ঢাকা, বুধবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২৪ ইং | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরিষদ গঠনের ১৩ মাস পার না হতেই, স্বজনপ্রীতি, অনিয়ম, জন্ম সনদ গ্রহণে টাকা গ্রহণসহ নানা অভিযোগ গাংনীর সাহারবাটি ইউপি চেয়ারম্যান মশিউরের বিরুদ্ধে মেম্বরদের অনাস্থা ও পরিষদ বর্জনের ঘোষনা।

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম, মেহেরপুর জেলা প্রতিনিধি:গাংনী উপজেলার সাহারবাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমানের বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্ণীতি, স্বজনপ্রিতি, অর্থগ্রহণসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে অনাস্থা প্রস্তাব ও ইউনিয়ন পরিষদ বর্জনের ঘোষণা দিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন পরিষদের সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্যবৃন্দ।
ইউনিয়ন পরিষদের ৩ জন সংরক্ষিত নারী সদস্য ও ৯ জন সাধারণ সদস্যবৃন্দের স্বাক্ষরিত লিখিত অভিযোগপত্র গত সোমবার (২০ মার্চ) দুপুরে মেহেরপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রদান করা হয়েছে।
লিখিত অভিযোগের অনুলিপি স্থানীয় সরকার মন্ত্রী, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার, দূর্নীতি দমণ কমিশন, গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার, গাংনী উপজেলা চেয়ারম্যান বরাবরও প্রদান করা হয়েছে।
চেয়ারম্যান মশিউর রহমানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগগুলোর মধ্যে রয়েছে, নির্বাচন পরবর্তী ৩০ কার্যাদিবসের মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যাবলি সুষ্ঠভাবে পরিচালনার জন্য ৩ সদস্য বিশিষ্ট প্যানেল চেয়ারম্যান গঠন করার কথা থাকলেও সাহারবাটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রায় ১৩ মাস পার হলেও ইউনিয়ন প্যানেল চেয়ারম্যান গঠন করা হয়নি। যার ফলে পরিষদের কার্যক্রম মারাত্বকভাবে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। ইউনিয়ন পরিষদের যে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণে পরিষদের সদস্যদের সাথে আলোচনা করার কথা থাকলেও তা করা হয়না। চেয়ারম্যানের একক সিদ্ধান্তে পরিষদের সকল কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়।
অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, সরকারি অনুদান বিতরণে সদস্যদের সাথে কোনোরকম সমন্বয় না করেই চেয়ারম্যান মশিউর রহমান তার মনগড়া সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। সরকারের বিভিন্ন সহায়তা তার পছন্দের লোকজন দিয়ে বিতরণ করে থাকেন। আমাদের চরম অবমুল্যায়ন করা হয়ে থাকে। এলজিএসপি, কাবিখা, টিআর, কাবিটাসহ বিভিন্ন বরাদ্দ আসলে মেম্বরদের বঞ্চিত করা হয় বলে অভিযোগ তাদের। মাসিক মিটিংএ সাদা রেজুলশেন খাতায় জোরপূর্বক স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন চেয়ারম্যান মশিউর রমানের বিরুদ্ধে। নাগরিকদের কাছ থেকে জন্মনিবন্ধন সনদ বাবদ অতিরিক্ত টাকা গ্রহণ করা হয়। জন্ম সনদ নিতে চেয়ারম্যান মশিউর রহমানকে অতিরিক্ত ২’শ টাকা না দিলে জন্ম সনদে স্বাক্ষর করেন না বলে অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে। ফলে নাগরিকরা সেবা বঞ্চিত হচ্ছে দিনের পর দিন।
মেম্বরদের অভিযোগে রয়েছে, ইউনিয়ন পরিষদের আয় ব্যায়ের কোনো হিসাব করা হয়না। সরকারি বরাদ্দে কোন কাজ করতে হলে একজন ইউপি সদস্যকে প্রকল্প পরিচালক (পিআইসি) নিধারণ করা হয় খাতা কলমে। তাকে দিয়ে শুধুমাত্র স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হয়। কাজ করে বিল উত্তোলন করেন চেয়ারম্যান মশিউর রহমান। তার কিছু নিজস্ব বাহিনী আছে তাদের দিয়ে সরকারি কাজ দেখভাল করা হয় বলে অভিযোগ করা হয়েছে।
তারা লিখেছেন, স্বল্পমূল্যে খাদ্য সামগ্রী (টিসিবি) পণ্য বিতরণে মেম্বরদের বঞ্চিত করা হয়েছে। মেম্বরদের মাধ্যমে টিসিবির কার্ড বিতরণ না করে চেয়ারম্যান তার কিছু কথিত কর্মী বাহিনি দিয়ে টিসিবি কার্ড বিতরণ করিয়েছেন। এই কার্ড বিতরণে নানা অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি হয়েছে। অসহায় দুস্থ মানুষ সরকারের এই সুবিধার আওতায় না এসে বিত্তবানেরা সুবিধা পেয়েছে। টিসিবির কার্ড বিতরণে ইউনিয়ন পরিষদের সকল সদস্যবৃন্দকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে বলে তারা অভিযোগ করেন।
লিখিত অভিযোগে তারা বলেন, এইসব বিষয়ে জানতে চাইলে চেয়ারম্যান আমাদের সাথে নানা ধরণের টালবাহানা করেন। তারা বলেন, নানা অনিয়মের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে সাহারবাটি ইউনিয়ন পরিষদের সকল কার্যক্রম। সরকারি বিভিন্ন সহায়তা এলে ওয়ার্ডের মেম্বরদের মাধ্যমে সেসব সেবা জনঘণকে না দিয়ে তার ভোট কর্মীদের মাধ্যমে বিতরণ করে থাকেন। যার ফলে একদিকে আমাদের মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়, অপরদিকে প্রকৃত অসহায় দুস্থ মানুষ সরকারি সহায়তা থেকে বঞ্চিত ও প্রতারিত হয়ে থাকে। এর ফলে স্ব স্ব ওয়ার্ডের মেম্বরদের উপর ক্ষিপ্রতা পোষণ করেন জনগণ। এসব অবমূল্যায়ন নিয়ে চেয়ারম্যান মশিউর রহমানের কাছে জানতে গেলে তিনি আমাদের সাথে খারাপ আচরণ করেন এবং কাজ বঞ্চিত করার হুমকি দেন।
এবিষয়ে বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসককে অনুরোধ জানান আবেদনকারিরা। এর সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত ইউনিয়ন পরিষদের সকল কার্যক্রম বর্জনের ঘোষণা দেন তারা। এসব অনিয়ম ও দুর্নীতি ও স্বজন প্রিতির সুষ্ঠ বিচার না হলে ও অধিকার বুঝে না পেলে বড় ধরণের আন্দোলনে যাবার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

