ঢাকা, রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ইং | ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নদী ভাঙনে তিস্তাপাড়ের মানুষ দিশেহারা

মোঃ রেজাউল করিম, লালমনিরহাট। বন্যার পানি কমে যাওয়ায় তীব্র ভাঙনে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিস্তাপাড়ের মানুষ। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রæতির তিস্তা মহাপরিকল্পনা দ্রæত বাস্তবায়ন চান তারা। জানা গেছে, ভারতের সিকিম ও পশ্চিমবঙ্গের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার পর নীলফামারী জেলার কালীগঞ্জ সীমান্ত হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে ঐতিহাসিক এ তিস্তা নদী। যা লালমনিরহাট, নীলফামারী, রংপুর ও গাইবান্ধা জেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী বন্দর হয়ে ব্রক্ষপুত্র নদের সঙ্গে মিশেছে। নদীটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৩১৫ কিলোমিটার হলেও বাংলাদেশ অংশে রয়েছে প্রায় ১২৫ কিলোমিটার।
গজলডোবায় বাঁধ নির্মাণ করে উজানের প্রতিবেশী দেশ ভারত সরকার একতরফা তিস্তার পানি নিয়ন্ত্রণ করায় বর্ষা শেষেই বাংলাদেশ অংশে তিস্তা মরুভূমিতে পরিণত হয়। বর্ষাকালে বন্যা আর নদী ভাঙগনের মুখে পড়ে তিস্তাপাড়ের মানুষ। ভাঙন ও প্রবল স্রোতে ভেসে যায় ফসলি জমি বসতভিটাসহ সকল স্থাপনা। দিশেহারা হয়ে পড়ে নদীপাড়ের মানুষ।
গত সপ্তাহের টানা দুই দিনের বন্যায় পানিবন্দি হয়ে পড়ে নদীপাড়ের কয়েক হাজার পরিবার। পানিতে ডুবে নষ্ট হয়েছে শত শত হেক্টর জমির ফসল। বন্যার পানি কমে গেলে ভাঙনের মুখে পড়ে তিস্তাপাড়ের মানুষ। প্রতিনিয়তই ভাঙছে তিস্তার বামতীরের বসতবাড়ি, আবাদি জমি আর স্থাপনা। চোখের সামনে ভেসে যাচ্ছে আসবাবপত্রসহ বাড়ির জিনিসপত্র। কান্নার রোল পড়েছে নদীপাড়ে।
বসত ভিটাহারা পরিবারগুলো ঘর ভেঙে নিয়ে সড়কের ধারে বা বাঁধের পাশে রেখেছেন। নতুন করে মাথা গোঁজার ঠাঁই করতে না পেয়ে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন যাপন করছেন ভাঙনের শিকার পরিবারগুলো। সরকারী ভাবে সহায়তা করতে তালিকা করা হলেও তা এখন পর্যন্ত সহায়তা দেয়া হয়নি। এরই মধ্যে প্রতি মুহুর্তে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের তালিকা দীর্ঘ হচ্ছে।
সব থেকে বেশি ভাঙনের মুখে পড়েছে আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের সলেডি স্প্যার বাঁধ ২ এর ভাটিতে থাকা গোবর্দ্ধন ও গরিবুল্লাটারী গ্রামে। সোমবার(২৮ আগস্ট) দিনগত রাত ৩টায় ওই স্প্যার বাঁধ সংলগ্ন ভাটিতে তীব্র ভাঙন দেখা দেয়। গ্রামবাসী ঘুম থেকে উঠেই ৩টি বাড়ি অন্যত্র সড়িয়ে নেন। ভাঙনের মুখে পড়ে শত শত পরিবার মসজিদসহ স্থাপনা। দ্রæত ভাঙন রোধ করা না গেলে সলেডি স্প্যার বাঁধটিও বিলিনের শ্বঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।
গত সোমবার রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে ছিলেন রবিউল, ভুট্টু ও ইয়াকুব আলীর পরিবার। ভোর না হতেই বসত ভিটা বিলিন হলো তাদের। মাথা গোঁজার ঠাঁই মিলেনি এ ৩ পরিবারের। খবর পেয়ে ভাঙন এলাকা পরিদর্শনে যান আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) জি আর সারোয়া ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মফিজুল ইসলাম। এসময় ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তায় ও ভাঙন রোধে জরুরী ব্যবস্থা নেয়া আশ্বাস দেন ইউএনও।
জন্মলগ্ন থেকে খনন না করায় তলদেশ ভরাট হওয়া তিস্তা নদী খনন করে দুই তীরে স্থায়ী বাঁধ নির্মানের দাবি তিস্তাপাড়ের মানুষের। দীর্ঘ দিনের এ দাবি পুরনে প্রতিশ্রæতি দিয়ে তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী এ আশ্বাস দ্রæত বাস্তবায়ন চান তিস্তাপাড়ের সম্বলহারা নিঃস্ব মানুষগুলো।
ভাঙনের শিকার রবিউল ইসলাম, ভুট্টু ও ইয়াকুব আলী বলেন, মাঝরাতে ঘুম থেকে উঠে ঘরবাড়ি খুলে নিয়ে রাস্তায় রেখেছি। চোখের সামনে অনেক জিনিস ভেসে গেছে। সন্তানদের নিয়ে সড়ে এসেছি। ভাঙন রোধ করা না গেলে স্প্যার বাঁধও বিলিন হবে। আমরা তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন চাই।

You must be Logged in to post comment.

লালমনিরহাটে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে মাদ্রাসা ছাত্র নিহত     |     ২৪শ পিছ ট্যাপেন্ডাডল ট্যাবলেটসহ ২ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার     |     গাংনীতে অবৈধভাবে নদীর মাটি কেটে বিক্রি। প্রশাসনকে অবহিত করার পরও নেয়া হয়নি ব্যবস্থা     |     পার্বতীপুরে ট্রেন লাইনচ্যুতির  ৯ ঘন্টা পর উত্তরবঙ্গে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক      |     রংপুর বিভাগীয় প্রাক-বাজেট আলোচনা সভা অনু‌ষ্ঠিত     |     মেহেরপুরে মাদকসহ পাঁচারকারি গ্রেফতার : র‌্যাবের ব্রিফিং     |     জমকালো আয়োজনের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হলো  ঢাকায় অবস্থিত ফুলবাড়ীবাসির মিলনমেলা      |     ঝিকরগাছা থানার দু’এএসআইসহ এক কনস্টেবলের বিদায় সংবর্ধনা     |     ঝিকরগাছায় পেন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কিশোরীদের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত     |     স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে চাই: এমপি শিমুল     |