ঢাকা, বুধবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২৪ ইং | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আহমদিয়া মুসলিম জামাতের ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শনে কেন্দ্রীয় বিএনপির প্রতিনিধি দল

পঞ্চগড় প্রতিনিধি :কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব:) হাফিজ উদ্দীন আহমেদ বীর বিক্রম বলেছেন, ১৭৯টি বাড়িতে হামলা, ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে, শতাধিক আহত হয়েছে কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা জনমনে তা স্পষ্ট ধারণা আছে। কয়েকদিন আগে রেলপথমন্ত্রী যখন এখানে আসেন তখন ক্ষতিগ্রস্থরা ধ্বংসাত্মক কাজে যারা লিপ্ত ছিল তারা মন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে মন্ত্রীর আশপাশে ছিলেন। তারা তাদের নামও বলেছে। আমরা আশা করেছিলাম প্রশাসন তাদের দ্রুত গ্রেফতার করবে। কিন্তু তা করা হয়নি।
বুধবার বিকেলে জেলার আহমদনগর ও শালশিরি এলাকায় আহমদিয়া মুসলিম জামাতের ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন শেষে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিংকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
তিনি বলেন, সরকারি অনুমতি নিয়ে ক্ষতিগ্রস্থরা তাদের বাৎসরিক জলসার আয়োজন করেছিল। যখন আক্রমণ করা হয় বাড়িঘর পোড়ানো হয় বার বার প্রশাসনকে ফোন করেও প্রশাসন এগিয়ে আসেনি। বরং পুলিশ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম দুশ্য অবলোকন করছে। তিন ঘন্টা পর ডিসি এসপি এসে দুস্কৃতিকারীদের খানিকটা প্রতিরোধ করেছে। ইতোমধ্যে ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতিসাধন হয়েছে। এইসব আলামত দেখে আমাদের মনে হয়েছে এর মূল কারণ দেশে গণতন্ত্র নাই, আইনের শাসন নাই, গণমানুষের কোন অধিকার নাই। মানবতা প্রতদিনই লুণ্ঠিত হচ্ছে। সারাবিশ^ব্যাপী বাংলাদেশ একটি মানবতা বিরোধী মানবাধিকার বিরোধী একটি রাষ্ট্রযন্ত্র রুপে স্বীকৃতি পেয়েছে। আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র ফ্রান্স, জামার্িিন ইউরোপিয় ইউনিয়ন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংগঠন সকলেই একবাক্যে বলেছেন বাংলাদেশে সাধারণ মানুষের কোন অধিকার নেই। গুম, খুন, হত্যা এটি নিত্যদিনের ব্যপার। সরকার নির্বাচিত নয়। নিশিরাতে ব্যালটবাক্স ভরে দিয়ে ভোটারদেরকে ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করতে না দিয়ে তারা নিজেদেরকে নির্বাচিত বলে দাবি করছেন। এহেন পরিস্থিতিতে এইধরণের ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম চলবে এটাই স্বাভভাবিক। কারণ প্রশাসনে কোন জবাবদিহিতা নেই। যারা সন্ত্রাসী যারা এধরণের কর্মকান্ড করে তারা সরকারি দলের ছত্রছায়ায় এই ধরণের তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে। এদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
তিনি বলেন, অতিতে বিএনপি জনগণের ভোট নিয়ে তিন তিন বার রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিল তখন এরকম কোন তান্ডব কেউ চালাতে পারেনি। তার কারণ তখন দেশে আইনের শাসন ছিল। আমাদের দল যখন ক্ষমতায় ছিল আমরা সাধারণ মানুষের দুঃখ দুর্দশা বুঝেছি এবং যে কোন ধর্মের অনুসারি হোক আমরা তাদের নাগরিক অধিকারকে সম্মান করি এবং নিরাপত্তা দেয়ার চেষ্টা করেছি।
