ঢাকা, শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর ২০২২ ইং | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলে সম্মেলন নিয়ে আদালতে মামলা নেতাদের প্রকাশ্য দ্বন্দ্বে জেলা বিএনপি টালমাটাল

আ:রশিদ তালুকদার,টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল প্রকাশ্য দ্বন্দ্বে রূপ নিয়েছে। দ্বন্দ্বের কারণে দলের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি মূলত: দুইভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। অভ্যন্তরীণ দলীয় কোন্দল প্রকাশ্যে আসায় জেলা-উপজেলা এবং পৌরসভা থেকে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করেছে। দলের পদ-পদবী তথা নেতৃত্ব নিয়ে রেষারেষি ও বিভক্তি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচিও তারা পৃথকভাবে পালন করছে। নেতায় নেতায় দ্বন্দ্বের কারণে আগামী ১ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় জেলা সম্মেলনের তফসিল বেআইনি ও অকার্যকর ঘোষণার আদেশ চেয়ে বুধবার(২৬ অক্টোবর) পাঁচজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলা করেছেন জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক দেওয়ান শফিকুল ইসলাম। টাঙ্গাইল সদর জ্যেষ্ঠ সহকারী জজ আদালতের বিচারক বিষয়টি আমলে নিয়ে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বিবাদীদের কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, জেলা বিএনপির নেতাদের দ্বন্দ্বের আঁচ যুবদল ও ছাত্রদলসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোতেও লেগেছে। বিভক্তির শিকার এসব সংগঠনের নেতাকর্মীরা দলীয় কর্মসূচি থেকে নিজেদের বিরত রাখছেন। ফলে তৃণমূলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীরা এক প্রকার কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। এক পক্ষের কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে অংশ নিলে অন্যপক্ষ বাঁকা চোখে দেখছে। পদ-পদবী তো দূরের কথা সাধারণ সাংগঠনিক আলোচনা থেকে তাদের সরিয়ে রাখা হচ্ছে। তারা এটা কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারছেন না। তাদের অভিযোগ, নেতায় নেতায় দ্বন্দ্বের কারণে টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সর্বস্তরের সাংগঠনিক কাঠামো ক্রমেই দুর্বল হয়ে পড়ছে। প্রকাশ্য দলীয় দ্বন্দ্ব তথা বিভক্তির নিরসন করতে না পারলে আন্দোলন কর্মসূচি পালন সীমিত হয়ে পড়বে এবং জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে চরম খেসারত দিতে হবে।
জানা যায়, বিগত ১৯৯৭ সালে সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা বিএনপির সভাপতি মেজর জেনারেল (অব.) মাহমুদুল হাসান ও সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান বুলবুল নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পরে এক পর্যায়ে এ দু’নেতার অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব এমন পর্যায়ে পৌঁছে যে, তাদের মধ্যে মুখ দেখাদেখি পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যায়। দু’পক্ষের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এবং বহিস্কার-পাল্টা বহিস্কারের ঘটনাও ঘটে। ২০০৯ সালের ২১ জুন অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খানকে সভাপতি ও কৃষিবিদ শামছুল আলম তোফাকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা কমিটি গঠন করা হয়। তখন জেলা বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন নিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে দূরত্ব বাড়তে থাকে। ২০১১ সালের ৯ জুন পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। দু’পক্ষেই নিজেদের পছন্দের লোকদের অন্তর্ভুক্ত করতে গিয়ে কমিটি গঠনে দুবছর সময় পাড় করে দেয়। মূলত: তখন থেকেই বিএনপির অন্ত কোন্দল অনেকটা প্রকাশ্য রূপ নেয়। আহমেদ আযম খানের একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তারের বিরুদ্ধে তখন থেকেই বিএনপির একটি অংশ প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠে। বিএনপিতে বিভক্তির কারণে জেলা ছাত্রদল, যুবদলসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কমিটি গঠন করাও কঠিন হয়ে পড়ে। মূল দলে বিভক্তির কারণে এসব অঙ্গ সংগঠনেও বিভক্তি দেখা দেয়।
বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক নেতাকর্মীর সাথে কথা বলে জানাগেছে, ২০২১ সালের নভেম্বরে অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খানকে আহ্বায়ক ও মাহমুদুল হক সানুকে সদস্য সচিব করে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। ওই সময় সব উপজেলা-পৌর এবং ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করে তিন মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের জন্য বলা হয়। কিন্তু কয়েক মাসের মধ্যে ওই কমিটি ভেঙে দিয়ে পুনরায় আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটিতে আহমেদ আযম খানকে আহ্বায়ক করা হলেও বাদ পড়েন সদস্য সচিব মাহমুদুল হক সানু, যুগ্ম আহ্বায়ক অমল ব্যানার্জি, সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ছাইদুল হক ছাদুসহ অনেক জ্যেষ্ঠ নেতা। এ ঘটনায় জেলা বিএনপির বিশাল একটি অংশ ক্ষুব্ধ হন। তাদের অভিযোগ আহমেদ আযম খান ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে তার পক্ষের লোকজন দিয়ে পকেট কমিটি গঠন করেছেন। পদবঞ্চিত এই অংশটি আহমেদ আযম খানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেন।
পদবঞ্চিতরা সংবাদ সম্মেলন করে ছাইদুল হক ছাদু ও মাহমুদুল হক সানুর নেতৃত্বে বিএনপির সকল কার্যক্রম চলবে বলে ঘোষণা দেন। তার অংশ হিসেবে তারা পৌর ও সদর উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠন করেন। পর্যায়ক্রমে তারা জেলার ১২টি উপজেলা ও বিভিন্ন পৌর বিএনপির কমিটি গঠন করেন। তার অংশ হিসেবে তারা পৌর ও সদর উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠন করেন। গত ২৩ আগস্ট আশরাফ পাহেলীকে সভাপতি ও সাবেক ভিপি নুরুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে পৌর বিএনপি এবং সফিকুর রহমান সফিককে সভাপতি ও আজহারুল ইসলাম লাবুকে সাধারণ সম্পাদক করে সদর উপজেলা কমিটি গঠন করে।
একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে- নেতায় নেতায় দ্বন্দ্ব থাকাবস্থায়ই দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে আগামী ১ নভেম্বর জেলা বিএনপির কাউন্সিল অধিবেশন বা সম্মেলনের দিন নির্ধারণ করা হয়। ফলে বাধ্য নিজেদের অবস্থান টিকিয়ে রাখতে বিদ্রোহী গ্রুপের পক্ষ থেকে জেলা বিএনপির সম্মেলনের তফসিল বেআইনি ও অকার্যকর ঘোষণার আদেশ চেয়ে আদালতে মামলা করা হয়েছে।
মামলায় অভিযুক্তরা হচ্ছেন, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আহমেদ আযম খান, ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস ছালাম আজাদ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বেনজীর আহমেদ টিটু, জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক হাসানুজ্জামিল ও সম্মেলনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার শফিকুল ইসলাম।
প্রধান নির্বাচন কমিশনার শফিকুল ইসলাম জানান, তারা মামলার নথি পেয়েছেন। আদালত ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জবাব দিতে বলেছেন। মামলার বাদী সম্মেলনের প্রার্থী, প্রস্তাবক ও সমর্থক নয়। ৩০ অক্টোবর আদালত শুনানির দিন ধার্য করেছেন। তারা আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। নির্ধারিত দিনে সম্মেলন হবে কি-না তা সময়ই বলে দেবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
বাদী দেওয়ান শফিকুল ইসলাম মামলার আবেদনে উল্লেখ করেন, বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জেলা কমিটির সম্মেলনে ভোটার তালিকা প্রস্তুতের বিধান রয়েছে। কিন্তু টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সম্মেলন সামনে রেখে খসড়া ভোটার তালিকা করা হয়নি। কার্যালয়েও তালিকা টাঙানো হয়নি। খসড়া তালিকার ওপর বাছাই বা আপত্তি গ্রহণ করা হয়নি। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কোন ভোটার তালিকা প্রস্তুত না করে গত ২১ অক্টোবর সম্মেলনের তফসিল ঘোষণা করেন।
তিনি অভিযোগ করেন, সম্মেলনের তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র বিক্রির সময় ভোটার তালিকা বিতরণের কথা থাকলেও কোন প্রার্থীকে তা দেওয়া হয়নি। সভাপতি প্রার্থী আলী ইমাম তপন ২৩ অক্টোবর ভোটার তালিকার জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবর আবেদন করেন। কিন্তু এখনও তাকে ভোটার তালিকা দেওয়া হয়নি। এ অবস্থায় আগামী ১ নভেম্বর সম্মেলন হলে তা প্রহসনে পরিণত হবে। তিনি ওই সম্মেলনের তফসিল বেআইনি ও অকার্যকর ঘোষণার আদেশ চান।
বিদ্রোহী কমিটির নেতা সফিকুর রহমান সফিক জানান, তারা ইতোমধ্যে ১২টি উপজেলার ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি করেছেন। অধিকাংশ ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হয়েছে। ২-৩টি ওয়ার্ড কমিটি বাকি রয়েছে। সেগুলো শেষ করে দ্রুত সময়ের মধ্যে তারা সম্মেলন করবেন।
জেলা বিএনপির বর্তমান যুগ্ম-আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট ফরহাদ ইকবাল জানান, দলের ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটি শেষ করে গত ১৩ অক্টোবর(বৃহস্পতিবার) সদর উপজেলা ও পৌর কমিটির সম্মেলন করা হয়েছে। সম্মেলনে কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মাহমুদুল হাসান, বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস ছালাম আজাদ, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আহমেদ আযম খান, যুগ্ম-আহ্বায়ক হাসানুজ্জামিল শাহীন, কাজী সফিকুর রহমান লিটনসহ বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ওই সম্মেলনে আজগর আলীকে সভাপতি ও আব্দুর রউফকে সাধারণ সম্পাদক করে সদর উপজেলা এবং পৌর কাউন্সিলর মেহেদী হাসান আলীমকে সভাপতি ও ইজাজুল হক সবুজকে সাধারণ সম্পাদক করে পৌর বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়েছে।
