ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ইং | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

 ঘাটাইলে নৌকা -ইগলে দ্বিধা বিভক্ত আ,লীগ  সংঘাতের আশঙ্কা ভোটাররা

রবিউল আলম বাদল ঘাটাইল টাঙ্গাইল থেকে টাঙ্গাইল ৩ ঘাটাইল দলীয় নৌকা ও স্বতন্র ইগল প্রতীকে বিভক্ত হয়ে পরেছে আ,লীগের নেতাকর্মীরা। এ আসনে আ,লীগের প্রার্থী ডাক্তার  কামরুল হাসানের সঙ্গে প্রতি দ্বন্ধিতা করছেন দলেরই আরেক নেতা আমানুর রহমান খান রানা। তবে কেন্দ্রে কোন বিধিনিষেধ না থাকায় দলের নেতাকর্মীরা দই ভাগে বিভক্ত হয়ে পরেছে। ইতিমধ্যেই হামলা ভাঙচুরের মতো ঘটনা ঘটে গেছে। এ পরিস্থিতিতে সংঘাতের আশঙ্কা করছেন সাধারন ভোটাররা।

টাঙ্গাইল ৩ ঘাটাইল আসনে এবার আওয়ামী লীগের দলিয় মনোনয়ন নৌকা পেয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভাইসচ্যান্সেলর পেশাজীবি সমন্বয় পরিষদের মহাসচিব এবং বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য, ও উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যকরী সদস্য অধ্যাপক ডাক্তার কামরুল হাসান খান। তিনি প্রার্থী হিসেবে নতুন মুখ। প্রার্থী নিজেও তার সমর্থক কর্মী চিনেন না, কর্মীরাও নেতা চিনেন না।  উপজেলা আওয়ামীলীগের সাথে তার তেমন একটা যোগাযোগ ছিলোনা।বেশির ভাগ সময় বাহিরে কাটিয়েছেন। মাঝে মধ্যে গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে আসলেও এলাকায় সময় না দেয়ায়  প্রার্থী হিসেবে বর্তমান প্রজন্ম সাথে তার পরিচিতি খুবই কম। ডাঃ কামরুল হাসান একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। কিন্তু ঐ সময় এবার দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইগল প্রতীক নিয়ে সতন্র প্রার্থীআলহাজ  আমানুর রহমান খান রানার আকাশ ছোঁয়া জনসমর্থন থাকায় ডাঃ কামরুল হাসান কে মনোনয়ন দেয়া সম্ভব হয় নাই।
তবে আমানুর রহমান খান রানার আকাশ ছোঁয়া জনসমর্থন থাকলেও টাঙ্গাইলে মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা মামলার সন্দেহ ভাজন আষামী থাকায় তার পরিবর্তে তার পিতা ব্যাংক কর্মকর্তা আতাউর রহমান কে মনোনয়ন দিলে তিনি বিপুলসংখ্যক ভোটের ব্যবধানে বিজয় লাভ করেন।
এবার সাংসদ আতাউর রহমান ও তার ছেলে আমানুর রহমান খান রানার বিপুল সংখ্যক মানুষের জনসমর্থন থাকলেও তাকে মনোনয়ন না দিয়ে অচেনা নতুন মুখ ডাঃকামরুল হাসানকে মনোনয়ন দিলে দলের ত্যাগী, প্রবীন ও নির্যাতিত নেতাকর্মীরা রাগে ক্ষোভে নৌকা বাদ দিয়ে ইগল পাখির সওয়ার হয়েছেন।
এবার ডাক্তার কামরুল হাসানের নির্বাচনে সঙ্গে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম লেবু, সহ সভাপতি শহিদুল ইসলাম খান হেস্টিংস, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ শামছু্ল আলম মনি, লোকমান হোসেন,  সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম, সাবেক পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান খান শহিদ, উপজেলা ছাত্র লীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন সহ  উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের শুধু নেতারা, ও কর্মীদের একাংশ।
এই আসনে স্বতন্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বদ্বিতাদ করছেন সাবেক দুই-ই  দূ বারের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আমানুর রহমান খান রানা। তিনি নির্বাচনী প্রচার প্রচারনা ও গন সংযোগ করে যাচ্ছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোতালেব হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক নয়ন উদ্দিন নয়ন,পৌর আওয়ামীলীগে আহবায়ক খলিলুর রহমান তালুকদার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বিদ্যুৎ সরকার, উপজেলা  যুব
