ঢাকা, বুধবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২৪ ইং | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ের ঐতিহাসিক দিঘীর ইতিকথা, দিঘীর নাম কাজলদিঘী….এমরান আল আমিন

দিঘির নাম কাজলদিঘি।এটি পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার কালিয়াগঞ্জ কাজলদিঘি ইউনিয়নে অবস্থিত।এই পুকুর ১৭ একর জমির উপরে। কাজলদিঘি সম্পর্কে প্রচলিত আছে এক সুদীর্ঘ কিংবদন্তী। প্রাচীনকালে এই পুকুরের দক্ষিন পাড়ে বাস করতেন এক রাজা।রাজার সাতজন রাণী ছিলেন,কিন্ত রাজা নি:সন্তান ছিলেন।অনেক চেষ্টা করেও রাজা সন্তানের মুখ দেখতে পারেননি। একদিন হঠাৎ বিমর্ষ রাজার দরবারে এসে উপস্থিত হলেন এক সৌম্যদর্শন সন্ন্যাষী। তিনি ছোট রাণীকে খাওয়ার জন্য তিনটি ফল দিলেন এবং বললেন,এই ফল খেলে রাণী সন্যানের মা হবেন।কিন্ত অন্য রাণীদের ষড়যন্ত্রের কারনে ছোট রাণী ফল খেতে পারলেন না।বাধ্য হয়ে তিনি ফলের পরিত্যক্ত খোসাগুলোই ভক্ষন করলেন ভক্তিসহকারে। ছয় রাণীর সন্তান হোল না,কিন্ত ঈশ্বরএর কৃপায় একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তান জন্ম দিলেন ছোট রাণী। এই সংবাদে রাজ্যময় আনন্দের বন্যা বয়ে গেল। রাজা তার মেয়ের নাম রাখলেন কাজলিনী।আনন্দের মধ্যে অতিবাহিত হচ্ছিল দিনগুলো। কিন্ত হঠাৎ করেই রাজ্যে দেখাদিল অনাবৃষ্টি।অনাবৃষ্টি থেকে দূর্ভিক্ষ।দেখ দিল পানির তীব্র অভাব। রাজা সন্ন্যাষীর পরামর্শে প্রজাদের জন্য খনন করলেন এক বিরাট দিঘি। কিন্ত একি!এমন সুগভীর দিঘি পানিশুন্য। রাজা আবার পরামর্শ চাইলেন সন্ন্যাসীর কাছে।সন্ন্যাসী বিমর্ষ মুখে জানালেন, পুজা দিয়ে জলদেবতাকে সন্তুষ্ট করতে হবে। আর সে দায়িত্ব পালন করতে হবে বালিকা রাজকন্যা কাজলিনীকে। অজানা আশংকায় কেপে উঠলো রাজার পিতৃ হ্রদয়। রাজার কোন উপায় নেই কারন প্রজাকুল তাকিয়ে রয়েছে রাজার দিকেই। প্রজাদের দিকে তাকিয়ে রাজা সিদ্ধান্ত নিলেন,একদিন অসংখ্য প্রজার উপস্থিতিতে রাজক্ণ্যা কাজলিনী স্বর্ণের থালায় পুজার সামগ্রী নিয়ে ধীরে ধীরে নেমে গেল পুকুরের মাঝখানে। অর্ঘ্য প্রদান করল জলদেবতার উদ্দেশ্যে। সঙে সঙে পুকুরের চারিদিক থেকে কল্ কল্ শব্দে উঠে এলে জলধারা। ভরে গেল গোটা পুকুর। ডুবিয়ে দিল রাজক্ণ্যা কাজলিনিকেও। শত শত মানুষ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে প্রত্যক্ষ করলো এই হ্রদয়বিদারক,বেদনাবিধুর দৃশ্য।হাহাকার ও আর্তনাদে ভরে উঠলো গোটা রাজ্য। কান্নায় ভাংগে পড়লেন রাজা ও রাণী। অত:পর রাজা কন্যার স্ম্রতি রক্ষার্থে পুকুরের নাম রাখলেন কাজলদিঘি। এখনো কোন পূর্ণিমা রাতএ শোনা যায় নারী কন্ঠের মৃদু কান্নার ধ্বনি।মাঝে মাঝে পুকুরের পানিতে ভেসে উঠে একটি ঝকঝকে রুপোর নৌকো। আর এ দিঘির টলটলে জল দেখলে প্রান জুড়িয়ে যায়, এপার থেকে ওপারে তাকালে। জনশ্রুতি আছে যে, কবি যতিন্দ্র মোহন বাগচী তার বিখ্যাত কাজলাদিদি কবিতাটি এখানেই রচনা করেছেন।

You must be Logged in to post comment.

    |     ভূঞাপুরে স্ত্রী কর্তৃক স্বামীর পুরুষাঙ্গ কর্তন স্ত্রী গ্রেফতার     |     মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সকে আন্তর্জাতিক মানের করা হবে -আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি     |     মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার থাকতে হবে           —- রাণীশংকৈলে এমপি সুজন     |     রাণীশংকৈলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত     |     ঝিকরগাছায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভা, চিত্র প্রদর্শনী ও দোয়া মাহফিল     |     ঝিকরগাছায় শব্দদূষণ বন্ধে অবস্থান কর্মসূচি ও ইউএনও’র নিকট স্মারকলিপি প্রদান     |     আটোয়ারীতে এমপি রেজিয়া ইসলাম এঁর মতবিনিময় সভা     |     গাংনীতে মুকুল সেবা সংস্থার উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত     |     উপজেলা নির্বাচনে মেহেরপুর সদরে ৫ জন ও মুজিবনগরে ৪ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন     |