এবিষয়ে সাহারবাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পরিষদের ১২ জন সদস্য নয়, দুই তিনজন মেম্বর আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ দিেেয়ছেন। আমি আগামিকাল এই বিষয়ে সাংবাদিক ডেকে কথা বলবো। আজও ৩ সদস্যের প্যানেল চেয়ারম্যান গঠণ করেন নি কেনো এমন অভিযোগের উত্তর দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ৩ সদস্যের প্যানেল চেয়ারম্যান গঠণ করা হয়েছে। কিন্তু এটা প্রকাশ করা যাবেনা। টিসিবির পণ্য বিতরণের অনিয়ম প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মেম্বরদের ৬০ শতাংশ দিয়েছি। আমি টিসিবির কার্ড বিতরণ করেছি ৪০ ভাগ। জন্ম সনদ প্রদানে অতিরিক্ত টাকা গ্রহণের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পরিষদে যারা উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করেন, তাদের বেতন ভাতা নেই। এইখান থেকে তাদের দেওয়া হয়। অফিসিয়ার কালি কাগজপত্র কেনা, ফটো কপি করাসহ নানা কাজে এই টাকা ব্যবহার করা হয়। এসব বিষয়ে মঙ্গলবার সাংবাদিকদের জানানো হবে বলে জানান তিনি।

আমিরুল ইসলাম অল্ডাম

You must be Logged in to post comment.

ভূঞাপুরে স্ত্রী কর্তৃক স্বামীর পুরুষাঙ্গ কর্তন স্ত্রী গ্রেফতার     |     মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সকে আন্তর্জাতিক মানের করা হবে -আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি     |     মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার থাকতে হবে           —- রাণীশংকৈলে এমপি সুজন     |     রাণীশংকৈলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত     |     ঝিকরগাছায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভা, চিত্র প্রদর্শনী ও দোয়া মাহফিল     |     ঝিকরগাছায় শব্দদূষণ বন্ধে অবস্থান কর্মসূচি ও ইউএনও’র নিকট স্মারকলিপি প্রদান     |     আটোয়ারীতে এমপি রেজিয়া ইসলাম এঁর মতবিনিময় সভা     |     গাংনীতে মুকুল সেবা সংস্থার উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত     |     উপজেলা নির্বাচনে মেহেরপুর সদরে ৫ জন ও মুজিবনগরে ৪ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন     |     গাংনীতে ‘আশ্রয়’ নামে বৃদ্ধ সেবা ও এতিম শিশু পুণর্বাসন কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত     |