ঢাকা, বুধবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২৪ ইং | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তিস্তার যেন মরা নদী

মোঃ রেজাউল করিম লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ-উজানে পানি প্রত্যাহারের কারণে করালগ্রাসী তিস্তা নদী শুস্ক মৌসুমে মরা নদীতে পরিণত হয়েছে। ৩১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ নদীর ১৬৫ কিলোমিটার বাংলাদেশ। তিস্তার নদীর জীববৈচিত্র্যে বিরুপ প্রভাব ফেলেছে নদী শুকিয়ে যাওয়া বাস্তবতা। দেশের অন্যতম বৃহত্তম এই নদীর অস্থিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়ায় তিস্তার অববাহিকায় লাখ লাখ মানুষের জীবনজীবিকা গভীর সংকটে পড়েছে। ভারতের গজলডোবায় প্রবেশমূখে ও লালমনিরহাটের দোয়ানীতে তিস্তা ব্যারেজ নির্মাণ করে এ নদীর উচ্ছল দুর্বার গতি রোধ করে দেওয়া হয়েছে। বছরের পর বছর বিভিন্ন ক্যানেলের মাধ্যমে তিস্তার ¯্রােত ঘুরিয়ে দিয়ে তার বুক থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে পানি নামের জীবন। মরে যাচ্ছে তিস্তা। তিস্তা নদীর ওপর নির্মিত তিস্তা রেল সেতু, তিস্তা সড়ক সেতু ও নির্মানাধীন দিত্বীয় তিস্তা সড়কসেতু দাড়িয়ে রয়েছে ধু-ধু বালুচরের ওপর। ব্রিজ থাকলেও পায়ে হেঁটেই পার হচ্ছেন অনেকেই। উত্তাল তিস্তায় এখন শুধু বালুকণা। খর¯্রােতা তিস্তার নাব্য এতটাই হ্রাস পেয়েছে যে আসন্ন রবি মৌসুমে দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজের সেচ কার্যক্রম চালানোই কঠিন হয়ে পড়বে। প্রতিদিনই পানি কমছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের সূত্রমতে, নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহেই তিস্তার পানি প্রবাহ এ যাবৎকালের সর্বনি¤œ পর্যায়ে নেমে এসেছে। নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ ধরে রাখতে যেখানে প্রয়োজন ৪ হাজার কিউসেক পানি, সেখানে এখন ব্যারেজ এলাকায় পাওয়া যাচ্ছে মাত্র আড়াই হাজার কিউসেক। গতকাল ব্যারেজের পয়েন্ট পানি প্রবাহ ছিল ২ হাজার ৩শ কিউসেক। পাউবো কর্মকর্তারা বলেছেন, পর্যাপ্ত পানির অভাবে তিস্তা ব্যারেজের সেচ কার্যক্রম ভেঙ্গে পড়বে। তাই আসন্ন সেচ মৌসুমে তিস্তার পানি হিস্যা জরুরি হয়ে পড়েছে। আর এক মাস পরই সেচ নির্ভর ইরি-বোরো ও রবি মৌসুম চাষাবাদ কার্যক্রম শুরু হবে। কৃষকের মতে, বোরো রোপণ থেকে গাছের শীষ হেলে না পড়া পযর্ন্ত সেচ প্রদানের মূখ্য সময়। সে পযর্ন্ত সেচ আবাদেও জন্য জরুরি। বিশেষ করে তিস্তা ব্যারেজ সেচ প্রকল্পের সেচের আওতাভুক্ত এলাকার কৃষক তিস্তার সেচকে অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ ও অর্থবহ বলে মনে করেন। সংশ্লিষ্ঠ সূত্রমতে, ব্যারেজে প্রকৃতপক্ষে পানির প্রয়োজন প্রায় ২০ হাজার কিউসেক। তিস্তা ব্যারেজ সেচ প্রকল্পে কর্তব্যরত ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহি প্রকৌশলী জানান, তিস্তা ব্যারেজের সেচের পানি দিয়ে আসন্ন সেচ নির্ভর বোরা আরো আবাদে লালমনিরহাট, নীলফামারী, রংপুর ও দিনাজপুরের প্রায় ৫৫ হাজার হেক্টর জমিতে সেচ দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে লালমনিরহাটে ২হাজার ৩শ, নীলফামারীতে ২৬ হাজার ৫শ, দিনাজপুরে ২ হাজার ও রংপুওে ২৪ হাজার ৫শ হেক্টর জমি। সূত্রমতে, সেচ প্রকল্পের পানিসহ তিস্তাকে বাচিয়ে রাঁখতে ন্যুনতম পানির প্রয়োজন প্রায় ২০ হাজার কিউসেক। অভিন্ন তিস্তার উজানে বিজনবিভই এলাকায় ভারত গজলডোবায় ব্যারেজ নির্মান করে ১৯৮৭ সাল থেকে তিস্তার পানি একতরফা প্রত্যাহার করে আসছে। তিস্তাকে বাচাতে পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়ে বাংলাদেশকে আরও সক্রিয় হতে হবে। দ্বিপাক্ষিয় আলোচনায় কাজ না হলে পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়ে প্রয়োজনে বিশ^ জনমত গড়ে তোলার উদ্যোগ নিতে হেেব। পানি না থাকায় তিস্তায় সুবিধাভোগী জেলে ও মাঝি-মাল্লাদেও কষ্টের কথা স্বীকার করে রংপুর বিভাগীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হারুন অর রশিদ বলেন, যতটুকু পানি আছে, সেই পানি টুকু ব্যারেজের মাধ্যমে ক্যানেলে নেওয়ার পর তিস্তার বুকজুড়ে ধু-ধু বালুচর হওয়ায় তিস্তার সুবিধাভোগিদের কষ্ট চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। পানিই যেহেতু নদীর প্রান, তাই পানি না থাকলে এর সুবিধাভোগীরা বেকায়দায় পড়বে এাঁই স্বাভাবিক।

You must be Logged in to post comment.

    |     ভূঞাপুরে স্ত্রী কর্তৃক স্বামীর পুরুষাঙ্গ কর্তন স্ত্রী গ্রেফতার     |     মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সকে আন্তর্জাতিক মানের করা হবে -আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি     |     মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার থাকতে হবে           —- রাণীশংকৈলে এমপি সুজন     |     রাণীশংকৈলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত     |     ঝিকরগাছায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভা, চিত্র প্রদর্শনী ও দোয়া মাহফিল     |     ঝিকরগাছায় শব্দদূষণ বন্ধে অবস্থান কর্মসূচি ও ইউএনও’র নিকট স্মারকলিপি প্রদান     |     আটোয়ারীতে এমপি রেজিয়া ইসলাম এঁর মতবিনিময় সভা     |     গাংনীতে মুকুল সেবা সংস্থার উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত     |     উপজেলা নির্বাচনে মেহেরপুর সদরে ৫ জন ও মুজিবনগরে ৪ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন     |