ঢাকা, শুক্রবার, ৮ই ডিসেম্বর ২০২৩ ইং | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

উন্নয়নে বদলে গেছে নাগরপুর-দেলদুয়ারের জনপদ সামাজিক নিরাপত্তা বলয় সৃষ্টি  সড়ক যোগাযোগ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য খাতে অভুতপূর্ব উন্নয়ন

আ. রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল:টাঙ্গাইলের নাগরপুর ও দেলদুয়ার উপজেলায় পাঁচ বছরে প্রায় সাত হাজার ১২০ কোটি টাকার অবকাঠামো উন্নয়নের ফলে গ্রামীণ জনপদের জীবন-মান পাল্টে গেছে। নাগরপুর ও দেলদুয়ার উপজেলা প্রশাসন এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। এছাড়া অনগ্রসর শিক্ষা উপবৃত্তি, প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি, শতভাগ বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা ভাতা, অনগ্রসর ভাতা, ভূমিহীন ও গৃহহীনদের ঘর প্রদান, বীরমুক্তিযোদ্ধাদের বীর নিবাস, মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা, স্বাস্থ্যসুরক্ষা কার্ড ইত্যাদি বাড়ানোর ফলে স্থানীয় পর্যায়ে সামাজিক নিরাপত্তারও মানোন্নয়ন ঘটেছে।
জানাগেছে, বর্তমান সরকারের সময়কালে স্থানীয় সংসদ সদস্য আহসানুল ইসলাম টিটুর প্রত্যক্ষ তত্ত¡াবধানে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের আওতায় সড়ক যোগাযোগ খাতে প্রায় ৬ হাজার ২৩৬ কোটি ৯৮ লাখ টাকার উন্নয়ন করা হয়েছে। এরমধ্যে মহাসড়ক প্রশস্তকরণ ও উন্নীতকরণে প্রায় ৩ হাজার ৭০ কোটি ৯৯ লাখ টাকা, টাঙ্গাইল-নাগরপুর-ঘিওর-আরিচা মহাসড়ক প্রশস্তকরণ ও উন্নীতকরণে প্রায় এক হাজার ৬৩৫ কোটি ১০ লাখ টাকা, টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার-লাউহাটী সড়ক প্রশস্তকরণ ও উন্নীতকরণে প্রায় এক হাজার ৪৩৫ কোটি ৮৯ লাখ টাকা এবং তিনটি জেলা মহাসড়ক মেরামত ও প্রশস্তকরণে প্রায় ৯৫ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের(এলজিইডি) আওতায় রাস্তা, সেতু ও কালভার্ট নির্মাণ ও মেরামত খাতে ৪৬৬ কোটি ৮ লাখ টাকার উন্নয়ন হয়েছে। এরমধ্যে দুই উপজেলায় ১৫টি সেতু নির্মাণে ১০ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয় করা হয়েছে। ৪০টি বক্স কালভার্ট নির্মাণে ১২ কোটি টাকা। টাঙ্গাইল প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন রাস্তা নির্মাণে ব্যয় করা হয়েছে প্রায় ৯৭ কোটি টাকা। এলজিইডির আইআরআইডি প্রকল্পের আওতায় প্রায় ১৮ কোটি ৫৮ লাখ টাকার উন্নয়ন করা হয়েছে। এমআরআরআইডি প্রকল্পের আওতায় প্রায় ৬৩ কোটি টাকা। প্রায় ২৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলার ২৬৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা পাকাকরণ করা হয়েছে।
নাগরপুর ও দেলদুয়ার উপজেলার শিক্ষা খাতের আওতায় ৩৬৩ কোটি ২৮ লাখ টাকার উন্নয়ন করা হয়েছে। এরমধ্যে ১৫৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণে প্রায় ১৫৫ কোটি টাকা, ৪৫টি হাইস্কুল ভবন নির্মাণে প্রায় ১২২ কোটি ৮৫ লাখ টাকা, ৬০টি হাইস্কুল ভবন মেরামত ও সংস্কারে প্রায় ১২ কোটি টাকা, প্রায় ১৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে ৬৯টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া দক্ষ জনশক্তি সুষ্টির লক্ষ্যে ২৪ কোটি ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন এবং নাগরপুর উপজেলায় প্রায় ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।
দুটি উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার(পিআইও) কার্যালয় কাবিখা ও কাবিটা প্রকল্পের আওতায় প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে কাঁচা রাস্তার উন্নয়ন ও মেরামত করা হয়েছে। প্রায় ১২ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে এইচবিবি ও ইটের সলিং দিয়ে রাস্তার উন্নয়ন করা হয়েছে। এছাড়া ৩৫০টি মসজিদ ও ১৫০টি মন্দির-শ্মশ্বানের সংস্কার করা হয়েছে। ৭৫০টি সোলার স্ট্রিট লাইট দিয়ে এলাকার অনেকাংশে আলো বিতরণ করা হচ্ছে।
নাগরপুর ও দেলদুয়ার উপজেলার দুটি ৩১ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। দুটি হাসপাতালেই সেণ্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যাণ্ট, এক্স-রে, ইসিজি, আলট্রাসনোগ্রাম মেশিন স্তাপন এবং ৬৬টি কমিউনিটি ক্লিনিকে স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়ন করা হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দুটি থেকে প্রতিদিন প্রায় ১২শ’ মানুষ স্বাস্থ্য সেবা পাচ্ছে।
