ঢাকা, বুধবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ইং | ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে এক গ্রামে ১৫ জোড়া যমজ, এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি 

রবিউল এহ্সান রিপন, ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ে এক পরিবারে ৪ জোড়াসহ এক গ্রামেই রয়েছে ১৫ জোড়ার অধিক যমজ সন্তান৷ তাদের মাঝে কিছু বিষয়ে মিল-অমিল থাকলেও বন্ধন বেশ দৃঢ়৷ যমজ সন্তান নিয়ে অনেকে কটু মন্তব্য করলেও খুশি তাদের পরিবার৷ একসাথে অনেক গুলো যমজ সন্তান দেখতে ভীড় জমান বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।
ঠাকুরগাঁও জেলা শহর ঘেঁষা সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নের দক্ষিণ ঠাকুরগাঁও গ্রাম। সবুজ-শ্যামল গ্রামের অধিকাংশ মানুষ কৃষি পেশার সাথে জড়িত৷ আর এ গ্রামের একই পরিবারে রয়েছে চার জোড়া যমজ সন্তান।আর  তাদের আশেপাশে রয়েছে আরও পনেরো জোড়ার অধিক যমজ ভাই-বোন৷
সরেজমিনে সেই গ্রামে গিয়ে দেখা যায় যমজ ভাই-বোনের এক অন্যরকম ভালো লাগার দৃশ্য। মলিন আর মনহরি যমজ দুই ভাই। তারা যমজ হিসেবে সবার চেয়ে বয়সে বড়৷ পরিবারের কাজ নিয়ে নানা ব্যস্ততায় সময় কাটে তাদের৷ তবে বয়স বাড়লে মিল কমেনি তাদের৷ একসাথে  হাট-বাজার যাওয়া আর একই পোশাক পরিধান করা আর কৃষি কাজও একসাথে করেন তারা৷ তাদের সাথেই বেড়ে উঠছে আরো তিন জোড়া যমজ সন্তান। সম্পর্কে তারা তাদের ভাই-ভাতিজা। ছোট সেই যমজেরা একসাথে বেড়ে উঠছে শৈশবের সেই দূরন্তপনায়৷ পাপ্পু-প্রাপ্পু, খুশি-বন্ধন আর নিবিড়-নিলয়। সারাদিন পুরো বাড়ি যেন তারা মাতিয়ে রাখেন৷ একসাথে
খেলাধুলা করা,পড়াশোনা করা আর সাজগোজে সময় পার হয়ে যায় তাদের৷
এরা একজন যেন আরেকজনের প্রতিচ্ছবি। কখনো কখনো তাদের কথাবার্তা, আচার-আচরণ, চলাফেরা একবারে হুবহু মিলে যায়। আবার এর বিপরীতও দেখা যায়। বাড়ি, স্কুল, গ্রাম সবখানেই একই চেহারার জন্য নানানরকম অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে সময় কাটে সবার। তবে এতে সবার প্রতিক্রিয়া বেশ মজাদার। যমজ হবার দরুণ তারা সবার কাছে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ও প্রিয় হয়ে ওঠেছে।
এদের মত এ গ্রামে রয়েছে ইতি-বিথী, তৃণা-তৃষা সহ আরো ১৫ জোড়া যমজ ভাই বোন। তারা অনেকে বিভিন্ন জায়গায় পড়াশোনা ও কর্মরত রয়েছেন। যমজ ভাই-বোন ঘিরে গ্রামটির নাম মজার ছলে অনেকে যমজপাড়া বলেও অভিহিত করছেন৷
যমজ ভাই-বোনদের দেখতে আসা বিশিষ্ট কলামিস্ট নাজমুল হোসেন বলেন,  একসাথে একই পরিবারে চার জোড়া যমজ ভাই-বোন দেখে আলাদা রকম ভালো লাগার অনুভূতি কাজ করে৷ একই রকম দেখতে, পোশাকেও তাদের মিল দেখে বেশ ভালো লাগছে।
বয়স বাড়লেও কমেনি মলিন আর মনহরি দুই মিল। বড় ভাই মলিন বলেন, ছোটবেলা থেকে আমরা একসাথে। আমাদের তেমন কোন ধরনের ঝামেলাও হয়নি। তবে অনেক মজার স্মৃতি আছে৷ একজন দোকানে বাকী করলে আরেকজনকে বলতো। ঝামেলা হলেও এটা খুব ভালো লাগতো৷
পাপ্পু ও প্রাপ্পুর মা বিদিশা রাণী বলেন, তাদের মাঝে মিল যেমন বেশী আবার ঝগড়াও বেশি। একসাথে স্কুলে যাতায়াত করে। খেলাধুলা, খাওয়া দাওয়া সবই একসাথে করে। এটি বেশ ভালো লাগে। যমজেরা আমাদের সংসারে আর্শীবাদ।
সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুব্রত কুমার রায় বলেন, ১৫ জোড়া যমজ একই গ্রামের বিষয়টি ইউনিয়ন ও জেলাজুড়ে কৌতুহল সৃষ্টি করেছে। আমরা তাদের পাশে ছিলাম। ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে তাদের পাশে থাকা হবে।

You must be Logged in to post comment.

রংপুরে বসতভিটা ও আবাদী জমি থেকে উচ্ছেদ পাঁয়তারা বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ     |     মেহেরপুরে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার     |     আটোয়ারীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত     |     গাংনীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত     |     বোদায় জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা     |     গাংনীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা     |     মেহেরপুরে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত     |     মাদারীপুরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মদ্য পানের ভিডিও ভাইরাল, দুই শিক্ষক বরখাস্ত     |     টাঙ্গাইলে লাঠিয়াল বাহিনীর ভয়ে নিরাপত্তা হীনতায় পাঁচটিকড়ির কয়েকটি পরিবার     |     ছয় বছর ধরে শিকলবন্দী মিলনের জীবন, নিরুপায় পরিবার     |