ঢাকা, রবিবার, ২৭শে নভেম্বর ২০২২ ইং | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘাটাইলে বনকর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উচ্ছেদের ভয় দেখিয়ে ঘুষ আদায় না দিলে মামলা

রবিউল আলম বাদল, ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) থেকে : বনের জমির বাড়ি থেকে উচ্ছেদের ভয় দেখিয়ে ঘুষ নেন বীট কর্মকর্তা। ঘর মেরামত ও রান্না ঘরের বেড়া বদলালেও তাকে দিতে হয় সেলামি। টাকা দিলে বড় বাড় গাছ কাটার সুযোগ করে দেন। মোটা অঙ্কের টাকা দিলে বনের জমিও ছেড়ে দেন। ক্ষমতার অপব্যবহার, ঘুষ দুর্নীতির এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে সাগরদিঘি বিট কর্মকর্তা সিদ্দিক হোসেনের বিরুদ্ধে। ২৩ অক্টোবর সাগরদিঘী ইউনিয়নের ২ ও ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম ও ফরহাদ আলী সহ ৮ জনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ছাড়াও বন মন্ত্রনালয় পর্যন্ত বিভিন্ন দপ্তরে এ অভিযোগ দায়ের করেছেন।

সরজমিন জানা যায়, সাগরদিঘী বিটের আওতায় কামালপুর, পাগারিয়া, ফুলমালিরচালা, মালিরচালা, কুতুবপুর ও চকচকে শ্রীপুর সহ ৬টি মৌজায় বনের গাছ নাই বললেই চলে। ঐসব জমিতে রয়েছে কলারবাগান, লেবুর বাগান, পেপের বাগান, আমের বাগান। আর এসব জমিতেই দীর্ঘদিন যাবত বসবাস করে আসছেন একশ্রেণির হতদরিদ্র মানুষ। এসব মানুষের জরাজীর্ণ ঘর মেরামত করতে গেলেই চাহিবা মাত্র বিট কর্মকর্তা কে দিতে হয় টাকা। নতুন ঘর স্থাপন করলে দিতে হয় মোটা অঙ্কে সেলামি। টাকা না দিলে তার পালিত দালালরা ঘরের কাজ বন্ধ করে দেয়। কেউ টাকার পরিমান কম দিলে কিংবা প্রতিবাদ করলে তার বিরুদ্ধে ঠুকে দেয় একাধিক মামলা। ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ফরহাদ আলী ও পাগারিয়া গ্রামের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা কদ্দুসের ছেলে আনোয়ার হোসেন বিট কর্মকর্তার অন্যায়ের প্রতিবাদ করেই বন মামলার আসামী হয়েছেন। এমনও হাজারো অভিযোগ রয়েছে বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, বিট কর্মকর্তার ক্ষমতার অপব্যবহার করে বাড়ি ঘর থেকে উচ্ছেদের ভয় দেখিয়ে এলাকার দরিদ্র মানুষের কাছ থেকে ব্যাপকভাবে নিয়মিত ঘুষ গ্রহন করে আসছেন। মাঝে মধ্যে যেসব জায়গায় বনবিভাগের উটলড বাগান রয়েছে তাও বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে টাকার বিনিময়ে। সেসব বাগানে বড় বড় গাছ এক শ্রেণির মানুষকে টাকার বিনিময়ে বিক্রি করার সুযোগ করে দেন তিনি। অপরদিকে বনের জমিতে বহু বছর ধরে বসবাস করে আসা নিরীহ জনগোষ্ঠী তাদের ঘরবাড়ি মেরামত করতে গেলে ঔই কর্মকর্তাকে দিতে হয় ৩০-৬০ হাজার টাকা। কোন কোন ক্ষেত্রে এক থেকে দেড় লক্ষ টাকা। তার বিরুদ্ধে মুখ খুলাও বারন। টাকা দিয়েও মুখখোলার অপরাধে চাপে রাখতে আসামী হয়েছেন কামালপুর গ্রামের সূর্যত আলীর মেয়ে তারা ভানু, নূরুল ইসলামের মেয়ে শিল্পি সহ আরো অনেকে।

এসব অভিযোগ সাগরদিঘী বিট কর্মকর্তা সিদ্দিক হোসেন অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তারা বনের জমি দখল করতে চায় আমি দেই নাই বলে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়েছে বিট কর্মকর্তার অবৈধ পথে উপার্জিত অর্থের একটি অংশ চলে যায় সাগরদিঘী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান হেকমত সিকদারের পকেটে। তার সহযোগিতায় বিট কর্মকর্তা সকল অপকর্ম করে পাড় পেয়ে যাচ্ছেন। এ বিষয়ে চেয়ারম্যান হেকমত সিকদার অস্বীকার করে বলেন, যারা অভিযোগ করেছে তারা আমার সামনে এসে বলুক, ১৫ বছর আগেই আমি এসব বাদ দিয়ে দিয়েছি। অভিযোগে আরোও উল্লেখ করা হয়েছে মোটা টাকার বিনিময়ে বিট কর্মকর্তা সিদ্দিক হোসেন পাগারিয়া, কামালপুর ও মালিচালা মৌজায় প্রায় ৫০০ একর বনের জমি ভূঁইয়া পরিবারকে মৌখিক সম্মতি দিয়ে তাদের চাষবাস ও ভোগদখলের সুযোগ করে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে মালিরচালা গ্রামে লিটন ভূঁইয়ার নিকট জানতে চাইলে তিনি অবাক হয়ে বলেন বিষয়টি খুবই হাস্যকর তবে বন বিভাগের কিছু জমি ভূঁইয়া পরিবারের মধ্যে থাকতে পারে।

এমন অভিযোগের বিষয়ে ধলাপাড়া রেঞ্চ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন বনের জমিতে ঘর বাড়ি করে বসবাস করা সম্পূর্ণ অবৈধ। মানবতার দিক বিবেচনা করে তাদের উচ্ছেদ করা হচ্ছেনা কোথাও কোথাও উচ্ছেদ করে সামাজিক বনায়ন করা হচ্ছে। তবে বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ ব্যক্তি আক্রোশে করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনিয়া চৌধুরী জানান অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

You must be Logged in to post comment.

দেরীতে হলেও ৮৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকানন পরিচর্যার উদ্যোগ প্রশংসনীয়     |     ফুলবাড়ীতে বিনামুল্যে আইন সহায়তা পেতে লিগ্যাল এইড কমিটির উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক সমন্বয় সভা।     |     নবাবগঞ্জে মানবতার কল্যাণে মানবিক দেওয়ালের যাত্রা শুরু     |     এক গৃহবধু’র লাশ রেলষ্টেশনের সীমানা রেলিং-এ ঝুলছিল, নানা গুঞ্জন, হত্যা না আত্মহত্যা!     |     মেহেরপুরের গাংনীতে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে অটোভ্যান চালকের মৃত্যু     |     নিখোঁজের দুইদিন পর নদীর পাড়ে মিলল গৃহবধুর মরদেহ     |     বিয়ে বাড়িতে দাওয়াত খাওয়াকে কেন্দ্র করে ডাসারে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ \ মহিলাসহ আহত-২৫     |     টাঙ্গাইলে বারোমাসী মহৌষধী ‘ননী ফল’ বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে     |     আগামী মাসেই ব্যাংকগুলোর ডলার সংকট দূর হবে। –এফ সালমান রহমান     |     টাঙ্গাইলে প্রাণবন্ত বিশ্বকাপ ফুটবল     |