ঢাকা, রবিবার, ২৭শে নভেম্বর ২০২২ ইং | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুর্নীতিবাজ শ্যামল হোসেনের খুঁটির জোর কোথায় ! গাংনী উপজেলা বিএডিসি প্রকৌশলী শ্যামলের ঘুষ বানিজ্যের দৌরাত্মে চাষীরা দিশেহারা

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম মেহেরপুর জেলা প্রতিনিধি : গাংনী উপজেলা বিএডিসির উপ সহকারী প্রকৌশলী শ্যামল হোসেনের দুর্নীতি ও ঘুষ বানিজ্যের দৌরাত্মে চাষীরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে।টাকা ছাড়া ােন কাজ হয়না এই অফিসে। কে এই শ্যামল। তার খুঁটির জোর কোথায়! এসব খুঁজতে উপজেলা বিএডিসি অফিসের অনিয়ম , দুর্নীতির সাথে জড়িত শ্যামল ও তার দোসরদের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। অফিসে বেশীরভাগ সময় শ্যামল হোসেনের উপস্থিতি না থাকলেও পিয়ন কাম ঝাড়ুদারের (মহিলা) হাব ভাব দেখে মনে হয় তিনিই অফিসের কর্তাবাবু। আসলে বিএডিসি অফিসের কর্মকর্তা কে তা বোঝার উপায় নেই। ঝাড়ুদার মহিলাই যেন সব। অর্থ লেনদেনের াজটি অনেক সময় শ্যামল উক্ত মহিলার মাধ্যমে করে থাকে বলে জানা গেছে।
বিএডিসি কর্তৃক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে সেচ পাম্প দেয়ার কথা থাকলেও গাংনী উপজেলা প্রকৌশলী শ্যামল হোসেন ২০২১-২২ ইং অর্থ বছরে কৃষকদের নিকট থেকে সেচ পাম্প দেয়ার বিনিময়ে চলতি বছরে ৭০ থেকে ৮০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, শ্যামল হোসেন গাংনী যোগদানের পর থেকে গ্রামের কতিপয় দালালের যোগসাজশে সিন্ডিকেট গড়ে তুলে অর্থ বাণিজ্য চালিয়ে আসছে। কৃষকদের মাঝে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সেচ পাম্প দিয়ে থাকে। লাইসেন্স অনুমোদনের ক্ষেত্রে সরকারী বিধি বিধানের তোয়াক্কা না করে স্কীম দিয়ে থাকেন।এক স্কীমের মধ্যে টাকার বিনিময়ে নতুন লাইসেন্স দিয়ে চাষীদের সাথে প্রতারণা করে যাচ্ছেন। এসব কারনে সেচ পাম্প স্থাপন নিয়ে চাষীদের মাঝে চাপা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। যে কোন সময় বিরোধের জেরে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে।
অপর দিকে ঠিকাদারের সাথে অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে সিডিউল মোতাবেক কাজ না করে ঠিকাদারকে ছাড়পত্র দিয়ে থাকে। কাজ অসম্পূর্ণ থাকায় সিমেন্ট দিয়ে ঢালাই না দেওয়ায় সরকারের লক্ষ ল্ক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হচ্ছে। পরবর্তীতে স্কীমগুলি অকেজো হয়ে পড়ে থাকে। আবার স্কীমগুলি দেখভাল করার কথা থাকলেও শ্যামল কখনও চাষীদের সাথে যোগাযোগ করে না। ট্রান্সফর্মার পুদে গেলে, চুরি হয়ে গেলে বা কারিগরী ত্রুটি দেখা দিলে গাংনী বিএডিসি কর্তৃক কোন সহযোগিতা করা হয়না। প্রতিনিয়ত তার নিয়োজিত দালালদের সাথে নিয়ে নতুন স্কীম পাশ এবং টাকা কালেক্শনের জন্য ব্যস্ত থাকে।
সাবেক ম্যানেজারগন এসব ব্যাপারে অভিযোগ করলে বিভিন্ন ভাবে স্কীমের ক্ষতি সাধন করে থাকে। বিশ্বস্ত সূত্রে এমনও অভিযোগ রয়েছে যে, সম্প্রতি বিভিন্ন মাঠে যে সেচ পাম্প চুরি হচ্ছে , তার পিছনেও শ্যামল চক্রের হাত রয়েছে। এমনকি প্রতিনিয়ত সে সব দালালদের সাথে চায়ের আড্ডায় সময় কাটাচ্ছেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সেচ পম্প কমিটির সভাপতি মৌসুমী খানম বরাবর লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার হাড়াভাঙ্গা গ্রামের গোলাম মোস্তফার নিজ স্কীমের মধ্যে ৫শ.ফুট দুরত্বে লাল্টু মিয়া নামের একজনকে অবৈধ লেনদেনের মাধ্যমে লাইসেন্স প্রদান করেছেন। মহাম্মদপুরের সাইদুর রহমান ৫ কিউসেক পাওয়ার পাম্পের জন্য নগদ ৬ লাখ টাকা প্রদান করলেও অবৈধ টাকার বিনিময়ে উক্ত স্কীমের ৬শ. ফুটের মধ্যে লিয়াকত আলীকে ২ কিউসেক পাওয়ার পাম্প বসানো হয়েছে। মহাম্মদপুর গ্রামের আহসান হাবীবের স্কীমে ভূগর্ভস্থ সেচ নালা নির্মাণ করা হয়েছে। রাইজার ভাল্ব ও আউট লেট নির্মাণের সময় সিসি ঢালাই ও আরসিসি ঢালাই না করে ঠিকাদারের সাথে অর্থ ভাগাভাগি করে বিল প্রদান করেছে। নিম্নমাণের কাজের কারনে যে কোন সময় আউট লেট ও রাইজার ভেঙ্গে পড়তে পারে। একই ভাবে মহাম্মদপুরের আলী আযম,ভরাটের জিল্লুর রহমান, হোগলবাড়ীয়া গ্রামের আবু সিদ্দিক এর স্কীমে অনুরুপভাবে নিম্নমানের কাজ করে বিল প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও ভোলাডাঙ্গা গ্রামের ওসমান আলীর স্কীমের মধ্যে মাত্র ৩ শ’ ফুটের মধ্যে অবৈধভাবে অর্থ লেন দেন করে আম্বিয়া মেম্বরকে লাইসেন্স প্রদান করে।পরবর্তীতে আম্বিয়ার টাকা ফেরত দেবে মর্মে ওসমান গনির নিকট থেকে ৬০ হাজার টাকা ঘুষ নেয়।একইভাবে ভোলাডাঙ্গা গ্রামের নাজমূল হোসেনের নিকট থেকে রারিক পাইপ নির্মাণের জন্য ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহন করে।অভিযোগ কারীরা আরও জানান, এসব অনিয়ম দুর্নীতিকে ধামা চাপা দিতে ও ম্যানেজ করতে প্রতি মাসে দালালের মাধ্যমে হলুদ খামে উপজেলার শীর্ষ পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতাদের কাছে টাকার বান্ডিল পৌছে দেয় দূর্নীতিবাজ শ্যামল হোসেন।
অভিযোগ কারীরা জানান, ৫ কিউসেক পাওয়ার পাম্পের জন্য ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা, ২ কিউসেক পাওয়ার পাম্পের জন্য ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা, ১ কিউসেক পাওয়ার পাম্পের জন্য ২ থেকে ২ ৫০ হাজার লাখ টাকা, বারিক পাইপ বর্ধিতকরণ বাবদ ১ লাখ টাকা থেকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা, অবৈধ লাইসেন্স প্রদান বাবদ ১ লাখ টাকা এবং বৈধ লাইসেন্স প্রদানের জন্য ২০ থেকে ৬০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ নিয়ে থাকেন।এসব ব্যাপারে ইতোমধ্যেই তার অনিয়ম দুর্ণীতির বিরুদ্ধে মানববন্ধন করা হয়েছে।
এসব অভিযোগকারীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এবং মোবাইল ফোনে হুমকি ও ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এমনকি তিনি বলছেন তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলে ম্যানেজারদের বাদ দিয়ে নতুন ম্যানেজারদের দায়িত্ব দেয়ার হুমকি দেয়।
এব্যপারে উপজেলা উপ সহকারী প্রকৌশলী শ্যামল হোসেনের সাথে অভিযোগের বিষয়ে জানতে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।

