ঢাকা, বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ইং | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বগুড়ার শেরপুরে স্ত্রীর যৌতুক মামলায় অডিট কর্মকর্তা জেল হাজতে

বাদশা আলম  শেরপুর(বগুড়া) প্রতিনিধি.বিয়ের পর থেকেই নানা অজুহাতে স্ত্রীকে শারীরিক, মানষিক নির্যাতন ও যৌতুক দাবীর পর আদালতে স্ত্রীর দায়ের করা ৩টি যৌতুক মামলার একটিতে হাজিরা দিতে গিয়ে বগুড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত জুনিয়র অডিট কর্মকর্তা আসলাম খান কে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেন।
বগুড়ার আদালতে দায়েরকৃত মামলার বিবরণে জানা যায়, বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের আম্বইল গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ইমরুল হোসেনের কন্যা মোছাঃ ইরিন আক্তার এর সাথে চলতি বছরের ১৮ ফেব্রæয়ারি মাসে তিন লাখ টাকার দেন মোহরানায় দুই পরিবারের সম্মতিতে একই ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের আব্দুর রউফ খানের পুত্র আসলাম খানের সাথে বিবাহ সম্পন্ন হয়। আসলাম খান বর্তমানে জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলায় সরকারি হিসাব রক্ষণ অফিসে জুনিয়র অডিট কর্মকর্তা হিসাবে কর্মরত রয়েছে বলে তথ্যে নিশ্চিত করেছে। এদিকে মামলার বাদি স্ত্রী ইরিন আক্তার পৃথক পৃথক মামলায় উল্লেখ করেন যে সরকারী চাকরীরত তার স্বামী বিয়ের পর থেকে তাকে ঠুনকো অজুহাতে মারধর করা সহ বিভিন্ন ভাবে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শারীরিক নির্যাতন, মানুষিকভাবে হেনস্থা, নিত্যদিন বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক হিসেবে তিন লাখ টাকা দাবী করে নির্যাতন চালাতে থাকে।
স্বামীর অতিরিক্ত নির্যাতন, ও যৌতুক দাবীতে অতিষ্ঠ হয়ে ইরিন আক্তার বাদী হয়ে বগুড়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে যৌতুক ও নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে গত ৪ সেপ্টেম্বর মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ৪৭১/সি ২০২৩ (শেরপুর) স্ত্রীর যৌতুক মামলায় তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠে সরকারি ওই কর্মকর্তা মামলা তুলে নিতে স্ত্রী সহ শ্বশুর কে নানা ধরনের ভয়ভীতি, হুমকি দিয়ে আসছে। পরবর্তীতে জীবনের নিরাপত্তা কল্পে ইরিন আক্তার একই আদালতে গত ৫ অক্টোবর ২য় মামলা নং ৬৯০সি/(শেরপুর) এবং সব শেষে ৭ নভেম্বর ৭২০/সি (শেরপুর) তৃতীয় মামলাটি দায়ের করেন। এদিকে মামলার বাদিনী বলেন স্বামীর নির্যাতন ও যৌতুকের হাত থেকে বাঁচতে মামলা করেও জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন বলে শঙ্কায় রয়েছে।
অপর দিকে প্রথশ দায়েকৃত মামলায় ২৭ নভেম্বর আদালতে হাজিরা দিতে যান তিনি মামলার অভিযুক্ত আসামি ও অডিট কর্মকর্তা । মাননীয় আদালত জামিন নামঞ্জুর করায় আদালতের মাধ্যমে সরকারী ওই অডিট কর্মকর্তাকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। অপর দিকে জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলার হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা ( অ-দা) প্রতুল কুমার মন্ডলের নিকট ফোনে এ সংক্রান্ত তথ্য জানতে চাইলে তিনি বলেন আসলাম খান এই অফিসে জুনিয়র অডিট কর্মকর্তা হিসাবে কর্মরত সে তিন দিনের ছুটিতে রয়েছে, তবে কবে ছুটি নিয়েছেন বললেই ফোন কেটে দেন ঐ কর্মকর্তা। অপরদিকে মামলার বিবাদী আসলাম খানের বক্তব্য জানার জন্য তার মোবাইল নম্বরে বারবার যোগাযোগ করেও সম্ভব হয়নি।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে বিজিবি কতৃক উদ্ধারকৃত সাড়ে ৭ কোটি টাকার মাদক ধ্বংস     |     ঝিকরগাছায় গাছি ও ফুল চাষীদের মাঝে উৎপাদন সামগ্রী বিতরণ     |     সাংবাদিক বিপ্লবের উপর হামলার ঘটনায় মামলা      |     ফুলবাড়ীতে ২৬টি বেসরকারী এতিমখানায় এক কোটি ৩১লাখ ২৬হাজার টাকার চেক বিতরণ।     |     ঘাটাইলে সরকারী হাসপাতালের নাকের ডগায় গড়ে উঠেছে বেসরকারি ক্লিনিক     |     লালমনিরহাটের পৃথক ঘটনায় সড়কে নিহত ২     |     মাছের আঁশে তৈরি হচ্ছে প্রসাধনী-বৈদ্যুতিক পণ্য টাঙ্গাইলের মাছের উচ্ছিষ্ট যাচ্ছে বিদেশে     |     রুহিয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন সহায়তা তহবিল হতে স্কুল ব্যাগ বিতরণ     |     ঠাকুরগাঁওয়ে ছয় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার     |     ঘাটাইলে নব নির্বাচিত সংসদ সদস্যকে  সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত      |