ঢাকা, বুধবার, ২৭শে অক্টোবর ২০২১ ইং | ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধার বালাসীঘাট হতে পারে অন্যতম পর্যটন এলাকা

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল. পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি জানিয়েছেন, বালাসীঘাট গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলায় যমুনা নদীর তীরে অবস্থিত একটি নৌবন্দর এবং দর্শনীয় স্থান। গাইবান্ধা শহর থেকে বালাসী ঘাটের দূরত্ব প্রায় ১০ কিলোমিটার। বর্ষায় নদী পানিতে ভরে থাকলেও শীতকালে এখানে বালুর চর ভেসে উঠে। নদীতে পানি থাকলে নৌকায় আর চর জাগলে ঘোড়াগাড়ীতে চলাচল করা যায় । সবসময় বালাসী ঘাটের চমৎকার প্রাকৃতিক পরিবেশের জন্য প্রায় প্রতিদিনই ভ্রমণপিয়াসু মানুষের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠছে। নদীর উত্তাল ঢেউ, নির্মল বাতাস আর নৈসর্গিক প্রকৃতি আগত দর্শনার্থীদের মনকে প্রফুল¬ করে তোলে। এছাড়া বালাসী ঘাটে ঘোড়ায় চড়া, নৌকা ভ্রমণ কিংবা রেলওয়ের ফেরি থেকে নদীর বুকে সূর্যাস্থের অপূর্ব দৃশ্যও উপভোগ করা যায়। আর সবচেয়ে অবাক করা তথ্য হচ্ছে, এক সময় এই বালাসী ঘাট দিয়ে বাংলাদেশের একমাত্র রেলওয়ে ফেরি চলাচল করতো। পুরো একটি ট্রেন নদী পার হত বিশ্বের অন্যতম এই রেল ফেরিতে! রাজধানী ঢাকার সাথে উত্তরাঞ্চলের রেল যোগাযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১৯৩৮ সালে গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলার তিস্তামুখ ঘাটে রেল ফেরি সার্ভিস চালু করা হয়। তৎকালীন ইংরেজরা গাইবান্ধা জেলাকে ফুলছড়ি ঘাটের নামে জানতো। ১৯৯০ সালের পর যমুনা নদীর নাব্যতা কম যাওয়ায় ফেরি সার্ভিসটি তিস্তামুখ ঘাট থেকে সরিয়ে ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়ায় বালাসী নামক জায়গায় স্থানান্তর করা হয়। আর তখন থেকেই ঘাটটি বালাসী ঘাট নামে পরিচিত হয়ে উঠে। রেলওয়ে ফেরির ১৩ টি লাইনে ৩টি করে ছোট বগি বা ওয়াগন ধরতো। বর্তমান সময়ে ফেরিঘাট বাস্তবায়নে ফেরিঘাটের সকল অবকাঠামো নির্মাণের পর নদীর নব্যতা হ্রাস পাওয়া আর ফেরিঘাট করা সম্ভব নয় কারণে অনত্য ফেরীঘাট করা হয়েছে। বালাসীঘাট এলাকার স্থানীয় জনসাধারণ সহ গাইবান্ধা জেলাবাসীর প্রানীর দাবী বালাসীঘাটে ট্যানেল অথবা ব্রিজ নির্মাণ করে অবহেলিত জনপদের উন্নয়ন করা ও গাইবান্ধা বাসীর দীর্ঘদিনের দাবী জেলার চর অঞ্চলের উন্নয়নে দ্রুত চর উন্নয়ন বোড গঠন করা হোক।

দর্শনীয় এই নৌ বন্দরটি প্রাকৃতিক সৌন্দয্য উপভোগ করতে ঢাকা থেকে গাইবান্ধা আসতে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থান হতে এসি/নন-এসি বেশকিছু বাস গাইবান্ধার পথে চলাচল করে। এদের মধ্যে শ্যামলী পরিবহন, আল হামরা পরিবহন, এস আর ট্রাভেলস প্রাঃ লিঃ এবং অরিন ট্রাভেলস উল্লেখ্যযোগ্য। এছাড়া ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশন থেকে রংপুর এক্সপ্রেস এবং লালমনিরহাট এক্সপ্রেস নামে দুইটি ট্রেন সকাল এবং রাতে যাত্রা করে। গাইবান্ধায় রাত যাপনের জন্যে আছে গাইবান্ধা সার্কিট হাউজ, এসকেএস ইন হোটেল ও গণ উন্নয়ন কেন্দ্র। এদের মধ্যে কলেজ রোডে অবস্থিত এসকেএস ইন সবচেয়ে ভালো। গাইবান্ধা সদর থেকে রিকশা, অটো রিকশা কিংবা সিএনজিতে চড়ে পুরাতন বাজার হয়ে বালাসী ঘাট আসতে পারবেন। আর বালাসী ঘাট থেকে রেলওয়ে ফেরি যেতে ট্রলারে চড়তে হবে। অথবা গাইবান্ধা জেলা সদর থেকে কেতকী বা উড়িয়ার ঘাট এসে সেখান থেকে পায়ে হেঁটে অল্প দূরত্বে অবস্থিত রেলওয়ে ফেরি দেখতে যেতে পারবেন।

You must be Logged in to post comment.

ঠাকুরগাঁওয়ে কৃষিজমি বিক্রি করে ১০ কিলোমিটারে ৩৫ হাজার তালবীজ বপণ করেছেন– খোরশেদ আলী,     |     ঠাকুরগাঁওয়ে রানীশংকৈলে কৃষক লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত ।     |     গাংনীর ষোলটাকা ইউপিতে আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলবার হোসেনকে গণসংবর্ধনা দিতে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা     |     পার্বতীপুরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে লড়বেন ২৭ প্রার্থী     |     মেহেরপুরের গাংনীতে সড়ক দূর্ঘটনায় বৃদ্ধ নিহত     |     সাতক্ষীরায় গৃহবধুকে নির্যাতনের পর হত্যার অভিযোগ, আটক-০১     |     পঞ্চগড়ে প্রতিক বরাদ্দের পূর্বেই প্রতিক নিয়ে প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচার প্রচারনা     |     ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে ১০ টাকা কেজি দরের চাল বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে ডিলার নজরুলের বিরুদ্ধে ।     |     মাদারীপুরে বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষার্থী নিঁখোজ     |     জেলা প্রশাসকের সতর্কীকরন বিজ্ঞপ্তি ফেসবুকে ভাইরাল     |