ঢাকা, রবিবার, ৫ই ডিসেম্বর ২০২১ ইং | ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমানের মৃত্যু আমাদের সন্তানদের অনেক দিন কাঁদাবে : এমরান আল আমিন

বোদা পৌরসদরের সানন্দ কিন্ডার গার্টেন আছে, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান নেই! এটা ভাবতেই অবাক লাগছে। গতকাল ১৮ই সেপ্টম্বর/২০২০ তিনি তাঁর স্ত্রী ও একমাত্র কন্যা সন্তানকে রেখে না ফেরার দেশে চলে গেলেন। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বার সময় থেকেই উনাকে চিনতাম। উনি পুরানো ঢাকার অদূরে একটা স্কুলে শিক্ষকতা করতেন। আমাদের এলাকার অনেকেই উনার স্কুলের আশ-পাশে থাকতেন, যার অধিকাংশ ছাত্র ছিল। উনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রী অর্জন করে ঢাকাতে যান। কিছুদিন পরেই সম্ভবত ১৯৮৪/৮৫ সালের দিকে তিনি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে আজকের পাথরাজ সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। আমাদের বোরহান ভাই-কালাম ভাই এর বোন তহুরা বেগমকে বিবাহ করেন। সে কারণে ঘনিষ্ঠতা আরো বেড়ে যায়। পরবর্তীকালে আমি ও এলাকায় চলে এসে বোদা মহিলা কলেজে শিক্ষকতায় যোগদান করি। তাই উনার সাথে আমার সম্পর্ক আরো মধুর হয়। চলার পথে উনাকে কোনদিন কারও সাথে খারাপ ব্যবহার করতে দেখিনি। অত্যন্ত ন¤্র, ভদ্র, বিনয়ী এবং অমায়িক ব্যবহারের অধিকারী মানুষ ছিলেন। তিনি একজন দয়ালু, পরোপকারী, বিদ্যোৎসাহী ব্যক্তি ছিলেন। তিনি একাধারে কলেজের শিক্ষকতা, মুক্তিযোদ্ধাদের নেতা হিসেবে তাদের পরিচালনা করা এবং সানন্দ কিন্ডার গার্টেনে কোমলমতি সন্তানদের নিয়ে বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

অত্যন্ত অল্প বয়সে দেশ মাতৃকার টানে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। সকল মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য, সোনার বাংলা গড়বার জন্য তিনি জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত সম্মানীত মুক্তিযোদ্ধা ভাইদের নিয়ে দেশের কাজ করে গেছেন। সকল মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে তিনি ছিলেন নিবেদিত। পাথরাজ সরকারি কলেজের শিক্ষক হিসেবে দীর্ঘ সময় শিক্ষকতা করেছেন অত্যন্ত সুনামের সাথে। শিক্ষকতা জীবনে গরিব মেধাবী ছাত্রদের ব্যক্তিগতভাবে সহযোগিতা করাকে তিনি কর্তব্য মনে করেছিলেন। তাঁর সমস্ত গরিব আত্মীয় স্বজনদের দেখভাল করেছিলেন তিনি। অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের নিজ সন্তানের মতো স্নেহ ভালোবাসা সহ পড়ালেখায় সহযোগিতা করেছিলেন। তিনি শিক্ষক হিসেবে অত্যন্ত দায়িত্ববান ছিলেন। কোন দিন ক্লাশ ফাঁকি দেননি। উনাকে সকালবেলা ঘুম থেকে উঠেই সবার আগে সানন্দ কিন্ডার গার্টেনে যেতে দেখেছি। যত ঝড়-বৃষ্টি হোকনা কেন তিনি ছাতা নিয়ে সকাল ৭ টায় বাড়ি থেকে বের হয়ে সবার আগে কিন্ডার গার্টেন স্কুলে যেতেন। উনি যখন স্কুলে প্রবেশ করতেন তখন একজন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীও আসতেন না। শিক্ষার্থী আসা শুরু হলে তিনি সবাইকে নিজ সন্তানের মত আদর করে ক্লাশে পাঠাতেন।

গতকাল শুক্রবার মসজিদ যাওয়ার আগমহূর্তে ১২:১০ মিনিটে হঠাৎ ডাক্তার জুয়েলের ফোন পেলাম, সে সংবাদ দিল আমাদের প্রিয় রহমান ভাই আর নেই। ঠিক ১ মাস ১১ দিন আগে একই সময়ে উনার প্রাণ প্রিয় সম্বন্ধী কালাম ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদ পাই। উনার সাথে করোনা কালে মোটেও দেখা হতো না। উনি বাড়ী থেকে বেড় হতেন কম। কালাম ভাইয়ের মৃত্যুর পরে ১/২ দিন উনার সাথে দেখা হয়। আগে আমরা বাইপাস সড়কে বিকেল বেলা একসাথে হাটতাম। এখন আমি উপজেলার পুকুর পাড়ে হাটি। উনাকে উপজেলা পুকুর পাড়ে হাঁটার আমন্ত্রণ জানাতেই উনি উত্তর দেন “আমি বাসার ছাদে হাটি”। বাইরে আসতে চাই না। আর দেখা হয় নাই। একেবারে মৃত্যুর সংবাদ পাই, অসুখের খবরও পাই নাই।

