ঢাকা, বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ইং | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলে বেকারি প্রতিষ্ঠান গুলোতে ভেজাল পণ্য হচ্ছে

আঃ রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:বেকারি একটি উন্নয়নমুখী ব্যবসায়। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রতিটি পরিবারে প্রতিদিন কিছু না কিছু বেকারি পণ্যে প্রয়োজন পড়ে। তবে শ্রমজীবী ও নি¤œ আয়ের মানুষ গুলো প্রতিনিয়ত চায়ের দোকান গুলো থেকে বেকারি পণ্য ক্রয় করে থাকেন। এক কথায় বেকারি পণ্য ছাড়া চায়ের দোকান গুলো চলে না। টাঙ্গাইল অস্বাস্থ্যকর ও সুরক্ষাহীন ভাবে তৈরী হচ্ছে এসব বেকারি পণ্য। বেকারি পাউরুটি, কেক, বিস্কুট, পেটিস, চানাচুর ও টোস্ট ইত্যাদি। জেলা সদর নিমতলী রোডে অবস্থিত আবুল হাজীর রাজমনি বেকারিসহ জেলাটির বেশ কিছু বেকারিতে সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়, কারখানার দরজার পাশে খোলা আকাশের নিচে খোল অবস্থায় ভোজ্য তেল রেখে দেয়া আছে, কেউ মেঝেতে টোস্ট রেখে খালি গায়ে ও সেন্ডেল গেঞ্জি পরে অস্বাস্থ্যকর অবস্থায় প্যাকেট করায় ব্যাস্ত। ময়দাতে মশা-মাছি, পোকামাকড় সহ মিকচার মেশিনে ময়দা ঢোকাতে ব্যস্ত। নেই কর্মিদের সুরক্ষা ব্যবস্থা ও কারখানায় কাজ করার শ্রমিকদের সঠিক পরিবেশ ব্যবস্থা। শ্রম আইন সহ বাংলাদেশের কোন রাষ্ট্রের নিয়ম ব্যবস্থা বা আইন না মেনে, এই সব বেকারির মালিকেরা শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করিয়ে নিচ্ছেন। সর্বপরি যে কথা, নানা অনিয়ম রয়েছে এদের কারখানা গুলোতে, তাছাড়া কারখানা গুলোতে ফুড পরিক্ষক ও বেকারি প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত কোন ব্যাক্তিই নেই বলা চলে। নেই প্রয়োজনী সরঞ্জামাদি নেই। এছাড়া দেখা যায় এই জেলার প্রায় সব বেকারি কারখানা গুলোতে, নি¤œ মানের ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ময়দা, তেল, চিনি, ডালডা, মাখন, বেকিং পাউডার, বেকিং সোডা, কাস্টার্ড পাউডার ইত্যাদি ব্যবহার করেন। তাছ্ড়াা কেউ কেউ দুধ, মাখন ডালডা, ইত্যাদির বদলে ক্ষতিকারক ফুডকালার ও ফ্লেবার ব্যাবহার করেন যা অত্যান্ত স্বাস্থ্য ঝুঁকিপূর্ণ। টাঙ্গাইল জেলার ১২টি উপজেলায় অন্তত ৩০০টি বেকারি কারখানা রয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশ কারখানার কোন বৈধ কাজপত্র ছাড়াই চালাচ্ছে বেকারি ব্যবসা। জানা যায়, বেকারি প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য, এসএমই ফাউন্ডেশন সহ ইধশবৎু ধহফ চধংঃৎু – চঋউঅ –ঠড়পধঃরড়হধষ ঞৎধরহরহম ঈবহঃবৎ, টপবঢ়-নধহমষধফবংয বাংলাদেশ হোটেল ম্যানেজমেন্ট এন্ড টুরিজম ট্রেনিং ইন্সটিটিউট ইত্যাদি প্রতিষ্ঠান থেকে বেকারি প্রশিক্ষণ নেয়া সম্ভব। বুঝাতে পারা যায়, এসব ব্যাপারে জেলা ও উপজেলার সেনেটারী ইন্সপেকরসহ এর সাথে সম্পৃক্ত কর্মকতাদের কাজে ত্রæটি বা গাফিলতি বিদ্যমান রয়েছে ব্যাপক হারে, যে গুলো মেনে নেয়ার মত নয়!
জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর টাঙ্গাইল জেলা শাখার সহকারী পরিচালক সিকদার শহিনুর আলম বলেন, এসব অনিয়ম ত্রæটির ব্যাপারে তাদের অভিযান চলমান রয়েছে। জেল-জরিমানাসহ, সচেতনতার ব্যাপারেও তাঁরা কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে বিজিবি কতৃক উদ্ধারকৃত সাড়ে ৭ কোটি টাকার মাদক ধ্বংস     |     ঝিকরগাছায় গাছি ও ফুল চাষীদের মাঝে উৎপাদন সামগ্রী বিতরণ     |     সাংবাদিক বিপ্লবের উপর হামলার ঘটনায় মামলা      |     ফুলবাড়ীতে ২৬টি বেসরকারী এতিমখানায় এক কোটি ৩১লাখ ২৬হাজার টাকার চেক বিতরণ।     |     ঘাটাইলে সরকারী হাসপাতালের নাকের ডগায় গড়ে উঠেছে বেসরকারি ক্লিনিক     |     লালমনিরহাটের পৃথক ঘটনায় সড়কে নিহত ২     |     মাছের আঁশে তৈরি হচ্ছে প্রসাধনী-বৈদ্যুতিক পণ্য টাঙ্গাইলের মাছের উচ্ছিষ্ট যাচ্ছে বিদেশে     |     রুহিয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন সহায়তা তহবিল হতে স্কুল ব্যাগ বিতরণ     |     ঠাকুরগাঁওয়ে ছয় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার     |     ঘাটাইলে নব নির্বাচিত সংসদ সদস্যকে  সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত      |