ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট ২০২১ ইং | ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে ১ দিনে করোনায় আক্রান্ত ৪ জনের মৃত্যু !

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি,ঠাকুরগাঁও জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১১ জুন শুক্রবার ৪  ব্যক্তি মারা গেছেন। এই দিন ৪৬টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ২১ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় করোনা শনাক্তের হার ৪৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ। ১১ জুন শুক্রবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে ঠাকুরগাঁও জেলা সিভিল সার্জন মাহফুজার রহমান সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, গত মে মাসে ৩৩০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪৬ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছিল। শনাক্তের হার ছিল ৭–এর কিছুটা ওপরে। কিন্তু চলতি জুন মাসে পরিস্থিতি পাল্টে গেছে। গত ১১ দিনে ৬১২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২২৮ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৭ দশমিক ২৫ শতাংশ। এ সময়ে জেলায় ১৩ জন করোনা রোগী মারা গেছেন।
বিশেষ করে ৭ জুন থেকে প্রতিদিনই করোনা শনাক্তের রেকর্ড ভেঙেছে। ৭ জুন ৮৮টি নমুনা পরীক্ষা ফলাফলে ২২ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ছিল ২৫ শতাংশ। ৮ জুন ১০৬টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে শনাক্ত হয় ৩০ জন, শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ৩০ শতাংশ। ৯ জুন ১১৩টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ৩৯ জন করোনা শনাক্ত হয়। এদিন করোনা শনাক্তের হার ছিল ৩৪ দশমিক ৫১ শতাংশ। আর গত১০ জুন বৃহস্পতিবার শনাক্তের হার কিছুটা কমলেও শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে যায়। এই দিন ১৩০টি নমুনা পরীক্ষা ফলাফলে ৪৩ জন করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। এটি এই বছর এক দিনে সর্বোচ্চ করোনা শনাক্ত। তবে ১১ জুন শুক্রবার শনাক্তের সংখ্যা কমলেও বেড়েছে শনাক্তের হার। এই দিনে ৪৬টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২১ জনের। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় করোনা শনাক্তের হার ৪৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ। সদর উপজেলায় ৯ জন, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় – ১০ জন, রানীশংকৈল উপজেলায়- ২ জন করোনায় সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে চারজন মারা গেছেন। মৃত ব্যক্তিরা সদর, বালিয়াডাঙ্গী, রানীশংকৈল ও হরিপুর উপজেলার বাসিন্দা। ঠাকুরগাঁও জেলায় এ পর্যন্ত ১০ হাজার ৪৮৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১ হাজার ৯১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ১৮ দশমিক ২৫ শতাংশ। এ পর্যন্ত (১১ জুন) করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৯ জন। করোনা সংক্রমণের আশঙ্কার মধ্যেও মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলায়  ঠাকুরগাঁও জেলার সদর উপজেলায়  লোকজনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি সীমান্ত এলাকায় লোকজনের চলাচল বন্ধ করতে পাহারা জোরদার করা হয়েছে। ঠাকুরগাঁও জেলা সিভিল সার্জন মাহফুজার রহমান সরকার বলেন, শহর-গ্রামাঞ্চলে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে। করোনার সংক্রামণ প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার ও স্বাস্থবিধি মানার বিকল্প নেই। তবু মানুষ সচেতন হচ্ছে না। স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে চলাচল করার কারণেই সংক্রমণের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, মানুষকে মাস্ক পরা ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে বাধ্য করায় প্রশাসন মাঠে আছে। এরপরও শনাক্তের হার না কমলে, বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে।

You must be Logged in to post comment.

ঠাকুরগাঁওয়ের শিবগঞ্জে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ  আহত– ৬      |     রাণীশংকৈলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  প্রধানমন্ত্রীর উপহার কোভিড-১৯ সামগ্রী প্রদান     |     টাঙ্গাইলে পাচারকালে ট্রাক বোঝাই সারসহ দুই কলোবাজারী গ্রেপ্তার     |     দেশে করোনায় মৃত্যু ২৩৫ নতুন শনাক্ত ১৫ হাজার ৭৭৬ জন     |     টাকা ও যোগাযোগ ব্যতিত চাকরী পাওয়া অন্তরা সরকার মিতুর সফলতার গল্প     |     বাংলাদেশ তাঁতী লীগের ঝিকরগাছা উপজেলার সভাপতি আলমগীর ও সম্পাদক এছতেসাম রাজ     |     বীরগঞ্জে ছাত্র-ছাত্রীকে আটক করে এক লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী,ইউপি সদস্য সহ আটক-৫     |     আবার যমুনার ভাঙনে আলিপুরের স্কুল-মসজিদ-মাদ্রাসা বিলীন     |     টাঙ্গাইলে এক একর সরকারি ভূমি অবৈধদখলমুক্ত     |     আটোয়ারীতে ভোক্তা অধিকার আইনে ৪ সার ব্যবসায়ীর অর্থদন্ড     |