ঢাকা, শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি ২০২৩ ইং | ১৪ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহ জেলা মৎস্য অফিসের সহকারী শওকতের চাকুরী প্রতারনার শিকার ফাহিমা

মনিরুজ্জামান সুমন: সরকারি চাকরি সোনার হরিণ। একটি সরকারি চাকুরী পাওয়া মানেই জীবনের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত। যে কেউ সরকারি চাকুরীর কথা বললেই মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ে ৮/১০ লক্ষ টাকা নিয়ে। মানুষের এই দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে কতই না ঘটনা ঘটে চলেছে। চাকুরীর লোভে জীবনের শেষ সম্বল জায়গা ভিটেবাড়ি বিক্রি করে দিয়ে কত মানুষ যে প্রতারিত হয়ে পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছে তার ইয়োত্বা নেই।

এমনই একটা ঘটনা ঘটল আবার ঝিনাইদহে। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কুঠি দুর্গাপুরের আরশেদ জোয়াদ্দার এর মেয়ে মোছাঃ ফাহিমা খাতুন এর জীবনে। ফাহিমা খাতুন এর বাবা প্যারালাইসিস এ আক্রান্ত হয়ে শয্যা গত হয়েছে কয়েক বছর যাবত। ফাহিমা তার ছোট মেয়ে। কোন এক ঘটনার মাধ্যম দিয়ে পারিবারিকভাবে ঝিনাইদহ মৎস্য অফিসের অফিস সহকারী শওকত আলীর সাথে তাদের পরিচয় ঘটে। পরিচয় এর সূত্র ধরে শওকত আলি তাদের পরিবারকে বলে যে সামনে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ। ৮ লক্ষ টাকা দিলে তাকে শিক্ষক হিসাবে চাকুরী দেয়া সম্ভব। তবে চাকরির আগে ৪ লক্ষ আর চাকুরী হয়ে গেলে আরো ৪ লক্ষ টাকা দিতে হবে। শওকত আলির প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায় ফাহিমার পরিবার। ইতিমধ্যে বিশ্বাস ও জন্ম নিয়েছে তার ,কারন ফাইমার আর এক বোনকে ৭ লক্ষ টাকার বিনিময়ে পুলিশের চাকরি পাইয়ে দিয়েছে।

তাই এই প্রস্তাব দেয়ার পর তারা আর না করেনি। ঘটনাটা ২০১৮ সালের দিকে বলে অভিযোগ করেছে ফাহিমা। ফাহিমা অভিযোগে উল্লেখ করেছে, যে চার লক্ষ টাকা দেয়ার পর চাকরি না হলেও সে পরের বছর আবার চাকরির নিয়োগ দিলে চাকুরি দিয়ে দিবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয় কিন্তু আজ চার বছর যাবত তাদেরকে ঘুরিয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে। আমার পরিবারের ভাই-বোন অনেক কষ্ট করে এই চার লক্ষ টাকা দিয়েছে। এই চার লক্ষ টাকার মধ্যে সে এক লক্ষ ৭০ হাজার টাকা ফেরত দিয়েছে। এই টাকার জন্য অনেকের নিকট ধরনা দিয়েছে তারা। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। সে বলেছে যে শওকতের কাছে টাকা ফেরত চাইলে সে বলে যাকে টাকা দিয়েছিলাম সে মারা গেছে যার কারণে আমি আর টাকা ফেরত দিতে পারব না। এদিকে চাকুরী নেই অপরদিকে টাকাও নেই এটা ভেবে ভেবে ফাইমার অবস্থা বেগতিক। এই ঘটনা নিয়ে অবশেষে সে ঝিনাইদহ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে যাতে টাকা ফেরত পায় সেই মর্মে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায, যে তিনি ইতিপূর্বে আরো বেশ কয়েকজনের নিকট থেকে চাকুরী দেওয়ার নামে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে । টাকা আত্বসাৎ করে হামদহ ইসলাম পাড়ায় আলিশান বাড়ি তৈরি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এই প্রসঙ্গে ঝিনাইদহ মৎস্য অফিসের অফিস সহকারী শওকত আলীর সাথে কথা বললে, সে বলে যে আমি চার লক্ষ টাকা নেইনি আমি তাদের নিকট থেকে ২ লক্ষ টাকা নিয়েছিলাম যাহা আমি একটি স্টাম এর মাধ্যমে লিখিত করে ফেরত দিয়েছি। তার কাছে লিখিত প্রমাণাদি চাহিলে সে বলে ২/১ দিন পরে আসেন। দুই এক দিন পরে গেলে সে বলে যে আমার কাছে তার টাকা ফেরত দেয়ার প্রমাণ আছে। তবে আপনাকে দেখানো যাবে না আপনি যা ইচ্ছা তাই করতে পারেন।

You must be Logged in to post comment.

আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া     |     গাংনীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৩ জন আহত     |     রানীশংকৈলে  ৩’শত মন্ডবে পালিত হলো বিদ্যা ও জ্ঞানের দেবী সরস্বতী পুজা      |     পঞ্চগড়ে ৫ শতাধিক অসহায় ও দুস্থদের মাঝে যুবদলের শীতবস্ত্র বিতরণ     |     ফুলবাড়ীতে করোনার চতুর্থ ডোজ গ্রহনে আগ্রহ কম,নেই প্রচার প্রচারোনা।     |     ঘাটাইলে ইটভাটায় পুড়ছে বনের কাঠ     |     পঞ্চগড়ে ট্রাক্টর উল্টে নিহত ১, আহত ২     |     ঝিকরগাছায় দীর্ঘপ্রতিক্ষার পর কমিটি পেল পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ     |     দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ না করার শর্তে ক্ষমা পেলেন ষোলটাকা ইউপি চেয়ারম্যান পাশা     |     পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধায় পালিত হল আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস     |