তিনি বলেন, এত অপরাধি সবাই সবাইকে চেনে কিন্তু ধরা হচ্ছে শুধু বিএনপির নেতাকর্মীদের। বিএনপি কর্মীরা ঘরবাড়ি ছেড়ে পলাতক। একেকটা মামলায় আসামী দেয় ১৫/২০ জনের নাম আর অজ্ঞাতনামা ২/৩ হাজার আসামী এজাহারে উল্লেখ করে। যার ফলে বিএনপি যারা করে নিরীহ শান্তিপ্রিয় সাধারণ মানুষ তারা আজকে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। আমরা মনে করি যে ঘটনাটি ঘটেছে এটি উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং সুপরিকল্পিত। নির্বাচনের আগে দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য বিশেষ করে দেশের সবচাইতে জনপ্রিয় দল বিএনপিকে আতঙ্কের মধ্যে রাখার জন্য এ ধরণের ঘটনার অবতারণা করা হয়েছে। ঢাকা, সীতাকুন্ড ব্রাম্ম্ণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বোমাবাজি হামলার ঘটনা ঘটেছে তা প্রমাণিত হয়েছে প্রত্যেকটি জায়গায় ক্ষমতাসীন সআওয়ামীলীগ দলের সদস্যরা এই কান্ড ঘটিয়েছে।
তিনি আরও বলেন, আজকের বাংলাদেশ একটি অসভ্য জনপদে পরিণত হয়েছে যেখানে কারো কোন জবাবদিহিতা নেই। সরকার নির্বাচিত নয়, প্রশাসনে সম্পুর্ণরুপে দলীয়করণ করা হয়েছে। যারজন্য সাধারণ মানুষ আজকে অত্যন্ত অসহায় অবস্বথায় দিনযাপন করছে। আমরা এধরণের বাংলাদেশ দেখতে চাই না। আমরা এমন একটি বাংলাদেশ দেখতে চাই যেখানে প্রত্যেকটি মানুষের অধিকার থাকবে। আজকে অর্থনঅিিতকভাবেও দেশ পঙ্গু লুটেরা সরকার ব্যাংকগুলোও লুট করে দিয়েছে। সাধারণ মানুষের নিরাপত্তাও আজকে এখানে বিঘ্নিত হচ্ছে। বাংলাদেশের জনগণ প্রকৃত অর্থেই অত্যন্ত অসহায়।
তিনি আরও বলেন, পঞ্চগড় জেলায় যেখানে যেখানে এ ধরণের সহিংসতা হয়েছে আমরা তার নিন্দা জানাই। সমাজে সুন্দর পরিবেশ কামনা করি। যে যার ধর্ম বিনা বাধ্য়া স্বচ্ছন্দে প্রতিপালন করতে পারবে এই ধরণের একটি পরিবেশ আমরা দেখতে চাই বাংলাদেশে। দুঃখের বিষয় সবকিছুরই রাজনীতিকরণ হয়ে গিয়েছে। যার ফলে অর্থনীতি যেমন পর্যুদস্ত সাধারণ মানুষেরও জীবনের কোন নিরাপত্তা নেই। যেভাবে বাড়ি ঘর পোড়ানো হয়েছে এরা তো বাংলাদেশেরই নাগরিক সুতরাং এ ধরণের ঘটনা আমরা আশ্ াকরি না। এ নিয়ে পুলিশ ও প্রশাসনের কোনো পূর্ব প্রস্তুতি ছিল না। তারা আহমদিয়া সম্প্রদায়কে নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় আরও কঠোর ব্যবস্থা নিলে হয়তো এমন ঘটনা ঘটত না। তবে কেন এই ঘটনা ঘটল কারা এটার জন্য দায়ি প্রশাসনের ভুমিকা কি দায়ি এটি জানার জন্যই আমরা এখানে এসেছি।আমরা প্রশাসনকে সাহায্য করতে চাই প্রশাসনের সাহায্য নিয়ে সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে ভবিষ্যতে যেন এধরণের ঘটনা না ঘটে এমন উদ্যোগ নিতে চাই কিন্তু সেই সুযোগ প্রশাসন আমাদের দিল না সেজন্য আমরা অত্যন্ত দুঃখিত। আলোচনার জন্য স্থানীয় প্রশাসন সময় দিয়েও উপরের নির্দেশে তারা আমাদের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে স্বাক্ষাৎ করতে অক্ষমতা প্রকাশ করেছেন।
তিনি আরও বলেন, দেরিতে হলেও এই সরকার একটি বিচার বিভাগীয় নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি করে ঘটনার কারণ উদঘাটিত করবেন এবং দোষী ব্যক্তিদেরকে শাস্তির আওতায় আনবেন এটা আমরা আশা করি।
