে বীর নিবাসটি নিতে পারেন। তারপরেও আমাদের উপজেলা প্রশাসন তাদের পাশে থাকবেন।

You must be Logged in to post comment.

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা চা চাষী কল্যাণ সমিতি গঠন হাজি রিপন সভাপতি তাজু সাধারণ সম্পাদক     |     কোটচাঁদপুর আবাসিক প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে পৌর মেয়রের সংবাদ সম্মেলন!     |     মেহেরপুরের গাংনী ভলিবল দল আ্্ঞ্চলিক পর্যায়ে সেরা। যে দল থেকে সুযোগ পেয়েছে জাতীয় দলের একাধিক খেলোয়াড়     |     দেশের উন্নয়নের জন্য, সমাজ ব্যাবস্থা পরিবর্তনের জন্য, একজন দক্ষ ও অভিজ্ঞ নেতা হলেন শেখ হাসিনা: শাজাহান খান এমপি     |     বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে পর্নোগ্রাফি মামলায় ব্যবসায়ী গ্রেফতার     |     মেহেরপুরে ৯ম বার্ষিক শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা -২০২৩ অনুষ্ঠিত     |     লালমনিরহাটে শর্টপিচ ক্রিকেট টুনামেন্ট-২০২৩ অনুষ্ঠিত     |     টাঙ্গাইলে এক বিদ্যালয়ে দৃষ্টি নন্দন ক্রিকেট খেলার মাঠ     |     মুজিবনগর বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে সংসদে বিল পাশ     |     খালি গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আওয়ামী লীগ নেতা     |