ঢাকা, রবিবার, ২৭শে নভেম্বর ২০২২ ইং | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘাটাইলে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে হাতুরে ডাক্তার ভুল চিকিৎসায় গবাদি প্রাণির মৃত্যু-অভিযোগ দায়ের

রবিউল আলম বাদল  ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি :রোগ নির্ণয় করে সঠিক ঔষধ প্রয়োগে যাদের নেই কোন অভিজ্ঞতা। নাই তাদের কোন দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণ বা সনদ। ঔষধ প্রয়োগে ডোড মাত্রাও যারা জানেন না। প্রাণিসম্পদ অফিসে ও বাহিরে পোস্ট পদবী চাকুরী কোনটাই নাই। তবু তারা বড় ডাক্তার। এসব হাতুড়ে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় বার বার ঘটছে দুর্ঘটনা। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে কৃষক ও খামারীরা। এমন ভূক্তভোগী দিগর গ্রামের খোরশেদ আলী বাদী হয়ে ৩০ অক্টোবর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দায়ের করে ন্যায় বিচারের দাবী জানাচ্ছেন। প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা যায় উপজেলা ভেটেরিনারি হাসপাতালের আওতাভূক্ত এলডিডিপি প্রজেক্টের ১৪ জন এলএসপি এনটিপি প্রকল্পের ১১ জন সীল এবং অবিভাবক ছাড়া ১২ জন এ আই টেকনেশিয়ান কর্মী রয়েছে। তাছাড়াও বে-সরকারী ভাবে এ.সি.আই, ব্রাক, লালতীর, ইজাব ও আমেরিকান ডেইরী সহ অন্যান্য কোম্পানীর প্রায় শতাধিক এ আই টেকনেশিয়ান কর্মী গড়ে উঠেছে। তারা জেলা কৃত্রিম প্রজনন উপ-পরিচালক থেকে বীজ সংগ্রহ করে এলাকায় হীট গাভীর বীজ প্রজনন করে থাকে। তারা কোন চিকিৎসক বা ডাক্তার না রোগ নির্ণয় করে সঠিক মাত্রায় ঔষধ প্রয়োগ করার কোন অভিজ্ঞাও তাদের নাই। অনেকের দেখাদেখি কিছু চিকিৎসা ব্যবস্থার শিক্ষা থাকলেও অন্যত্র চিকিৎসা দেওয়া কোন বিধান নাই তাদের। কিন্তু উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসের উদাসীনতায় তদারকি না থাকায় এসব হাতুড়ে ডাক্তারেরা আইনের তোয়াক্কা না করে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে তার দৌরাত্ম। তারা ডাক্তার না হয়েও একের একের এক ভুল চিকিৎসা দেওয়ায় অনেক গবাদি প্রাণি ধুকে ধুকে মারা যাচ্ছে। ফলে চরম ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন কৃষক ও খামারিরা। সচেতন মহেলের জোর দাবি দ্রুত এর সুষ্ঠ সমাধান চান তারা।

বাদী খোরশেদ আলীর লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, তিনি একজন অতিদরিদ্র কৃষক। বাড়ি ভিটা ছাড়া অন্য কোন সম্পদ নাই। ঋণ ধারদেনা করে গাভী ক্রয় বিক্রয় করে যা মুনাফা হয় তাই দিয়ে তার সংসার চলে। গত ২৪ অক্টোবর তার এক লক্ষ চল্লিশ হাজার টাকা মূল্যের একটি ৯ মাসের গর্ভবতী গাড়ীর খুড়া রোগ দেখা দেয়। একই গ্রামের হাতুড়ে ডাক্তার প্রবাসী ফেরৎ মোস্তাফিুর রহমান তালেব এফ.এম.ডি কিউর ভেট নামক ঔষধ দিয়ে আক্রান্ত গাভীর পায়ে ও জিহবায় লাগাতে পরামর্শ দেয়। সে অনুযাযী ব্যবহার করলে নাক মুখ দিয়ে লালা বের হয়ে গাভিটি মারা যায়।

সরেজমিনে গিয়ে আবু তালেবের চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কোন ডাক্তার না। আমি কোথাও প্রশিক্ষন করি নাই। ছোট ভাই শাহ আলম বগুড়া জেলায় প্রাণিসম্পদ অফিসার তার পরামর্শক্রমে চিকিৎসা দিয়ে থাকি। আপনার চিকিৎসা ব্যবস্থা বেআইনী কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সবার বেলায় বেআইনী না হলে আমার বেলায় বেআইনী হবে কেন?