সরকার্রে মন্ত্রী এমপিরা বিএনপি জামাত এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি করেছেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন দেশে সাইক্লোন হলেও বিএনপির ওপর দায় চাপায় সরকার।
প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আব্দেীন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা সাবেক সচিব ইসমাইল জবিউল্লাহ, দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, জেলা বিএনপির ফরহাদ হোসেন আজাদ, সাবেক মেয়র তৌহিদুল ইসলাম, আখতারুজ্জামান শাহজাহান, অ্যাডভোকেট মির্জা নাজমুল ইসলাম কাজল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে প্রতিনিধি দলটি আহমদনগর ও শালশিরি এলাকায় ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় যান। সেখানে তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। কারা কিভাবে এ ঘটনা ঘটিয়েছে সহিংসতার বর্ণনা তাদের মুখ থেকে শোনেন।
পরে নেতাকর্মীরা মুসল্লি ও পুলিশের সংঘর্ষে নিহত আরিফুজ্জামান আরিফের বাসায় যান। সেখানে তারা শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।
মামলা ও গ্রেপ্তার
ঘটনাস্থলের আশেপাশে ও পঞ্চগড় শহরের মোড়ে মোড়ে পুলিশ-বিজিবির টহল অব্যাহত রয়েছে। গ্রেপ্তারের আতঙ্কে অনেকেই বাড়ি ছাড়া। উস্কানিদাতা হিসেবে তেঁতুলিয়া উপজেলা ছাত্রশিবিরের সভাপতি মো. নাছিরউদ্দিনসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় আরো তিনটি মামলা হয়েছে। এ নিয়ে মামলার সংখ্যা দাঁড়াল ১৩ টি। এ সব মামলায় নামে উল্লেখ করা ছাড়াও অজ্ঞাত নামা আসামীর সংখ্যা ১০ থেকে ১১ হাজার। গত ২৪ ঘন্টায় আরো ছয় জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ নিয়ে গ্রেপ্তারের সংখ্যা ১৩৬ জন।
পুলিশ সুপার এসএম সিরাজুল হুদা বলেন, ‘বুধবার সকাল পর্যন্ত পুলিশের পক্ষ থেকে বিভিন্ন আইন ও ধারায় মোট ১৩টি মামলা করা হয়েছে। বুধবার পর্যন্ত ১৩৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আরও মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আমরা তদন্তের মাধ্যমে, ভিডিও ফুটেজ দেখে, বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত যাচাই করে অপরাধে জড়িতদের গ্রেপ্তার করছি।

You must be Logged in to post comment.

    |     ভূঞাপুরে স্ত্রী কর্তৃক স্বামীর পুরুষাঙ্গ কর্তন স্ত্রী গ্রেফতার     |     মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সকে আন্তর্জাতিক মানের করা হবে -আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি     |     মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার থাকতে হবে           —- রাণীশংকৈলে এমপি সুজন     |     রাণীশংকৈলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত     |     ঝিকরগাছায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভা, চিত্র প্রদর্শনী ও দোয়া মাহফিল     |     ঝিকরগাছায় শব্দদূষণ বন্ধে অবস্থান কর্মসূচি ও ইউএনও’র নিকট স্মারকলিপি প্রদান     |     আটোয়ারীতে এমপি রেজিয়া ইসলাম এঁর মতবিনিময় সভা     |     গাংনীতে মুকুল সেবা সংস্থার উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত     |     উপজেলা নির্বাচনে মেহেরপুর সদরে ৫ জন ও মুজিবনগরে ৪ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন     |