ঢাকা, সোমবার, ১৮ই অক্টোবর ২০২১ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলের সাবেক মেয়র মুক্তির জামিন ১৪ দফায়ও নামঞ্জুর

আ: রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদ হত্যা মামলায় সাবেক পৌর মেয়র সহিদুর রহমান খান মুক্তির জামিন আবেদন আবারও নামঞ্জুর হয়েছে। এ নিয়ে ১৪তম বারের মতো তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন আদালত।
সহিদুর রহমান খান মুক্তি টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সংসদ সদস্য আতাউর রহমান খানের ছেলে এবং একই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানার ভাই।
আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পাবলিক প্রসিকিউটর) এস আকবর খান জানান, টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতে মুক্তির আইনজীবীরা জামিন আবেদন করেন।
তারা যে কোনো শর্তে মুক্তির জামিন প্রার্থনা করেন। তবে শুনানি শেষে আদালতের বিচারক মাসুদ পারভেজ আবেদনটি নামঞ্জুর করেন।
এরআগে গত ১৮ আগস্ট সকালে টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে সহিদুর রহমান খান মুক্তি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে কারাগার থেকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে ভর্তি রেখে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বুকের ব্যথায় মুক্তি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। তার হৃদযন্ত্রে কোনো সমস্যা পাওয়া যায়নি। তবে থাইরয়েড ও কিডনিতে কিছু সমস্যা আছে।
হাসপাতালে থাকতেই তিনি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন। তিন দিন আগে তিনি করোনামুক্ত হয়েছেন। বর্তমানে কোমরের ব্যথার জন্য হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
প্রকাশ, টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ফারুক আহমদের গুলিবিদ্ধ লাশ ২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি তার কলেজপাড়া বাসার কাছ থেকে উদ্ধার হয়। ফারুক হত্যা মামলায় অভিযুক্ত হওয়ার পর দীর্ঘ ছয় বছর পলাতক ছিলেন মুক্তি।
গত বছরের ২ ডিসেম্বর তিনি টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। আদালত তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর দফায় দফায় তার পক্ষে আইনজীবীরা ১৪ বার জামিনের আবেদন করেছেন। তবে প্রতিবারই ওই আবেদন নামঞ্জুর করেছেন আদালত।
ফারুক হত্যাকান্ডে আমানুর রহমান খান রানা, সহিদুর রহমান খান মুক্তি সহ তদের অপর দুই ভাই ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান কাকন ও ছাত্রলীগের তৎকালীন কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি সানিয়াত খান বাপ্পারও জড়িত থাকার বিষয়টি উঠে আসে।
এরপর তারা সবাই আত্মগোপনে চলে যান। এর মধ্যে আমানুর রহমান খান রানা ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে আত্মসমর্পণ করেন। প্রায় তিন বছর হাজতবাসের পর তিনি জামিনে মুক্তি পান। অপর দুই ভাই কাকন ও বাপ্পা এখনও পলাতক রয়েছেন। এদিকে খাঁন পরিবার ও তাদের সমর্থকেরা ষড়যন্ত্রমূলক মামলা থেকে সাবেক এমপি আমানুর রহমান খাঁন রানা ও তার ভাইদের মামলা থেকে অব্যাহতি পেতে সরকারের কাছে দাবী করেছেন।

You must be Logged in to post comment.

পঞ্চগড়ে আ.লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে সাবেক চেয়ারম্যান ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার সংবাদ সম্মেলন     |     পঞ্চগড়ে তৃতীয় নিলাম মার্কেট স্থাপনের পরিকল্পনা     |     ইউপি নির্বাচনের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান     |     রূপসায় ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র জমা     |     কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রতিবাদে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন     |     ঠাকুরগাঁওয়ে রুহিয়া থানা পুলিশের গাড়ীর ধাক্কায় – ১ জন গুরুতর আহত ।     |     বীরগঞ্জে আদিবাসী মিলন মেলা অনুষ্ঠিত      |     ঠাকুরগাঁও হরিপুরে উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা     |     ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে আওয়ামীলীগের ৪৬ জন প্রার্থীর মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন ।     |     ” হত্যা না আত্মহত্যা” ঠাকুরগাঁওয়ে গৃহবধুর রহস্যজনক  মৃত্যু !      |