ঢাকা, রবিবার, ২৭শে নভেম্বর ২০২২ ইং | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় প্রাণী সম্পদ রক্ষায় ল্যাম্পি স্কিন ডিজিজ প্রতিরোধে বিনামূল্যে টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়নে ৫০ হাজার গরুকে টিকাদান কাজ সম্পন্ন

আবু তাহের আনসারী পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় প্রাণী সম্পদ দপ্তরের মাধ্যমে প্রাণী সম্পদ রক্ষায় ল্যাম্পি স্কিন ডিজিজ প্রতিরোধে ৫০ হাজার গরুকে বিনামূল্যে টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয়েছে।
পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার সর্বত্রই কৃষকদের দেশী গরু পালন, ছোট ছোট খামার তৈরী করে মোটাতাজা করণ প্রকল্প হাতে নিয়ে গরু পালন করে আসছে। স্বাবলম্বীও হয়েছেন অনেকেই। আবার অনেকে বিদেশী গরু পালনও করছেন।এ অবস্থায় হঠাৎ ল্যম্পি স্কিন ডিজিজ রোগের মহামারি আকারে প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় তেঁতুলিয়ায়।
গত আগষ্ট ২০২২ থেকে গরুর ব্যপকভাবে ল্যম্পি স্কিন ডিজিজ রোগ দেখা দেয়। এ রোগে আক্রান্ত হয়ে ক্রমান্বয়ে মৃতের সংখ্যাও বেড়ে প্রায় কয়েক হাজারে দাড়িয়েছে। গরু মারা যাওয়ায় সর্বশান্ত হচ্ছে কৃষক । হঠাৎ এ রোগের দেখা দেওয়ায় সৃষ্টি হয় ঔষধ সংকট। সংকটময় মুহুর্তে প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. রতন কুমার ঘোষ কৃষকের বাড়ি বাড়ি খোজ নিতে থাকেন এবং বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে থাকেন। তার পরামর্শক্রমে পরিক্ষামুলক ভাবে কিছু ঔষধ সেবন করে কিছুটা ভালো ফলাফল দেখতে পায়। পরবর্তিতে প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা এবং উর্ধ্বতন কর্মকর্তার মাধ্যমে লাম্পি স্কিন ডিজিজ রোগের প্রতিষেধক টিকা ব্যবহারের জন্য চাহিদা দিয়ে পাঠায়।পরবর্তিতে সরকারিভাবে বিনামূল্যে টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য বরাদ্দ পাওয়া যায়। উপজেল প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার নেতৃত্বে ল্যাম্পি স্কিন ডিজিজ প্রতিরোধে বিনামূল্যে টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়নে আল মাসুদ বাবু এর তদারকিতে মেডিকেল টিম গঠন করা হয়। গত ১৫ নভেম্বর ২০২২ থেকে শুরু করে উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নে পর্যায়ক্রমে কৃষকের দোড়গোড়ায় প্রাণী সম্পদ রক্ষায় গরুর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করে। আফিস জনবল নিয়ে মেডিকেল টিমের মাধ্যমে তেঁতুলিয়া উপজেলায় ৫০ হাজার গরুকে এ রোগের প্রতিশেধক টিকা দিতে সক্ষম হয়। এ টিকা গ্রহনের পর থেকে কোন গরু মারা যায়নি বলে বিভিন্ন এলাকার লোকজনের কাছ থেকে জানা যায়।
উপজেলার ছোপাগছ গ্রামের আইনুল হক, ভাদ্রুবাড়ি গ্রামের আশরাফুল ইসলাম, তিরনইহাটের আব্দুল খালেক, দেবনগড় গ্রামের শরিফুল্লাহসহ আরো অনেকে আমাদের প্রতিনিধিকে জানান আমাদের গরুর এ রোগ দেখা দেওয়ার সাথে সাথে প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার কাছে পরামর্শের জন্য যাই। তার পরামর্শক্রমে গরুর চিকিৎসা নিতে থাকি। তাদের চিকিৎসা ও তদারকিতে গরু সবল ও রোগমুক্ত হয়ে যায়।
উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. রতন কুমার ঘোষ জানান কৃষকের একমাত্র সম্বল হল গরু। প্রাণী সম্পদ রক্ষা করাই আমাদের দায়িত্ব। কৃষকের গরুর এ রোগের কথা জেনে তৎক্ষনাত কৃষকের বাড়িতে গিয়ে গরুর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার চেষ্টা করি। পরবর্তিতে ল্যাম্পি স্কিন ডিজিজ টিকা সরকারিভাবে সরবরাহ হওয়ায় বিনামূল্যে টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়নে ম্যাডিকেল টিম গঠন করি। প্রতিটি ইউনিয়নের ওয়ার্ড ভিত্তিক মেডিকেল টিমের মাধ্যমে উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নে ৬৩ টি ওয়ার্ডে কৃষকের দোড়গোড়ায় গিয়ে ৫০ হাজার গরুর স্বাস্থ্য সেবা সফলভাবে পৌছে দিতে সক্ষম হয়েছি। বর্তমানে অনেকটা নিয়ন্ত্রনে রয়েছে বলে ভুক্তভোগীরা জানায়। ।

You must be Logged in to post comment.

দেরীতে হলেও ৮৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকানন পরিচর্যার উদ্যোগ প্রশংসনীয়     |     ফুলবাড়ীতে বিনামুল্যে আইন সহায়তা পেতে লিগ্যাল এইড কমিটির উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক সমন্বয় সভা।     |     নবাবগঞ্জে মানবতার কল্যাণে মানবিক দেওয়ালের যাত্রা শুরু     |     এক গৃহবধু’র লাশ রেলষ্টেশনের সীমানা রেলিং-এ ঝুলছিল, নানা গুঞ্জন, হত্যা না আত্মহত্যা!     |     মেহেরপুরের গাংনীতে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে অটোভ্যান চালকের মৃত্যু     |     নিখোঁজের দুইদিন পর নদীর পাড়ে মিলল গৃহবধুর মরদেহ     |     বিয়ে বাড়িতে দাওয়াত খাওয়াকে কেন্দ্র করে ডাসারে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ \ মহিলাসহ আহত-২৫     |     টাঙ্গাইলে বারোমাসী মহৌষধী ‘ননী ফল’ বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে     |     আগামী মাসেই ব্যাংকগুলোর ডলার সংকট দূর হবে। –এফ সালমান রহমান     |     টাঙ্গাইলে প্রাণবন্ত বিশ্বকাপ ফুটবল     |