ঢাকা, শুক্রবার, ২২শে অক্টোবর ২০২১ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ার সমতল ভুমিতে বিশ্বের সবচেয়ে দামি ‘সূর্যডিম’ আম চাষ এখন পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়

আবু তাহের আনসারী পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি : বিশ্বের সবচেয়ে দামি এবং সুস্বাদু ও পুষ্টিকর‘সূর্যডিম’ জাতের আম চাষ হচ্ছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় সমতল ভূমিতে। দেশের মধ্যে সবচেয়ে বড় সূর্যডিম আমের বাগানও এখানে। তেঁতুলিয়া উপজেলায় বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী মাহবুবুর রহমান এ বাগান গড়ে তুলেছেন। বাগানে রয়েছে প্রায় চার’শ টি‘সূর্যডিম’ জাতের আম গাছ। নতুন জাতের দামি ফল হওয়ায় এর চাষে আগ্রহী হচ্ছেন অন্যান্য চাষিরাও। আর এখানকার উৎপাদিত আম চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। এদিকে কৃষি বিভাগ বলছে, জাপানের মিয়াজিকি গ্রামের প্রথম উৎপণ্য এই আম এখন বাংলাদেশেও জনপ্রিয় হওয়ায় বাজারে এর চাহিদা বাড়ছে। তাই নতুন নতুন চাষিরা আগ্রহী হচ্ছে এই আম চাষে।
বাগানটির অবস্থান উপজেলা শহর থেকে দেড় কিলোমিটার দুরে ভারতীয় সীমান্ত ঘেষা কাজীপাড়া গ্রামে।
পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলা সদরের কাজীপাড়া গ্রামে সৌখিন চাষি, বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী মাহবুবুর রহমান ২০১৭ সালে প্রাথমিক ভাবে‘সূর্যডিম’জাতের আম বাগান গড়ে তুলেন। শুরুতেই এক একর জমিতে ২০০ গাছ লাগিয়ে যাত্রা শুরু করেন। এর পর ২০১৯ সালে ফল উৎপাদন আর বাজার মূল্য ও সফলতা পেয়ে এখন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বাগান গড়ে তুলেছেন। বর্তমানে আরও দুই একর জমি সম্প্রসারন করে মোট চার একর জমিতে প্রায় ৪০০টি গাছ রয়েছে তার বাগানে। বাগান জুড়ে প্রতিটি গাছে ঝুলছ বিশ্বের সবচেয়ে দামি ও সুস্বাদু এই আম। সবুজ, বেগুণি আর গাঢ় লাল রংয়ের মিশ্রণে দেখতে অনন্য সুন্দর এই আম। প্রত্যেক গাছে ৫০ থেকে ৬০ টি করে আম ধরেছে। এক একটি আমের ওজন প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ গ্রাম। আর এই আম ইতোমধ্যে বিক্রি শুরু হয়েছে। প্রতি কেজি আম বিক্রি হচ্ছে-১২০০ টাকা দরে। স্থানীয় সৌখিন আম ভক্তরাও কিনছেন এই আম। এবং এখানকার উৎপাদিত অধিকাংশ আম ব্যাবসায়ীরা ক্রয় করে সরবরাহ করছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। এদিকে সূর্যডিম আম এ অঞ্চলের মানুষের কাছে নতুন হওয়ায় বাগান দেখতে আসেন স্থানীয় ও ফল চাষিরা। দাম ও নামের গুণে অনেকে আগ্রহী হচ্ছে এই আম চাষে।
কাজী মাহবুবুর রহমান আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, বাগানে শুরুতে ২০০টি সূর্যডিম আমের গাছ লাগানো হয়। পরে আরও প্রায় ২০০টি টি আমের চারা লাগান তিনি। বাগানে সূর্যডিম আমের ফলন শুরু হয়েছে ২০১৯ সাল থেকে। এই আম দেশের বিভিন্ন যায়গায় সরবরাহ করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, জমি আমার হলেও মূলত আমার দুই মেয়ে- মেজর কাজী মৌসুমী (অবঃ) এবং সাংবাদিক কাজী মহুয়া এই আমের বাগান করেছেন। আমার বাগান এর যত্ন ও পরিচর্যার মাধ্যমে আজ এত বড় বাগান করতে সক্ষম হয়েছি এবং বিশে^র সবচেয়ে বেশী দামী ও সুস্বাদু আম এ প্রত্যন্ত অঞ্চলে উৎপাদন করতে পেরে আমি ধন্য। আমার মেয়েরাই ২০১৭ সালে নিকটাত্মীয়ের কাছে এই আমের বর্ণনা শোনে ঢাকা থেকে চারা গাছ সংগ্রহ করে পাঠায়। আমি তা রোপন করে পরিচর্যার পর আজ তেঁতুলিয়ার সমতল জমিতে এই আমের প্রচুর ফলন হয়। প্রযুক্তি এবং সংরক্ষনের ব্যবস্থা করা গেলে এখানকার সূর্যডিম আম বিদেশেও রপ্তানী হবে। এছাড়া সরকার উদ্যোগ নিলে এই আমের চারা উৎপাদন করে আগ্রহী চাষিদের কাছে পৌঁছানো সম্ভব।
কাজী পাড়া গ্রামের এই বাগানে গিয়ে দেখা যায়, শুধু সূর্যডিমই নয় আরও কয়েক প্রকার বিদেশী জাতের আমের চাষ করছেন তিনি। কেবল সুর্যডিমই নয় ৮ একর জমিতে তিনি পিউজাই, বারি ফোর, বানানা এবং রেড পালমা জাতের আমের চাষ করছেন। প্রত্যেক প্রজাতির আমের গাছে ভালো ফলন হয়েছে। এ বছর আরও ৪ একর জমিতে তিনি বিভিন্ন প্রজাতির আম গাছ লাগাচ্ছেন। এই আমের বাগান এখন দেখতে আসছেন অনেকে। অনেকেই এসব প্রজাতির আমের বাগান করার আগ্রহও প্রকাশ করছেন।
‘সূর্যডিম’ আম জাপানের মিয়াজাকি গ্রামে প্রথম চাষ হয়। তাই জাপানে এই আম মিয়াজাকি নামে ও পরিচিত। বিশ্বময় রেড ম্যাঙ্গো, এগস অফ সান ও তাইওয়ানে তামাগি নামেও এই আম পরিচিত। তবে বাংলাদেশে এই আম ‘সূর্যডিম’ নামে পরিচিতি পেয়েছে। বর্তমানে বিভিন্ন দেশে এই আমের চাষ হচ্ছে। বাংলাদেশের খাগড়াছড়ি এবং তেঁতুলিয়ায় এই আমের চাষ শুরু হয়েছে। বিশ্ববাজারে এক কেজি মিয়াজাকি আমের দাম প্রায় ৭০ ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৬ হাজার টাকা। তবে এখনো এই আমের কথা দেশের মানুষ অনেকেই জানেন না।
সৌন্দর্য্য, স্বাদ এবং পুষ্টিগুণে সেরা হওয়ায় বাজারে চাহিদা অনেক বেশি। সেই তুলনায় বাংলাদেশে এই আমের উৎপাদন কম। কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর বলছে, তেঁতুলিয়ার সমতল ভূমি সূর্যডিম আম চাষের জন্য বেশ উপযোগী।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, কাজী মাহবুবুর রহমানের সূর্যডিম আমের বাগান দেখেছি। বিভিন্ন সময় এ আমের ফলনের ক্ষেত্রে রোগ বালাই থেকে সকল প্রকার পরামর্শ নিয়মিত প্রদান করে আসছি। প্রচুর ফলন হয়েছে। আমের প্রকৃতি ও স্বাদও ভালো। আমরা মনে করছি এই এলাকায় সূর্যডিম আম চাষের বানিজ্যিকভাবে প্রসারে ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। শুধু সূর্যডিম নয় বিদেশী উন্নত জাতের নানা প্রজাতির আম চাষও সম্ভব এই উপজেলার সমতল ভূমিতে। কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর থেকে এসব আম চাষে চাষিদেরকে সবধরণের সহযোগিতা করবে।