নাগরপুর ও দেলদুয়ার উপজেলার সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করণে প্রতিবন্ধী শিক্ষাবৃত্তি ২২২ জন, অনগ্রসর শিক্ষা বৃত্তি ১৪৪ জন, ২৪ হাজার ৫৭৭ জনকে(শতভাগ) বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা ১১ হাজার ৫৩৫জন, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা ভাতা ৮ হাজার ৬৯৭ জন, অনগ্রসর ভাতা ২৭০ জনে উন্নীত করা হয়েছে। ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মধ্যে ২৪২টি ঘর প্রদান, ২১১ জন বীরমুক্তিযোদ্ধাকে ‘বীর নিবাস’ উপহার এবং এক হাজার ৫০৪জন বীরমুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানী ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। এছাড়া ১৬ কোটি ১৬ লাখ টাকা ব্যয়ে দুই হাজার ১১৮টি গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়েছে।
নাগরপুরের ১২টি ও দেলদুয়ার উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের অধিকাংশ ইউপি চেয়ারম্যান জানান, নাগরপুর-দেলদুয়ার আসনের এমপি আহসানুল ইসলাম টিটু একজন সৎ ও সজ্জন ব্যক্তি। ওনার সঙ্গে কাজ করার মধ্যে অন্য রকম একটা অনুভূতি আছে। উনি সব সময় সততাকে পুঁজি করে চলেন। কারও অন্যায় বা অনৈতিক কাজকে তিনি সমর্থন করেন না। স্থানীয় উন্নয়নে তিনি শতভাগ সততার সঙ্গে কাজ করলে খুশি হন।
নাগরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রেজা মো. গোলাম মাসুম প্রধান জানান, তিনি কিছু আগে নাগরপুরে যোগদান করেছেন। তিনি যতটা দেখেছেন বর্তমান সরকারের সময়ে নাগরপুরের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এখানকার ইউপি চেয়ারম্যানরা অত্যন্ত ভালো মানুষ, তারা সরকারি অনুদান ও উন্নয়ন কাজগুলো সততার সঙ্গে করে থাকেন।
টাঙ্গাইল-৬(নাগরপুর-দেলদুয়ার) আসনের সংসদ সদস্য আহসানুল ইসলাম টিটু জানান, বর্তমান সরকারের সময়ে তিনি নাগরপুর-দেলদুয়ারের ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। সামাজিক নিরাপত্তা বলয়কে প্রাধান্য দিয়ে তিনি এলাকার সড়ক যোগাযোগ, রাস্তা, সেতু, কালভার্ট, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বাসস্থান ইত্যাদি ক্ষেত্রের অভুতপূর্ব উন্নয়ন করেছেন। উন্নয়ন কাজের প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে তিনি বিশেষ নজরদারী করেছেন।
তিনি জানান, দুটি উপজেলার আওয়ামীলীগ ও এর সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠনের নেতাকর্মীরা তার নেতৃত্বে একতাবদ্ধ। কয়েকদিন আগে নাগরপুর কলেজ মাঠে উপজেলা আওয়ামীলীগের একটি জনসভায় টাঙ্গাইল জেলার ৮টি আসনের এমপি একমঞ্চে উঠেছিলেন। স্থানীয় রাজনীতিতে এটা একটা মাইলফলক। ওই জনসভায় আওয়ামীলীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কৃষিমন্ত্রী ডক্টর মো. আব্দুর রাজ্জাক এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

You must be Logged in to post comment.

রংপুরে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে আটক ১৯     |     ঝিকরগাছার পল্লীতে রাতের আধারে দুর্বৃত্ত দ্বারা দুই বিঘা পেঁপে বাগান কর্তন     |     ঠাকুরগাঁওয়ে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ডিভাইস সহ আটক ৭     |     রুহিয়ায়  ইয়াবা সহ গ্ৰেফতার ১     |     মেহেরপুর-২ গাংনী আসনের এমপি সাহিদুজ্জামান খোকনের সম্পদ বেড়েছে কয়েক গুন     |     মেহেরপুরে সরকারীভাবে ধান চাল সংগ্রহ অভিযানের শুভ উদ্বোধন     |     ফুলবাড়ীতে লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন     |     গাংনীতে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে উপজেলা অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত     |     আটোয়ারীতে পরিবার কল্যাণ সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে এ্যাডভোকেসি সভা     |     দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয় আমাদের একমাত্র লক্ষ্য নয়। আমাদের রাজনৈতিক যুদ্ধেও বিজয় অর্জন করতে হবে। –নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি।     |