ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই ২০২১ ইং | ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলের ৫৬৪ পরিববার মুজিববর্ষে সেমিপাকা ঘর পাওয়ায় স্বপ্ন বুনছে

আঃ রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি: টাঙ্গাইল জেলার ৫৬৪টি পরিবার ভাসমান, পরগাছা বা উঠলি বদনাম মুছে সেমিপাকা ঘর ও দুই শতক ভূমির মালিক হচ্ছে। মুজিববর্ষে জেলার ১২টি উপজেলার ১১৮টি ইউনিয়নের এক হাজার ২৬৪টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার সেমিপাকা ঘর পাবে। তবে প্রথম ধাপে আগামি ১৫ জানুয়ারি জেলার ৫৬৪টি পরিবারকে দুই শতক ভূমির উপর নির্মিত সেমিপাকা ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হবে।
ভূমি ও গৃহহীন পরিবারগুলো বিনামূল্যে সরকারের কাছ থেকে সেমিপাকা ঘর পাওয়ায় আগামি দিনের স্বপ্ন বুনতে শুরু করেছে। তারা যিনি যে কাজ করছেন তা থেকে আরও ভালো, বেশি রোজগারের ও মর্যাদাশীল কাজ করে জীবিকা নির্বাহের পাশাপাশি ছেলে-মেয়েদের পড়ালেখা ও মানবিক গুণাবলি সম্পন্ন উন্নত জীবন গড়ে দিতে নানা স্বপ্ন বাস্তবায়নে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, যাদের ভূমি ও ঘর নেই তাদের জমিসহ ঘর দেওয়ার প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। ওই কর্মসূচির ধারাবাহিকতায় টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে ১২টি উপজেলায় সরকারিভাবে এক হাজার ১৭৪টি পরিবারকে পুণর্বাসিত করা হবে। এছাড়া টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ, সংসদ সদস্য, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা আওয়ামী লীগ, ধনাঢ্য মানবিক ব্যক্তি ও সরকারি চাকুরিজীবীরা মিলে আরও একশ’ ঘর দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। প্রতিটি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। দুই শতক ভূমিতে নির্মিত প্রতিটি ঘরে দুইটি বেডরুম, একটি কিচেন, একটি ইউটিলিটি রুম, একটি টয়লেট ও একটি বারান্দা থাকবে।
সরেজমিনে দেখা যায়, জেলার বিভিন্ন উপজেলায় সেমিপাকা ঘর নির্মাণে জোরতৎপরতায় কাজ চলছে। সংশ্লিষ্ট কাঠ ও রাজ মিস্ত্রিরা মনের মাধুরী মিশিয়ে ভূমি ও গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণ করছেন। ২৫ জানুয়ারিকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে ৮ শতাধিক ঘর নির্মিত হয়েছে। বাকিগুলো নির্মাণে সারাক্ষণ কাঠ-হাতুরির ঠক্ ঠক্ আর ইট গুড়ো করার মেশিনের শব্দে রাজমিস্ত্রি হাঁকডাক চলছে। কারও মধ্যে অলসতার লেশমাত্র নেই- এ যেন পরমাত্মীয়ের জন্য অনন্ত সুখের বাসভূমি তৈরি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও নেতাকর্মীরাও সুযোগ পেলেই নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করছেন।
জেলার ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের গাড়াবাড়ি গ্রামের জহির উদ্দিন জানান, উপজেলার গাবাসারা ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামে তাদের বাড়িসহ ৪৫শতাংশ জমি ছিল। প্রায় ২৫ বছর আগে যমুনার ভাঙনে সব বাড়ি-জমি নদীর পেটে চলে যায়। তারপর অর্জুণা ইউনিয়নের তারাই গ্রামে অন্যের জমিতে বাড়ি তৈরি করে বসবাস শুরু করেন। বিগত ২০১৮ সালে যমুনার ভাঙনে সে বাড়িটিও নদীগর্ভে চলে যায়। এরপর আবার অন্যের বাড়িতে বসবাস করতে থাকেন। মুজিববর্ষে সরকারের পক্ষ থেকে ভূমির সাথে ঘর পেয়ে তিনি ও তার পরিবার খুবই আনন্দিত। ছোট দুই ছেলে-মেয়ের ভবিষ্যত কীভাবে সুন্দর করা যায়, তা নিয়ে নানা পরিকল্পনা করছেন তিনি।
একই উপজেলার কহিনুর বেগম জানান, যমুনায় পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া নিজের বাড়ি-ঘর বিলীন হওয়ার পর গত চার বছর তিনি অন্যের বাড়িতে ‘উঠলি’ হিসেবে বসবাস করছিলেন। নিজে শ্রমিকের কাজ করে কোন রকম সংসারের ঘানি টেনেছেন। বাড়ি বা ঘর তৈরি করার মতো কোন টাকা-পয়সা ও জমি ছিলনা। অন্যের ভিটায় থেকে নানা কটু কথাও শুনতে হয়েছে। ভিটার মালিক বা তার পরিবারের কেউ অন্যায় করলেও প্রতিবাদ করার সাহস হয়নি, নীরবে সকল অন্যায়-অবিচার মাথানত করে হজম করতে হয়েছে। সরকারি ঘর পেয়ে তিনি আপ্লুত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তিনি দীর্ঘায়ু কামনা করেন।
মধুপুর উপজেলার ভাসমান বাসিন্দা শরবানু বেগম জানান, প্রায় ৩০ বছর আগে তার স্বামী তাকে ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়। বাবার সম্পত্তিও ভাইয়েরা গোপনে ভাগাভাগি করে নেয়। প্রায় দুই বছর তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন। নিজের কোন বাড়ি-ঘর ও জমি না থাকায় তিনি অন্যের বাড়িতে জীবন-যাপন করেছেন। সরকারি ঘর পেয়ে তার আনন্দ ধরে রাখতে পারছেন না।
কালিহাতী উপজেলার পাইকরা ইউনিয়নের মো. লিটন মিয়া জানান, পৈত্রিক জমি-বাড়ি না থাকায় তিনি অন্যের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। ভাসমান হওয়ায় টুকিটাকি সবজি চাষ করেও খেতে পারতেন না, সব কিছু কিনে খেতে হত। সরকারের দেওয়া ঘর পেয়ে তিনি যারপরনাই আনন্দিত।
দুই শতক ভূমির উপর সেমিপাকা রেডিমেট ঘর পাওয়া অনেকের গল্পই একই রকম।
টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ি সততা ও আন্তরিকতার সাথে নির্মাণাধীন সেমিপাকা ঘরের কাজ তদারকি করা হচ্ছে। যে কোন মূল্যে মানবিক এই কর্মসূচি টাঙ্গাইল জেলায় সফল করা হবে। জেলার ১২টি উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে যখন রঙিন টিনের ঘর উঠবে, তখন বাগানের ফুলের মতো ঝকঝক করবে ও ঝলঝল করে জ্বলে উঠবে।
তিনি আরও জানান, ঘর নির্মাণে এখনও পর্যন্ত কোন অনিয়মের খবর পাওয়া যায়নি। কোথাও নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হলে সেগুলো অপসারণ করে মানসম্মত সামগ্রী ব্যবহারের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ঘর বিতরণ করার ক্ষেত্রে যাতে কোন প্রকার লেনদেন না হয় সেজন্য জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভা, জেলা আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ কমিটির সভাসহ বিভিন্ন সভায় একাধিকবার আলোচনা করা হয়েছে। যাদের ভূমি ও ঘর নেই এবং যারা প্রকৃতপক্ষে ঘর পাওয়ার যোগ্য তাদের মাঝেই ঘর বিতরণ করা হচ্ছে।

