ঢাকা, শুক্রবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নীলকরদের অত্যাচার নির্যাতনের কালের স্বাক্ষী ভাটপাড়া নীলকুঠি গাংনীর ভাটপাড়া নীলকুঠি এখন ডিসি ইকো পার্ক । পর্যটন-বিনোদন কেন্দ্র।

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম মেহেরপুর জেলা প্রতিনিধিঃ অযতœ-অবহেলায় আর রক্ষণাবেক্ষনের অভাব আর প্রভাবশালীদের ইন্ধনে সভ্যতার স্মারক মেহেরপুরের গাংনীর ভাটপাড়া নীলকুঠির বেশীরভাগ জায়গা (জমি) দখলমুক্ত করে বর্তমানে ডিসি ইকো পার্ক নির্মিত হয়েছে। দীর্ঘদিন কুঠি ভবনের ইট ও মুল্যবান পাথর খুলে নেয়া ছাড়াও অন্ততঃ ১০ একর জমি জবর দখল করে চাষাবাদ করছিল স্থানীয় প্রভাবশালীরা।
জানা যায়, গাংনী উপজেলার অদূরে সাহারবাটি ্ইউপির অন্তর্গত ভাটপাড়া গ্রাম। গাংনী-কাথুলী পাকা সড়ক সংলগ্ন স্থানে ভাটপাড়া নীলকুঠি অবস্থিত। আনুমানিক ১৮১৮ থেকে ১৮১৯ সালের দিকে নয়নাভিরাম কাজলা নদীর কোল ঘেসে সবুজ শ্যামলে ঘেরা ৭৭ ্একর জমির উপর গড়ে তোলা হয় ঐ নীলকুঠিবাড়ি।এটি একটি ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থান। তৎকালীন ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর নীল ব্যবসায়ীদের অত্যাচারে দিশেহারা ছিল এদেশের নীল চাষীরা। কথিত রয়েছে, এলাকার সহজ সরল চাষীদের ধওে এনে কুঠিবাড়িতে অবর্ণনীয় অত্যাচার নির্যাতন করা হত। এক সময়ে নির্যাতিত চাষীরা দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার কারণে বাংলার বুক থেকে নীল চাষ নিশ্চিহ্ন হয়ে গেলেও নীলকরদের সেই অত্যাচার নির্যাতন ও শোষনের স্মুতি নিয়ে কালের স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে গাংনী উপজেলার সেই ভাটপাড়া নীলকুঠি।


তবে মেহেরপুর অঞ্চলে কথিত রয়েছে ১৭৭৮ সালে ক্যারল ব্লুম নামে এক ইংরেজ ব্যক্তি নীলকুঠি স্থাপন করেন। ভাটপাড়া নীলকুঠিটি কাজলা নদীর তীরে ২৩ একর জমির ওপর অবস্থিত। সাহেবদের প্রমোদ ঘর ও শয়ন রুম সংবলিত দ্বিতল ভবনটি জীর্ণ অবস্থায় দাঁড়িয়ে আছে। কাঁচারি ঘর, জেলখানা,মৃত্যুকুপ ও ঘোড়ার ঘর বিলুপ্ত হয়ে গেছে। দামি মার্বেল পাথর আর গুপ্তধনের আশায় এলাকার প্রভাবশালীদের ইন্ধনে সেগুলো ভেঙে ফেলা হয়েছে। দামি ও ফলজ বৃক্ষ হয়েছে নিধন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কালের স্বাক্ষী ভাটপাড়া কুঠি বাড়িতে এখনও অনেক পর্যটক আসলেও ধ্বংসাবশেষ দেখে হতাশ হয়েই ফিরতে হয়। দীর্ঘদিন পর প্রতœতাত্তিক বিভাগ কুঠিবাড়ির জায়গাটি দখলমুক্ত করে ডিসি ইকো পার্ক হিসাবে পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলা হয়েছে। এলাকাবাসীর দাবি পরাধীনতার শিকলে বন্দি থাকাকালিন শোষক এবং শাসকদের নির্যাতনের নির্মম স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক ভাটপাড়া নীলকুঠি সংরক্ষণে হতে পারে এক অনিন্দ্য সুন্দর দর্শনীয় স্থান। গড়ে তোলা যেতে পারে একটি সুন্দর পর্যটন কেন্দ্র। ইতোমধ্যে ঐতিহ্যবাহী নীলকুঠির বিলুপ্ত প্রায় অবকাঠামো কিয়োদাংশ সংস্কার করা হয়েছে।
এব্যাপারে স্থানীয় ্ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক জানান, বিনোদন প্রেমিদের জন্য অনেক খেলাধূলার সামগ্রী সংযোজন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও আকর্ষনীয় করতে ডিসি মহোদয় আশ্বস্ত করেছেন। বিভিন্ন উৎসবে হাজার হাজার দর্শক বিনোদন পেতে পার্কে ভীড় করে থাকে। এই জায়গাটি আরও সুন্দর ও বিনোদন প্রেমিদের কাছে আকর্ষনীয় করতে সরকারের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে ৯মাস থেকে উপবৃত্তির টাকা পায়নি প্রাথমিকের সাড়ে ১৭০০ শিক্ষার্থী।     |     ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনিকল রক্ষায় প্রশংসনীয় উদ্যোগ     |     গাইবান্ধা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত     |     পলাশবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার     |     গড়েয়ায় জমকালো আয়োজনে  টাইগার ক্লাব আয়োজিত ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন     |     ঝিনাইদহে বজ্রপাত প্রতিরোধে তালবীজ রোপণ     |     মাদারীপুরের কালকিনিতে মোটরসাইকেল চাঁপায় শিশু নিহত     |     রূপসায়  অপরাজিতা নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ক নাগরিক সচেতনতা সভা অনুষ্ঠিত     |     মেহেরপুরের গাংনীর বিএডিসি অফিস এখন দুর্নীতির আখড়া ভূ-গর্ভস্থ সেচ প্রকল্পের কাজ দায়সারাভাবে করার অভিযোগ     |     পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় ধান ক্ষেত থেকে নবজাতক উদ্ধার     |