ঢাকা, বুধবার, ২০শে জানুয়ারি ২০২১ ইং | ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

ঠাকুরগাঁওয়ে বিলুপ্তির পথে শিলপাটা  ।

মোঃ মজিবর রহমান শেখ ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি,ঠাকুরগাঁও  জেলায় রান্নায় রসদ জোগানো বিভিন্ন মসলা মিহি বা গুড়া করার জন্য এক সময় শিলপাটার বিকল্প বলতে কিছু ছিল না। প্রতিটি পরিবারে এ শিলপাটার ব্যবহার ছিলো ব্যাপক। সময়ের বিবর্তন ও আধুনিক প্রযুক্তির প্রবাহে ধীরে ধীরে কমতে থাকে  শিলপাটার ব্যবহার। ঠাকুরগাঁও জেলায় শিলপাটা এখন বিলুপ্তির পথে। কেবল মসলাই নয়, মেহেদি পাতা বাটা থেকে শুরু করে নানান ধরণের খাবারের ভর্তা বাটার কাজটিও সারা হতো শিলপাটায়। বর্তমানে বাসাবাড়িতে শিলপাটার খুব একটা ব্যবহার চোখে না পড়লেও বিয়ে-শাদির অনুষ্ঠানে বাবুর্চির গ্রুপে আসা মহিলারা এসব অনুষ্ঠানের রান্নার মসলা শিলপাটাতেই বাটাবাটি করে থাকে। আর তাই এসব অনুষ্ঠানের খাবারের স্বাদই ভিন্ন। অথচ শিলপাটায় বাটা মসলার স্বাদ আধুনিক সমাজের অনেকেই ভুলে গেছেন। শিলপাটার বদলে এখন ব্ল্যান্ডার মেশিনেই চলে মসলা বাটার কাজ। আর প্যাকেট মসলাতো আছেই। শিলপাটার ব্যবহার কমে যাওয়ার পাশাপাশি পাটা ধারকাটা কারিগরদের জীবিকার পথও অনেকটা রুদ্ধ হয়ে পড়েছে। অনেকেই এ পেশা ছেড়ে ভিন্ন পেশায় জীবিকা নির্বাহ করছে। আর যারা আছে তারা মানবেতর জীবনের সঙ্গে যুদ্ধ করে কোনরকমে টিকে রয়েছে। আদা, হলুদ, মরিচ, ধনিয়া, জিরা, পেয়াজ বাটার জন্য শিলপাটা ছাড়া আর কোন উপকরণ ছিলো না। শত ব্যস্ততায় ঘরের গৃহিণীরা চুলোয় রান্না শুরুর আগে শিলপাটায় মসলা বাটাবাটির কাজটি সেরে নিতেন। প্রতিটি ঘরে শিলপাটার ব্যবহার ছিল সচল। সময়ের বিবর্তনে এখন রান্নায় প্যাকেটের গুঁড়ো মসলা জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছে। শিলপাটায় মসলা বাটার কথা ওঠলে ভ্রু কুঁচকে ওঠেন গৃহিনীরা।  ঠাকুরগাঁও জেলার গ্রাম-গঞ্জে ও শহরের নিম্নবিত্ত পরিবারে এখনো শিলপাটার ব্যবহার রয়েছে। আর মধ্যবিত্ত ও অভিজাত পরিবারে বাজারের প্যাকেট মসলা আর আদা, পেঁয়াজ, রসুন, জিরা পিষানোর জন্য ইলেকট্রনিক্স ব্ল্যান্ডার মেশিন শিলপাটার জায়গা দখল করে নিয়েছে। শিলপাটায় একসময় মেহেদি পাতা বাটা হতো। এখন সেটিও টিউব মেহেদীর দখলে। এদিকে ঠাকুরগাঁও জেলার দেড় শতাধিক হার্ডওয়ার দোকানের মধ্যে ১০/১৫টি দোকানে শিলপাটা চোখে পড়বে। হার্ডওয়ার দোকানিরা জানান শিলপাটার চাহিদা কমে যাওয়ায় এটি এখন আর সব দোকানে খুব বেশি একটা রাখা হয় না। অন্যদিকে একসময় ঠাকুরগাঁও জেলায় প্রতিনিয়ত দেখা মিলতো শিলপাটা ধারকাটা কারিগরদের। হাতুড়ি, ছেনি নিয়ে এসব কারিগররা বিভিন্ন বাড়ির সামনে গিয়ে হাকডাক তুলতো ‘পাটা খোদাইবেন-ডেকছির কাছা লাগাইবেন …’। এখন আর সেই দৃশ্য চোখে পড়ে না। শিলপাটা ধারকাটা কারিগরদের অনেকেই মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলার মুন্সিপাড়া বাসিন্দা বিজলি শিলপাটা ধারকাটা কারিগর মতিন, হোসেন, সুলতান জানান, আগে পাটা খোদাই কাজের কদর ছিল এখন কমে গেছে। অনেকেই এ কাজ ছেড়ে যুগালী, ইট ভাঙার কাজ করছে। কেউ কেউ বাপ-দাদার এ পেশায় টিকে থাকলেও মানবেতর জীবন পার করছে।

You must be Logged in to post comment.

ঠাকুরগাঁও পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে  এক জনের প্রার্থীতা বাতিল ।     |     ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে গোদরোগের উপর সামাজিক উদ্বুদ্ধকরণ সভা ।     |     ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈল পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার বিদ্রোহে-৭ ধানের শীষে-১     |     পার্বতীপুরে সাংবাদিক জহির রায়হানের দাফন সম্পুর্ন     |     গাংনী ইটভাটায় পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযান। ৬০ লাখ টাকা জরিমানা। ভাটা গুড়িয়ে দেয়া হলো     |     ঝিকরগাছায় ফুলের রাজধানীতে করোনাকালীন সময়ে হচ্ছে না ফুল বিক্রি : চলতি বছরে থাকছে না কোন টার্গেট     |     রূপসায় উপকূলীয় নারীদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে ১৫ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষনের সমাপনি     |     আটোয়ারীতে তীব্র শীতের প্রকোপ : নিম্ন আয়ের মানুষের অবস্থা কাহিল     |     ঘাটাইলে ঘোড়ার গাড়ী চালককে হত্যা     |     উত্তর রামপুর দাখিল মাদরাসা’র শিক্ষক আফতাবর রহমানের দাফন সম্পন্ন     |