ঢাকা, বুধবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ইং | ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গাংনীর বিটিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ ৪ শিক্ষকের নিয়োগ বাতিল

মেহেরপুর জেলা প্রতিনিধি : মেহেরপুরের গাংনীতে অনুমোদন ছাড়াই শ্রেণি শাখা খুলে তিন শিক্ষক নিয়োগ এবং তাদের এমপিও করার অভিযোগে ফেঁসে গেলেন ভরাট-তেরাইল-দুর্লভপুর (বিটিডি) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক।
বিভাগীয় তদন্ত শেষে প্রধান শিক্ষক ও ওই তিন শিক্ষকের এমপিও স্থগিত করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। ফলে গত জানুয়ারী মাস থেকে তাদের সরকারি বেতন বন্ধ করা হয়েছে।
জানা গেছে, বিটিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২শতাধিক। উপস্থিত পাওয়া গেছে ১৯৫ জন । অথচ ভ’ূঁয়া শিক্ষার্থী দেখিয়ে ‘গ’ শাখা অনুমোদন ছাড়াই তিন শিক্ষক নিয়োগ দেন প্রধান শিক্ষক এনামুল হক। শিক্ষাবোর্ড বলছে বিদ্যালয়টিতে ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণির ‘গ’ শাখার অনুমোদন নেই । অথচ এই শাখাগুলোতে তিন জন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এবং তারা এমপিও ভূক্ত হয়েছেন।বিদ্যালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন সহকারী শিক্ষক জানান, প্রধান শিক্ষক এনামুল হক সকলের অগোচরে ব্যাক-ডেটে অর্থ্যাৎ ২০০৪ সালে অবৈধভাবে বিদালয়ে নিয়োগ দেখিয়ে সমাজ বিজ্ঞানে শাখা শিক্ষক হিসেবে শেখ আল মামুন, শাহানাজ পারভীন ও বাংলা শাখা শিক্ষক হিসেবে শেফালী খাতুনকে ২০২২ সালে এমপিওভুক্ত করিয়েছেন। সে ক্ষেত্রে তৎকালীন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সিরাজুল ইসলামের স্বাক্ষর জালিয়াতি করে অবৈধভাবে নিয়োগ দিয়েছেন। আরও জানা গেছে, শেফালী খাতুনকে ২০১০ সালে লাইব্রেরীয়ান হিসেবে নিয়োগ দেন।এতদিন তিনি লাইব্রেরীয়ান হিসেবে বিদ্যালয়ে কর্মরত ছিলেন। অথচ প্রধান শিক্ষক এনামুল হক তার স্ত্রীকে লাইব্রেরীয়ান হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কারনে শেফালী খাতুন ব্যাক-ডেটে অর্থ্যাৎ ২০০৪ সালে সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিয়ে এমপিওভুক্ত করিয়েছেন। বর্তমানে বিদ্যালয়ে ১৬ জন শিক্ষক শিক্ষিকা রয়েছেন। মোট স্টাফ রয়েছেন ২১ জন।
মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ব্যাক-ডেট এ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছিলেন বিদ্যালয় পরিচালনা পর্যদের সাবেক সদস্য আব্দুল মতিন।
অভিযোগ আমলে নিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা খুলনা অঞ্চলের উপ- পরিচালক একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন গত বছরের জানুয়ারী মাসে। ওই তদন্ত কমিটির প্রধান ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার।
এই তদন্ত কমিটির সদস্যরা সরেজমিনে এলাকা ঘুরে অভিযোগের বিষয়ে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেন। বেশ কয়েক মাস ধরে চলা তদন্তের প্রতিবেদন এক পর্যায়ে উপ পরিচালকের কাছে দাখিল করা হয়। তদন্তে অবৈধভাবে শাখা খোলা এবং নিয়োগ দিয়ে এমপিওভূক্ত করার বিষয়টি অনিয়ম হিসেবে বিবেচিত হয় উপ-পরিচালকের কাছে।
তদন্তের বিষয়ে কুষ্টিয়া জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রমজান আলী বলেন, শাখার কোন অনুমোদন নেই। অনুমোদন জালিয়াতি এবং অবৈধ নিয়োগের বিষয়ে সত্যতা মিলেছে। এক সপ্তাহের মধ্যেই উপ-পরিচালক বরাবর তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।
এছাড়াও দুদক ও মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কার্যালয় থেকে পৃথক তদন্ত করা হয়। তিনটি তদন্তেই অনিয়ম ধরা পড়ে। এর প্রেক্ষিতে মহাপরিচালক এমপিও স্থগিত করেছেন বলে জানা গেছে।
এদিকে,আজ সোমবার বিদ্যালয়টিতে সরজমিনে দেখা যায়,নিয়োগ বাতিলকৃত ৪ জন শিক্ষকের মধ্যে প্রধান শিক্ষকসহ ২ জন অনুপস্থিত এবং ২ জন বিদ্যালয়ে এসেও মিথ্যা অযুহাতে বিদ্যালয় থেকে চলে গেছেন।
এদিকে,বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এনামুল হক দোষ স্বীকার করে বলেন,ঘটনা সম্পন্ন সত্য। একইভাবে বিদ্যালয়ের সভাপতি রিকাত আলী জানান, আমি অবৈধভাবে শিক্ষক নিয়োগ দিতে নিষেধ করেছি। কিন্তু আমাকে না জানিয়ে ৩ জন শাখা শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রধান শিক্ষক। এনিয়ে এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষকের দুর্নীতির বিরুদ্ধে মানব বন্ধন করেছিলেন।
এব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হোসনে মোবারক জানান, আমি বিষয়টি শুনেছি। ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ করেছেন। প্রধান শিক্ষক ঠিকমত অফিসে যোগাযোগ রাখেনা।

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম

You must be Logged in to post comment.

রংপুরে বসতভিটা ও আবাদী জমি থেকে উচ্ছেদ পাঁয়তারা বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ     |     মেহেরপুরে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার     |     আটোয়ারীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত     |     গাংনীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত     |     বোদায় জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা     |     গাংনীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা     |     মেহেরপুরে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত     |     মাদারীপুরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মদ্য পানের ভিডিও ভাইরাল, দুই শিক্ষক বরখাস্ত     |     টাঙ্গাইলে লাঠিয়াল বাহিনীর ভয়ে নিরাপত্তা হীনতায় পাঁচটিকড়ির কয়েকটি পরিবার     |     ছয় বছর ধরে শিকলবন্দী মিলনের জীবন, নিরুপায় পরিবার     |