ঢাকা, সোমবার, ৪ঠা মার্চ ২০২৪ ইং | ২১শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয় আমাদের একমাত্র লক্ষ্য নয়। আমাদের রাজনৈতিক যুদ্ধেও বিজয় অর্জন করতে হবে। –নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি।

এম,এ কুদ্দুস, বিরল ( দিনাজপুর) প্রতিনিধি : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এম.পি বলেছেন, বাংলাদেশে প্রায় ৪৬টি রাজনৈতিক দল নিবন্ধিত আছে। সকল রাজনৈতিক দল তাদের অবস্থান থেকে দেশ ও জনগণের কল্যাণে পরিকল্পনা অনুযায়ী রাজনীতি করবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আমরা কি দেখেছি, জামায়াত-বিএনপি স্বাধীনতা বিরোধীরা ৭৫ এ বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করার পর এদেশে বঙ্গবন্ধু কথাটি বলা নিষিদ্ধ করে দিয়েছিলো। মানুষের মুক্তির শ্লোগান, জয় বাংলা নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো। মুক্তির গানগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো। বাংলাদেশে মুক্তিযোদ্ধাদের বেছে বেছে হত্যা করা হয়েছে। সামরিক ও রাজনৈতিক ভাবে এবং আওয়ামীলীগের উপরে জেল, জুলুম, হত্যা, গুম, গ্রেনেড হামলা, অত্যাচার ও নির্যাতন করা হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত স্বাধীনতা বিরোধীরা সরকারি পৃষ্টপোষকতায় ২০০১ হতে ২০০৬ সাল পর্যন্ত আওয়ামীলীগের ২৬ হাজার নেতা কর্মীকে হত্যা করেছে। শত প্রতিকুলতার মাঝেও আওয়ামীলীগ কখনো দেশের মানুষকে ছেড়ে যায় নাই। কখনো যাবেনা। আমরা দেখেছি, ৭৮ সালের নির্বাচনে যে হ্যা না ভোট করা হয়েছিলো, একটি মাত্র ব্যলট পেপার ২টি বাস্কে ফেললেই ভোট হয়ে গেছে। হ্যা না যেটাতেই ভোট দেন না কেন, হ্যা জয়যুক্ত হবে। এ ছিলো ভোটের প্রক্রিয়া। পীৃথিবির ইতিহাসে এর থেকে তামাশার ভোট আর হতে পারে না। এমন ভোট জেনেও এমন প্রতিকুল অবস্থায় আমরা সেই ভোটে অংশ গ্রহন করেছি জয় বাংলা ও আওমীলীগকে রক্ষা করার জন্য এবং জনগনের কাছে যাবার জন্য। ৭৫ এর দূঃশাষন এবং পরবর্তীতে দেশ বিরোধী কর্মকান্ডগুলি জনগনের কাছে গিয়ে জানিয়েছি। তা না করা হলে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠন আওয়ামীলীগকে নিশ্চিহৃ করে দেয়া হত।
বৃহস্পতিবার সকালে বিরল টিএন্ডটি রোড সংলগ্ন সেলু মিয়ার চাতালে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে উপজেলা আওয়ামীলীগের বিশেষ যৌথ বর্ধিত সভায় নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয় আমাদের একমাত্র লক্ষ্য নয়। আমাদের রাজনৈতিক যুদ্ধে বিজয় অর্জন করতে হবে। মনে রাখতে হবে দেশ বিরোধী স্বার্থবাদী গোষ্ঠী সন্ত্রাসকে লালন করার দল বিএনপি নির্বাচন বর্জনের নামে বাংলাদেশে সন্ত্রাস তৈরী করতে পারে। জনগণকে ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য ইতিমধ্যে তারা ভয়ভীতি দেখানো শুরু করেছে। তারা নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্র করছে। তাদের সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত কওে আমাদের রাজনৈতিক বিজয় অর্জন করতে হবে।