You must be Logged in to post comment.

বাংলাদেশ ভারতের চেয়েও অর্থনৈতিকভাবে অনেক এগিয়ে। মেহেরপুরে জেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় বাহাউদ্দীন নাসিম     |     গাংনীতে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরেপেক্ষ ভোট হলে স্বতন্ত্র প্রার্থী সোহেল আহমেদ আবারও চেয়ারম্যান     |     গাংনীতে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেম্বর নির্বাচিত হলেন মটমুড়ার সাবেক মেম্বর মাঝহারুল     |     পলাশবাড়ীতে ট্রাক চাপায় নিহত হলো শিশু ইসমাঈল      |     ঝিকরগাছায় নির্বাচনের মনোনয়ন বাছাই : চেয়ারম্যান ও সাধারণ পদে ছিটেফোটা বাতিল     |     টানা বৃষ্টিতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি নুয়ে পড়েছে ধান,আলু নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক     |     ঠাকুরগাঁওয়ে   আচকা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় খোলা-বন্ধ প্রধান শিক্ষকের ‘ইচ্ছায়’     |     তেঁতুলিয়ার শালবাহানে নৌকার জয়ের প্রত্যাশা জননেতা আশরাফুলের     |     ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার  ঠাকুরগাঁওয়ে রয়েল বড়–য়াকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত সহ গ্রেফতার-৩      |     ব্লাক কিট বা ভুবন চিল     |