অপর ভূক্তভোগী সাঙ্গালিয়াপাড়া গ্রামের কাজিম উদ্দিন তালুকদারের ছেলে শাহা আলমের দেড়লাখ টাকা মূল্যের ৯ মাসের গর্ভবতী গাভীর প্রসব বেদনা দেখা দিলে আমেরিকান ডেইরী কর্মী টেপিকুশারিয়া গ্রামের গিয়াস উদ্দিন সবুজকে ডেকে নেয়। সবুজ গাভীর গর্ভে বাচ্চা নেই মর্মে ঘোষনা দিয়ে ইনজেকশন পুশ করে দেড় হাজার টাকা ফিস নিয়ে চলে যায়। তাতে গাভী সুস্থ না হলে পরের দিন গাভীর পাচেন্টা অর্থ্যাৎ বের হওয়া খেরী কেটে দেয়। তাতে গাভী আরও অসুস্থ হয়ে পরে না খেয়ে ধুকে ধুকে ৫ দিন পর মারা যায় এবং পরে মাটিতে পুতে রাখে। মৃত্যুর ২ দিন পর মৃত গাভী শিয়াল কুকুর তুলে ফেললে গর্ভের বাচ্চা বের হয়ে আসে। এতে এলাকায় হৈচৈ পড়ে যায়। পরে দেন দরবার শেষে ৫ নভেম্বর সবুজ তার ভুল চিকিৎসার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা দিয়ে রফাদফা করেন বলে তিনি জানান।

এমন অপর ভূক্তভোগী বেংরোয়া গ্রামের আজিজ সরকারের ছেলে বিপ্লব জানায় অক্টোবর মাসে তার ভাই বাবুলের ফার্মের ১ লাখ টাকা মূল্যের ষাড় গরু পেটে ইনফেকশন দেখা দেয়। পরে পাশ্ববর্তী ডৌজানী গ্রামের ব্রাকের এ.আই কর্মী নূর আলমকে ডেকে নেন। তিনি পেটের ফুট পয়োজন বের করতে বেশী মাত্রায় ঔষধ প্রয়োগ করলে গরু দুর্বল হয়ে মারা যায়। বিপ্লব আরও জানায় তার কিছুদিন আগে তার বকনা গরু মৌমাছি কামড়ালে কোলাহা গ্রামের নামধারী ডাক্তার কবির হোসেন ইনজেকশন পুশ করেন এতে গরু খিচুনী ধরে কিছুক্ষন পর মারা যায়। এমন ভূক্তভোগী কর্না গ্রামের ফেরদৌস হোসেনের দেড় লাখ টাকা মূল্যের ষাড় গরু এবং বেংরোয়া গ্রামের শামছুল হকের ২ লাখ টাকা মূল্যের দুধের গাভী মারা যায়। এভাবে হাতুড়ে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় একের পর এক মারা যাচ্ছে গবাদি প্রাণী।

এসব বিষয়ে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার (ইউএলও) ডাঃ আবুল খায়ের মোঃ আনিসুর রহমান বলে, তাদের যে কাজ করর কথা সেই কাজ করবে। যারা বিধি লঙ্ঘন করে কাজ করবে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

You must be Logged in to post comment.

দেরীতে হলেও ৮৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকানন পরিচর্যার উদ্যোগ প্রশংসনীয়     |     ফুলবাড়ীতে বিনামুল্যে আইন সহায়তা পেতে লিগ্যাল এইড কমিটির উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক সমন্বয় সভা।     |     নবাবগঞ্জে মানবতার কল্যাণে মানবিক দেওয়ালের যাত্রা শুরু     |     এক গৃহবধু’র লাশ রেলষ্টেশনের সীমানা রেলিং-এ ঝুলছিল, নানা গুঞ্জন, হত্যা না আত্মহত্যা!     |     মেহেরপুরের গাংনীতে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে অটোভ্যান চালকের মৃত্যু     |     নিখোঁজের দুইদিন পর নদীর পাড়ে মিলল গৃহবধুর মরদেহ     |     বিয়ে বাড়িতে দাওয়াত খাওয়াকে কেন্দ্র করে ডাসারে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ \ মহিলাসহ আহত-২৫     |     টাঙ্গাইলে বারোমাসী মহৌষধী ‘ননী ফল’ বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে     |     আগামী মাসেই ব্যাংকগুলোর ডলার সংকট দূর হবে। –এফ সালমান রহমান     |     টাঙ্গাইলে প্রাণবন্ত বিশ্বকাপ ফুটবল     |