তিনি আরো বলেন, ৭৯ সালের নির্বাচনে মাত্র ৩৯টি সিট আমাদের দেয়া হয়েছিলো বিশ্বের কাছে হেয় করা হয়েছিলো। তার পরেও আমরা নির্বাচনে অয়শগ্রহন করে ৩০০ আসনেই জনগণের সাথে কথা বলেছি। সেদিন আমরা বিজয়ী হওয়ার জন্য নির্বাচন করি নাই জনগণের সামনে রাজনৈতিক বক্তব্য গুলি দেয়ার জন্য এবং বাংলাদেশকে রক্ষা করার জন্য সেই নির্বাচন গুলিতে অংশগ্রহন করেছি। সেই সময় বিরোধী মতাদর্শের তদানিন্তন অধ্যাপক ইব্রাহিম দৈনিক সংবাদে একটি কলাম লিখেছিলেন মহান সংসদে আওয়ামীলীগের ৩৯জন সংসদ সদস্য মুজিব কোট পরে মহান সংসদের প্রবেশের মধ্যে দিয়ে প্রমানিত হলো বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা যায় নাই। আমরা বিভিন্ন প্রতিকুলতার মধ্যে দিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছি। জনগনের কাছে গিয়ে তুলে ধরেছি যে, বঙ্গবন্ধু হতাকান্ড কেন ঘটানো হয়েছে। কেন এই হত্যাযজ্ঞ। কেন বাংলাদেশ নিয়ে এই তামাশা। কেন আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বিনষ্ট করে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী সমাজ ও রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে এস্টাবলিশ করার চিন্তা করা হচ্ছে। আমরা তার জন্য লড়াই করেছি। আমরা ৮৬ সালে জয়যুক্ত হবার পরেও ৫০ জন সংসদ সদস্যকে রেডিও এবং টেলিভিশনে ঘোষণা দিয়ে হারানো হয়েছিলো। সেই সংসদে আমরা সামরিক বিরোধী বিল উত্থাপনের পরেই সেই সংসদ ভেঙ্গে দেয়া হয়েছিল। ৯০ এর গণভ’ত্থানের পরে ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রæয়ারী যে নির্বাচন হয়েছিল, সেই নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিজয় দেখার জন্য সমগ্র দেশবাসি ও পৃথিবি অপেক্ষা কর ছিলো। সেইদিন অপ্রচার করে ভারতের সীমান্ত খুলে দিয়ে ভারতীয়দের বাংলাদেশে ঢুকানো হয়েছে, নৌকা মার্কার পক্ষে ভারতীয়রা নির্বাচন করছে। এমন জুজুবুড়ির ভয় দেখিয়ে আমাদের পরাজিত করা হয়েছে। যে বিষয়টি দেশে এবং তাবত দুনিয়ায় বিশ্বাসযোগ্য হয়নি। সু² কারচুপির মধ্যদিয়ে আমাদের হারানো হয়েছিল। ৭৫ হতে ৯০ সাল পর্যন্ত যে সরকার চলেছে। আওয়ামীলীগ ও মুক্তিযুদ্ধ চেতনা বিরোধী প্রশাসন যন্ত্রের মাধ্যমে একটি কাঠামো তৈরি করা হয়েছিল। আওয়ামীলীগ যেন কখনো বিজয়ী হতে না পারে সেই রুপ রেখা তারা তৈরী করেছিলো। ৯৬ সালে আমরা ক্ষমতায় গিয়ে জনগণের জন্য এবং দেশের জন্য কিছু করতে পেরেছি। ৯৬ হতে ২০০১ সাল ছিলো ৭৫ পরবর্ত্তী স্বর্ণযুগ। বাংলাদেশে ৭৫ পরবর্ত্তী কোন সরকার শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর কওে নাই। জিয়াউর রহমান হত্যা কান্ডের শিকার হয়েছেন,সাত্তারের কাছ থেকে এরশাদ ক্ষমতা কেড়ে নিয়েছে,৯০এর গণঅভ্যুত্থান মধ্যে দিয়ে এরশাদের পতন হয়েছে। ৯৬ এর গণলভ্যুত্থানের মধ্যেদিয়ে খালেদা জিয়ার পতন হয়েছে। কোন সরকার শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করে নাই। বাংলাদেশে প্রথম ইতিহাসে শেখ হাসিনা গণভবনে শান্তিপূর্ণ ভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করেছিলেন। সেদিন ক্ষমতা হস্তান্তর করার সাথে সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাড়ীর টেলিফোন লাইন কেটে দেয়া হয়েছে, পানির লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে। ১৩ জন সরকারি সচিবকে বদলী করে দেয়া হয়েছে। যদিও এটি তত্বাবোধায়ক সরকার করতে পারে না তারা তার পরেও তারা করেছে। এর পর আবারাও ষড়যন্ত্র করে আওয়ামীলীগকে হারিয়ে দিয়ে হাওয়া ভবন তৈরি করে একটি বিকল্প সরকার ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। শায়খ আব্দুর রহমান, বাংলা ভাই তৈরী করে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ কায়েম করা হয়েছিলো। দেশে সার, বীজ কীটনাশকের সংকট তৈরী করে কৃষকদের সর্বশান্ত করে দেয়া হয়েছিলো। ২০০৭ সালে ১/১১ তে যে সরকার আসলো সে সরকার এসে প্রথম আওয়ামীলীগের উপরে হামলা শুরু করে দিলো। নাসিমকে ও কামাল মুজুমদারকে তাদেও বাড়ী থেকে তুলে আনা হয়েছিলো। জননেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে চাঁদা দাবী করার মিথ্যা মামলা দিয়ে