ঢাকা, শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি ২০২৩ ইং | ১৪ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেওপাড়া বাসীর প্রাণের দাবী নরকা খাল

রবিউল আলম বাদল ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি : একটি খাল খননের অভাবে বিলের নামা জমি এখন কৃষকের গলার কাটা হয়ে দাড়িয়েছে। বর্ষায় জমে থাকা পানি নামছে না কোন ভাবেই। বোরো ধানের বীজতলা তৈরী করতে পারছেনা কৃষক। প্রায় একযুগ ধরে অনাবাদি কয়েক হাজার বিঘা ধানের জমি। এ সবের একমাত্র কারন নরকা খাল। উপজেলা থেকে বয়ে আসা আশেপাশে বিলের পানি নিষ্কাশনের একমাত্র মাধ্যম এ খাল। খননের অভাবে খালটি এখন কৃষকের দুঃখে রূপ নিয়েছে। এটি রয়ে গেছে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার দেওপাড়া ইউনিয়ন দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে খালটি খননের দাবী করছেন চাষীরা।

জানা যায়, নরকাখালের উৎপত্তি ঝিনাই নদী থেকে। হামিদপুর ফটিকজানী ঝিনাই নদী হইতে বাগুন্তা হয়ে নারাঙ্গাইল জোয়াল ডাঙ্গা বিল, মেগাবিল, গুয়াপচাবিল হয়ে সাটুরিয়া দেওপাড়া, তালতলা, সরাসাক বাদে আমজানী হইয়া গোলাবাড়ী এলাকায় গিয়ে মিলিত হয়েছে বংশাই নদীতে। যার দৈর্ঘ্য প্রায় ৮ কিলোমিটার। এলাকাবাসী জানায় বর্ষা মৌসুমে দেওপাড়া, ধলাপাড়া, দিগর ইউনিয়নের প্রায় ৪০ গ্রামের বৃষ্টির পানি জমা হয় এইসব বিলে। আর বিলের পানি নিষ্কাশন হয় নরকা খাল দিয়ে। নরকা খালটি একসময় ছিল ছোট খাটো নদীর মতো। প্রায় ছিল প্রায় ৪০ থেকে ৫০ ফুট। বড় বড় নৌকা চলতো এই খাল দিয়ে। বর্তমানে ডিঙ্গি নৌকা চলতে পারেনা সরকারী উদ্দ্যোগে প্রায় ৩০বছর আগে একবার খালটি খনন করা হয়। এরপর পলি মাটি পরে ভরাট হয়ে গেছে। আগ্রাসী ভূমিকায় খালের দুই পারের জমির মালিক ও চেপে ধরেছে। কোনো কোনো স্থানে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। দৃশ্যমান কোথাও ৫ ফুট। আবার কোথাও ৬/৭ ফুট। খাল নয় যেন সরুনালা। মাঝে মধ্যেই দখলদারের কারনে অস্তিত্ব সংকটে।

সরজমিন মেঘা বিলে গিয়ে দেখা যায় বোরো ধানের বীজতলা তৈরী সময় প্রায় শেষের দিকে হলেও বীজ তৈরীর জমিতে এখনো হাটু পানি। বীজ সংকটের কারনে বাধাগ্রস্থ হবে বোরো চাষ। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আমন চাষও। দীর্ঘদিন ধরে খালটি খননের দাবী জানিয়া আসছেন কৃষকরা। বেশকিছুদিন আগে এলাকার ৩০০ কৃষকের স্বাক্ষরিত একটি আবেদন উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর দেওয়া হয়েছে।

দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন (হিপলু) জানায় প্রতিনিয়ত এলাকার কৃষক তার বাড়ীতে ভিড় জমান। কিছু একটা করে দিতে বলে তাকে। কৃষকের দুঃখ কষ্টে দেখে খাল খননের বিষয়ে মাসিক সমন্বয় সভায় একাধিকবার উপস্থাপন করা হয়েছে। কিন্তু কোন সুরাহা পাই নাই। তার পরেও বোরো চাষে ব্যহত হওয়ার আশাংকায় আমি গত সোমবার খাল খননের অনুমতি ও বরাদ্দ চেয়ে স্থানীয় এমপি বরাবর আবেদন করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষনা করেছেন ১ ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদী না থাকে, সেই লক্ষে প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় প্রশাসন এবং স্ব স্ব কর্তৃপক্ষের কাছে আমার জোর দাবি এলাকার কৃষক বাঁচার স্বার্থে খালটি যেন অতিদ্রুত খননের ব্যবস্থা করা হয়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দিলশাদ জাহান জানান, কৃষক বীজ তৈরী করতে পারছেনা। পানিতে ধান তলিয়ে যায়। প্রতিবছর অনাবাদি থাকে অনেক জমি এসব বিষয় তার জানা। খালটি খননের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে এরই মধ্যে স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েছেন তিনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনিয়া চৌধুরী জানান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে কৃষি জমিতে জলাবদ্ধতার বিষয়টি জানেন তিনি। ইতিমধ্যে খাল খননের বিষয়ে চেয়ারম্যানকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

You must be Logged in to post comment.

আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া     |     গাংনীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৩ জন আহত     |     রানীশংকৈলে  ৩’শত মন্ডবে পালিত হলো বিদ্যা ও জ্ঞানের দেবী সরস্বতী পুজা      |     পঞ্চগড়ে ৫ শতাধিক অসহায় ও দুস্থদের মাঝে যুবদলের শীতবস্ত্র বিতরণ     |     ফুলবাড়ীতে করোনার চতুর্থ ডোজ গ্রহনে আগ্রহ কম,নেই প্রচার প্রচারোনা।     |     ঘাটাইলে ইটভাটায় পুড়ছে বনের কাঠ     |     পঞ্চগড়ে ট্রাক্টর উল্টে নিহত ১, আহত ২     |     ঝিকরগাছায় দীর্ঘপ্রতিক্ষার পর কমিটি পেল পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ     |     দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ না করার শর্তে ক্ষমা পেলেন ষোলটাকা ইউপি চেয়ারম্যান পাশা     |     পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধায় পালিত হল আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস     |