লীগের সভাপতি সুজন তালকদার, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান জুয়েল,উপজেলা যুবলীগের সহসাধারণ সম্পাদক সুমন খান বাবু,
 জেলা যুবলীগের সদস্য রফিকুল ইসলাম রফিক,উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি আশরাফুল ইসলাম আরিফ,সাধারণ সম্পাদক মিল্টন সরকার, পরিষদের  চেয়ারম্যান, আওয়ামীলী  ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা।
  এবারের নির্বাচনে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় আওয়ামী লীগ  নেতা ও কর্মী দের মধ্যে ভোট যুদ্ব চলছে। আওয়ামী লীগ সরকারের ১৫ বছরে কর্মীদের মূল্যায়ন না করায় তারা নৌকাবাদ দিয়ে স্বতন্র প্রার্থী আমানুর রহমান খান রানার ইগল প্রতীকে সওয়াব হয়েছেন। তা ছাড়াও বিতর্কিত লোক দিয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি গঠন করা ও জনসমর্থন বিবেচনা না করে অচেনা নতুন মুখ কে মনোনয়ন দেয়ায় ত্যাগী নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে দলের বিভক্তি  তৃীব্য আকার ধারণ করে। সম্প্রতি স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনের অফিস ভাংচুর, কর্মীদের প্রকাশ্যে মাইরধর ও সভা-সমাবেশে হুমকি -ধামকি করায় সাধারন ভোটার সহ সচেতন মহলে শংকা দেখা দিয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগ নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পর থেকেই যারা দলীয় মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীর সাথে ভোট প্রার্থনা করছেন, ঐ সময় তারা  গ্রুপিং করে সাংসদ সদস্য আতাউর রহমান খান থেকে দুরে চলে যান। দীর্ঘ সময়ে দলীয় বিরোধের প্রভাব দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরোধ ফুটে উঠে।বিশেষ করে দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া ও তার পক্ষে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে কেন্দ্রীয় নিষেধাজ্ঞা না থাকায় স্হানীয় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা প্রকাশ্যে ভাগ হয়ে গেছেন। কিন্তু নৌকার মাঝির সমর্থকেরা স্বতন্র প্রার্থীর সমর্থকদের উপর হামলা,ভাংচুর ও মাইর ধর করেছেন, রক্তাক্ত ও করেছেন ।
এ দিকে স্বতন্র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আমানুর রহমান খান রানাকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচনী কর্মকান্ডে অংশ নিয়েছেন  ত্যাগী প্রবীণ, উপজেলা,ইউনিয়ন,ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের -কর্মী ও সমর্থকরা। এমন কি স্হানীয় জন প্রতিনিধিরা পর্যন্ত বিভক্ত হয়ে গেছেন। তবে টাঙ্গাইল ৩ ঘাটাইল আসনে সাধারন ভোটার সহ অধিকাংশ মানুষ নির্বাচন সুষ্ঠ ও সংঘাত মূক্ত,শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে বলে মনে করেন।

You must be Logged in to post comment.

রংপুরে বসতভিটা ও আবাদী জমি থেকে উচ্ছেদ পাঁয়তারা বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ     |     মেহেরপুরে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার     |     আটোয়ারীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত     |     গাংনীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত     |     বোদায় জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা     |     গাংনীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা     |     মেহেরপুরে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত     |     মাদারীপুরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মদ্য পানের ভিডিও ভাইরাল, দুই শিক্ষক বরখাস্ত     |     টাঙ্গাইলে লাঠিয়াল বাহিনীর ভয়ে নিরাপত্তা হীনতায় পাঁচটিকড়ির কয়েকটি পরিবার     |     ছয় বছর ধরে শিকলবন্দী মিলনের জীবন, নিরুপায় পরিবার     |