You must be Logged in to post comment.

ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে বিরল রোগে আক্রান্ত  তিন শিশু ।     |     বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনে ২৭৬ টি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের হদিস নেই!     |     গাংনীতে ঢেউটিন প্রদানের শ্লিপ বিতরণ অনুষ্ঠিত     |     সাতক্ষীরায় করোনার উপসর্গ নিয়ে ৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৬৫     |     নীলকরদের অত্যাচার নির্যাতনের কালের স্বাক্ষী ভাটপাড়া নীলকুঠি গাংনীর ভাটপাড়া নীলকুঠি এখন ডিসি ইকো পার্ক । পর্যটন-বিনোদন কেন্দ্র।     |     আটোয়ারীতে করোনায় মৃত ব্যক্তিদের দাফন বিষয়ে ধর্মীয় প্রতিনিধিদের প্রশিক্ষণ     |     ঠাকুরগাঁওয়ে রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে ধানের চারা রোপণ কার্যক্রমের উদ্বোধন     |     প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বনায়নের গুরুত্ব অপরিসীম -এমপি গোপাল     |     ফুলবাড়ীতে ওএমএমের চাল মুদি দোকানে এক হাজার টাকা জরিমানাসহ মুচলেকা     |     ঝিকরগাছায় সভাপতি করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সুস্থতা কামনা করেছেন প্রধান শিক্ষক     |