বর্তমান কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক হাসানুজ্জামিল শাহিন জানান, পদবঞ্চিতদের কমিটি গঠনের সাংগঠনিক কোন ভিত্তি নেই। তারা যা করছে তা নিয়ম বহির্ভূত ও অগঠনতান্ত্রিক কাজ। দলের ভেতর তারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে। কেন্দ্রে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে। কেন্দ্র থেকে খুব শীঘ্রই তাদের বিরুদ্ধে সাংগাঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে, জেলা বিএনপির সাবেক সদস্য সচিব মাহমুদুল হক সানু জানান, ব্যর্থতার কারণে যদি কমিটি ভেঙে দেওয়া হয় তাহলে আহমেদ আযম খানও আহ্বায়ক থাকার কথা নয়। অর্থাৎ তিনি প্রভাব খাটিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের ভুল বুঝিয়ে দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের বাদ দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের সাথে আতাঁতকারী সুবিধাভোগী এবং ক্ষমতাসীন দলের সাথে ব্যবসা-বাণিজ্য করছেন এমন লোকদের আহ্বায়ক কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে- যা জেলার অধিকাংশ নেতাকর্মীরা মেনে নিতে পারছেন না।
জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান জানান, বিএনপি একটি বড় দল। এখানে মত-পার্থক্য থাকবে। আহ্বায়ক কমিটির সব যুগ্ম-আহ্বায়কসহ সকল নেতৃবৃন্দ তাদের পক্ষে রয়েছে। পদবঞ্চিত হয়ে ২-১ নেতা বিদ্রোহ করতেই পারে। তবে তিনি তাদের গুরুত্ব দিচ্ছেন না। তারা ভুল বুঝছে। সংশোধন হলে এমনিতেই তারা ফিরে আসবে। জেলা বিএনপির কাউন্সিল অধিবেশনে কেন্দ্রীয় বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।
বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস ছালাম আজাদ জানান, কেন্দ্রীয় নির্দেশানার বাইরে গিয়ে দলে যে কেউ অসাংগঠনিক বা নিয়ম বহির্ভুত কাজ করলে দল তার বিরুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিবে।
এদিকে, জেলা বিএনপির ১ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় সম্মেলনের সভাপতি পদে সাবেক সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ছাইদুল হক ছাদু, বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক হাসানুজ্জামিল শাহীন ও সদস্য আলী ইমাম তপন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট ফরহাদ ইকবাল ও সাবেক সদস্যসচিব মাহমুদুল হক সানু মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।
সম্মেলনের সভাপতি প্রার্থী ছাইদুল হক ছাদু জানান, প্রার্থীদের ভোটার তালিকা না দেওয়া ও সম্মেলনের জায়গা নিয়ে তিনি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। একজন সভাপতি প্রার্থীর বাড়ির কাছে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সম্মেলনের স্থান ঠিক করা হয়েছে বলে তিনি জেনে অভিযোগ করেছেন। সঠিক নেতৃত্ব নির্বাচনে তিনি পুনরায় সম্মেলনের তারিখ, উপ-কমিটি পুনর্গঠন ও জায়গা পরিবর্তনের জন্য তিনি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে অনুরোধ করেছেন।
অভিযোগের বিষয়ে জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক হাসানুজ্জামিল শাহীন জানান, দলের কতিপয় নেতা ১ নভেম্বরের সম্মেলনে নিশ্চিত পরাজয় জেনে নানা অপতৎপরতায় লিপ্ত হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আদালতের কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব তারা আইনিভাবেই দেবেন। আদালতে কাগজপত্র দাখিলের পর রায় তাদের পক্ষে আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে আন্তর্জাতিক দুুর্নীতিবিরোধী দিবস পালিত     |     ফুলবাড়ীতে নারী ও কন্যা শিশুর প্রতিপারিবারিক সহিংসতার বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক কার্যক্রম ‘আমাদের প্রতিবাদ’     |     ফুলবাড়ীতে বেগম রোকেয়া দিবস পালিত।     |     বেগম রোকেয়া দিবসে বীরগঞ্জে জয়িতাদের সংবর্ধনা     |     ৫ হাজার টাকা ঋন দিয়ে সুদ-আসলে ৫ লাখ দাবী, কৃষকের আত্মহত্যা     |     বীরগঞ্জে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত     |     মির্জা ফখরুলকে আটকের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে বিক্ষোভ      |     বোদায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ     |     লালমনিরহাটে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল     |     চিলাহাটিতে আওয়ামী লীগের জন্য  পুনরায় ফিরে পেলো টিসিবির পণ্য সুবিধাভোগীরা।      |