দানবীয় কায়দায় গ্রেফতার করা হয়েছিলো। অপরাধ করলো খালেদা-নিজামী, তারেকসহ ৪ দলীয় জোট। আর গ্রেফতার করা হলো জননেতত্রী শেখ হাসিনা কে। যখন বাংলার এই ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে শুরু করলো। তখন খালেদা জিয়া বরযাত্রী বেশে স্পিকারের বাস ভবনে রাখা হলো। সেই সময় মঈন উদ্দীন, ফখরুদ্দীন সরকার খালেদা জিয়া কি খাবে কথায় শুবে সেই নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। আপনারা এসব সেসময় পত্র পত্রিকায় দেখেছেন। সেই সময় আমরা জনগণের পাশে থেকে দেশ ও জণগণের কথা বলেছি। আর খালেদা জিয়া নিজের স্বার্থ নিয়ে ২ বছরে মাত্র একটি কথা চোখের পানি ফেলতে ফেলতে বলেছিলেন তোমরা আমার ছেলে তারেক জিয়াকে বিদেশে পাঠিয়ে দাও। সে আর কখনো রাজনীতি করবেনা। সে কখনো বাংলাদেশে আসবে না। জনগণের পক্ষে একটি কথাও বলেন নাই। তার ঝেলে তারেক জিয়া মুচলেকা দিয়ে বাংলাদেশ ছেড়ে চলে গেছে। বাংলাদেশের মানুষের পক্ষে সব সময় আওয়ামীলীগ লড়াই করেছে, সংগ্রাম করেছে। বলেই দেশের জনগণ তাদের মমতা ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা দিয়ে ২০০৮ সালে ২৯ ডিসেম্বর আওয়ামীলীগের নৌকা ভরিয়ে দিয়েছে। তার পরে সরকারের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ বদলে গেছে। এই বদলে যাওয়া বাংলাদেশের রুপকারের নাম হচ্ছে জননেত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা। বদলে যাওয়া রাজনৈতিক দলের নাম আওয়ামীলীগ ও এই বদলে যাওয়া বাংলাদেশের প্রতীকের নাম হচ্ছে নৌকা।
বিরল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র আলহাজ্ব সবুজার সিদ্দিক সাগরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রমাকান্ত রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন, এড, রবিউল ইসলাম রবি (পি,পি), সহ সভাপতি সারোয়ারুল ইসলাম বাবলু, আলহাজ্ব আক্তার হোসেন, লুৎফর রহমান লুতু, অধ্যপক আল আমিন, আব্দুস সবুর, সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল লতিফ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল আজাদ মনি, বিভুতি ভুষন রায়, লায়লা আরজুমান্দ বানুসহ উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

You must be Logged in to post comment.

রাধানগর হাজী সাহার আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা     |     দেবর-ভাবির দ্বন্দ্বে জাপার দুর্গ বলে খ্যাত  রংপুরে নেতিবাচক প্রভাব      |     রংপু‌রের তারাগ‌ঞ্জে আলুর ক্ষেত তামা‌কের দখ‌লে      |     ঝিকরগাছায় কিশোর-কিশোরী ক্লাবের বার্ষিক ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ     |     আনন্দ উদ্দীপনার ঝিকরগাছা রিপোর্টার্স ক্লাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও বনভোজন     |     গাংনীতে আদালতের রায় পাওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের রায় বাস্তবায়নের আবেদন করা হলেও হয়রানি করতে যাচাই-বাছাইয়ের নামে প্রহসন: মুক্তিযোদ্ধাদের বয়কট     |     জরাজীর্ণ ঘরে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস, মেঘ দেখলেই দিশেহারা আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দারা     |     ঘাটাইলে আলহাজ্ব শামসুর রহমান খান শাহজাহান স্মৃতি শিক্ষা বৃত্তি ও পুরুস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত।      |     মেহেরপুরে জাতীয় ভোটার দিবস পালন উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত     |     ঝিনাইদহে বিএনপি’র কারামুক্ত নেতাকর্মীদের সংবর্ধনা প্রদান     |