You must be Logged in to post comment.

দেরীতে হলেও ৮৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকানন পরিচর্যার উদ্যোগ প্রশংসনীয়     |     ফুলবাড়ীতে বিনামুল্যে আইন সহায়তা পেতে লিগ্যাল এইড কমিটির উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক সমন্বয় সভা।     |     নবাবগঞ্জে মানবতার কল্যাণে মানবিক দেওয়ালের যাত্রা শুরু     |     এক গৃহবধু’র লাশ রেলষ্টেশনের সীমানা রেলিং-এ ঝুলছিল, নানা গুঞ্জন, হত্যা না আত্মহত্যা!     |     মেহেরপুরের গাংনীতে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে অটোভ্যান চালকের মৃত্যু     |     নিখোঁজের দুইদিন পর নদীর পাড়ে মিলল গৃহবধুর মরদেহ     |     বিয়ে বাড়িতে দাওয়াত খাওয়াকে কেন্দ্র করে ডাসারে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ \ মহিলাসহ আহত-২৫     |     টাঙ্গাইলে বারোমাসী মহৌষধী ‘ননী ফল’ বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে     |     আগামী মাসেই ব্যাংকগুলোর ডলার সংকট দূর হবে। –এফ সালমান রহমান     |     টাঙ্গাইলে প্রাণবন্ত বিশ্বকাপ ফুটবল     |