করোনাকালে আমরা অনেকেই অনেক স্বজনকে হারিয়েছি। তবে ২/১ টা মৃত্যু আমাদের জন্য অনেক বেদনার, অনেক দুঃখের। তাইতো গতকাল ১৮ই সেপ্টম্বর/২০২০ দিনভর সোস্যাল মিডিয়াতে অনেক মানুষের আর্তনাদ দেখেছি রহমান ভাইয়ের মৃত্যুকে ঘিরে। যার অধিকাংশই তার ছাত্র, শুভাকাংঙ্খী, সহকর্মী, বীরমুক্তিযোদ্ধা, নিকট আত্মীয়, অভিভাবক। রহমান ভাইয়ের মৃত্যু আমাদের সন্তানদের অনেকদিন কাঁদাবে।

উনি গতকাল ১৮ই সেপ্টম্বর/২০২০ দুপুর ১২ টায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। উনার বর্তমান বাসস্থান বোদা ডাক বাংলার পার্শ্বের বাসায় উনাকে আনা হয় বিকেল ৫ ঘটিকায়। ৫:৩০ মিনিটে রাষ্ট্রিয় মর্যাদা প্রদান করা হয়। সন্ধ্যা ৭ ঘটিকায় প্রথম নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয় বোদা পৌর ঈদগাঁহ মাঠে। ১০:৩০ মিনিটে গ্রামের বাড়িতে ২য় নামাজে জানাযা শেষে তেপুকুরিয়া বাজারের ভক্তেরবাড়ীতে বাবা মায়ের কবরের পার্শ্বে চির নিদ্রায় শায়িত হন রহমান ভাই। উনার প্রথম নামাজের জানাযায় বোদা পৌর মেয়র, সানন্দ কিন্ডার গার্টেনের সভাপতি এ্যাডঃ ওয়াহিদুজ্জামান সুজাকে জানাযায় দাড়িয়ে কাঁদতে কাঁদতে বলতে শুনেছি “স্কুলের এই কোমলমতি শিশুদের কিভাবে সামলাবো আমরা, যাদেরকে তিনি কোলে নিয়ে আদর করে ক্লাশে দিয়ে আসতেন, উনার কোলে না বসলে অনেকেই ক্লাশে যেতে চাইতো না”

এত তাড়াতাড়ি উনি স্মৃতি হয়ে যাবে ভাবিনী। আজ দুপুরে পঞ্চগড় জেলার রাষ্ট্র বিজ্ঞান সমিতির এক সভা বোদা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সংগঠনের একজন উপদেষ্টা হিসাবে উনার ছবি বেষ্টিত ফেস্টুন সহ শোক জানানো হয়। দেখে মনটা খারাপ হয়ে গেল।

মৃত্যুর পর থেকে উনার সর্তীর্থদের কান্না, আর্তনাদ এবং উনার দীর্ঘ কর্মময় জীবন দেখে কবির ভাষায় বলতে হয়,

‘‘যেদিন তুমি এসেছিলে ভবে,

কেঁদেছিলে তুমি, হেসেছিল সবি।

এমন জীবন  তুমি করিলে গঠন,

মরণে হাসিছ তুমি, কাঁদিছে ভুবন।

রহমান ভাই, আপনার আত্মার শান্তি কামনা করি।’’

You must be Logged in to post comment.

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু     |     টাঙ্গাইলে বাস-কাভার্ডভ্যান সংঘর্ষে প্রাণ গেলো কাভার্ডভ্যান চালকের     |     বগুড়ার শেরপুরে মহাধুমধামে দুই বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধীর বিয়ে সম্পন্ন!     |     শৈলকুপার ১২টি ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন যারা     |     আটোয়ারী থানার নবাগত ওসি’র সঙ্গে সাংবাদিকদের মতবিনিময়     |     ঝিকরগাছায় মৎস্যজীবী লীগের ৪টি ইউনিয়নের আহবায়ক কমিটি গঠন     |     প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহারের ট্রেন পাল্টে দেয়ার প্রতিবাদে ঝিকরগাছায় মানববন্ধন     |     ঝিকরগাছা পেন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বিনামূল্যে জন্মনিবন্ধনের প্রচারণামূলক ব্যানার ফেস্টন স্থাপন     |     পঞ্চগড়ের হাড়িভাসা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতিকে দল থেকে বহিস্কারের দাবীতে ঝাড়ু মিছিল     |     আটোয়ারীতে ওসি’র বদলীজনিত বিদায় সংবর্ধনা এবং নবাগত ওসি’র বরণ অনুষ্ঠান     |