ঢাকা, রবিবার, ২৭শে নভেম্বর ২০২২ ইং | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে সার নিয়ে বিপাকে কৃষক, কপালে চিন্তার ভাঁজ আলু চাষীদের

রবিউল এহ্সান রিপন, ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ে আমন ধান ঘরে তোলার সাথে সাথেই শুরু হয়েছে আলু চাষের জন্য জমি প্রস্তুত ও রোপনের কাজ। এতে দেখা দিয়েছে কৃষকদের মাঝে কর্ম ব্যস্ততা। আর রাসায়নিক সার সময় মতো ও সঠিক দামে না পাওয়ায় কৃষকরা পড়েছেন বিপাকে।

আমনের পর পরই এ জেলার কৃষকরা আলু চাষ শুরু করেন। জেলার বিভিন্ন উপজেলা ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিবারের ন্যায় এবারও ধান কাটা শেষে আলু চাষের জন্য কৃষকরা জমি প্রস্তুত ও রোপন শুরু করেছেন। কিন্তু রাসায়নিক সারের দাম ও পর্যাপ্ত পরিমাণে সার না পাওয়ায় কৃষদের কপালে পরেছে চিন্তার ভাঁজ। তাতে আলু চাষ নিয়ে হতাশা দেখা দিয়েছে চাষীদের মাঝে।

দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েও সার পাচ্ছেন না। আর খুচরা বাজারে সারের দ্বিগুণ দাম। তার পরেও পর্যাপ্ত পরিমাণে সার পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ কৃষকদের।

আলু চাষী আক্কর আলী বলেন, খুচরা বাজারে পটাশ সারের ৫০ কেজির বস্তা ১৬০০ টাকা, ইউরিয়া ১ হাজার, ডেপ ১২০০ টাকা করে বিক্রয় হচ্ছে। তার পরেও পটাশ সার পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও সার পাচ্ছি না। যারা বড় বড় কৃষক তারা সার পাচ্ছে। আর আমার মতো ক্ষুদ্র কৃষকরা সার পাচ্ছি না।

নূর ইসলাম নামে আলু চাষী বলেন, আলু চাষ করতে চেয়েছিলাম ২ একর কিন্তু সারের কারণে এখন ১ একর জমিতে আলু রোপন করছি। এভাবে চলতে থাকলে আমরা কিভাবে কৃষি করবো। সারের দাম বেশি হলেও সার পাওয়া যাচ্ছে না।

কৃষক বাচ্চু বলেন, এবার সারের এতো সংকট যা কল্পনা করা যায় না। ডিলারের কাছে তো পটাশ সার পাওয়াই যায় না। আর বাইরে দ্বিগুণ দাম। এভাবে শুধু আলু না যে কোন ফসল চাষ করতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। একদিকে সব কিছুর দাম উর্ধ্বগতি আর অন্যদিকে সারের সংকট। তাই আমরা চরম হতাশা ও বিপাকে পরেছি। এতে কৃষকরা আমরা হুমকির মুখে।

কৃষক হাফিজ উদ্দীন বলেন, এবার সার সহ অন্যান্য কিছুর দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় একর প্রতি আলু চাষে ১০-১৫ হাজার টাকা বেশি খরচ হচ্ছে।

ঠাকুরগাঁও শিবগঞ্জ বিএডিসি’র উপ-সহকারী পরিচালক (সার) জিল্লুর রহমান বলেন, সারের চাহিদার তুলনায় বরাদ্দ কম। বরাদ্দ পেলে সার সরবরাহ করা হবে। সারের বিষয়ে সরকারের যথেষ্ট অগ্রগতি আছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মতে, গত বছর আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছিল ২৭ হাজার হেক্টর জমি কিন্তু এবার তার থেকে প্রায় ২ হেক্টর কম লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। অর্থাৎ এবার লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ হাজার ৩০ হেক্টর জমি। এর মধ্যে প্রায় ৬ হাজার হেক্টর জমিতে আলু রোপন সম্পন্ন হয়েছে।

অন্যদিকে জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ড. আব্দুল আজিজ বলছেন, সারের কোন সংকট নেই। কৃষকরা মনে করছেন পরবর্তীতে তারা আর সার পাবেন না। তাই এখন থেকেই সার মজুদ করতে হুমরি খাচ্ছেন তারা। সারের জন্য কোন প্রকার আলু বা অন্য কোন ফসলের ক্ষতি হবে না।

যারা সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে সার বিক্রয় করছেন তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে ও সারের বাজার মনিটরিং অব্যাহত আছে বলে জানান সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহের মো.সামসুজ্জামান।

You must be Logged in to post comment.

দেরীতে হলেও ৮৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকানন পরিচর্যার উদ্যোগ প্রশংসনীয়     |     ফুলবাড়ীতে বিনামুল্যে আইন সহায়তা পেতে লিগ্যাল এইড কমিটির উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক সমন্বয় সভা।     |     নবাবগঞ্জে মানবতার কল্যাণে মানবিক দেওয়ালের যাত্রা শুরু     |     এক গৃহবধু’র লাশ রেলষ্টেশনের সীমানা রেলিং-এ ঝুলছিল, নানা গুঞ্জন, হত্যা না আত্মহত্যা!     |     মেহেরপুরের গাংনীতে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে অটোভ্যান চালকের মৃত্যু     |     নিখোঁজের দুইদিন পর নদীর পাড়ে মিলল গৃহবধুর মরদেহ     |     বিয়ে বাড়িতে দাওয়াত খাওয়াকে কেন্দ্র করে ডাসারে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ \ মহিলাসহ আহত-২৫     |     টাঙ্গাইলে বারোমাসী মহৌষধী ‘ননী ফল’ বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে     |     আগামী মাসেই ব্যাংকগুলোর ডলার সংকট দূর হবে। –এফ সালমান রহমান     |     টাঙ্গাইলে প্রাণবন্ত বিশ্বকাপ ফুটবল     |