ঢাকা, সোমবার, ২৬শে জুলাই ২০২১ ইং | ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বগুড়া শেরপুরে ইউএনও’র গাড়ি ভাংচুর মামলার আসামীরা সক্রিয় বাঙালি নদী থেকে বালু উত্তোলনের চেষ্টায় প্রশাসনের আবারও অভিযান

শেরপুর বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুরে বাঙালী নদীতে খননযন্ত্র (শ্যালোমেশিন) বসিয়ে আবারো বালু চলছে বালু তোলার মহোৎসব। উপজেলার খামারকান্দি ও খানপুর ইউনিয়নের নলডিঙ্গি ও গজারিয়া-বড়ইতলী গ্রামের বাঙালী নদী থেকে এ বালু তোলা হচ্ছে। বালু উত্তোলনকারীরা সবাই তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী সেখের ব্যবহৃত সরকারি গাড়ি ভাংচুর মামলার আসামী। এদিকে ওই নদীতে মামলার আসামীদের অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের খবর পেয়ে ৬ জুলাই মঙ্গবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি) সাবরিনা শারমিন। ঘটনাস্থল থেকে বালু উত্তোলনের সরঞ্জামাদি ভাংচুর, মেশিন ও আড়াইহাজার ফুট পাইপ জব্দ করা হয়। তবে অভিযান চলাকালীন সময়ে বালু উত্তোলনকারীদের কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি প্রশাসন।
জানা যায়, গতবছর ২০২০ সালের ৩ অক্টোবর উপজেলার খামারকান্দি ইউনিয়নের নলডিঙ্গি গ্রামে বালু তুলতে বাধা দিতে এসে বালু দস্যুদের হামলায় ভাংচুর করা হয়েছিল উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) গাড়ি সহ এক কর্মচারী আহত হয়েছিল। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছিল। সেই মামলার আসামীরাই আবার নতুন করে বাঙালী নদী থেকে বালু উত্তোলন করছে।
স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার খামারকান্দি ইউনিয়নের নলডিঙ্গি গ্রামের মো. মিলন, রাজু ও শফিকুল ইসলাম এবং খানপুর ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের মো. রুবেল বাঙালী নদীতে অবৈধভাবে বালু তোলার মেশিন বসিয়েছে। বাড়ি নির্মানের জন্য পুকুর ভরাটের জন্য প্রতিদিন তোলা হচ্ছে বালু। অন্তত দুই-তিনমাস ধরে উক্ত ব্যাক্তিরা বাঙালী নদীতে ভাসমান নৌকার ওপর শ্যালো মেশিন বসিয়ে প্লাস্টিক পাইপের মাধ্যমে নদীর ভূগর্ভস্থ থেকে বালু উত্তোলন করেছে। তোলা বালুর স্তুপ করা হয়েছে নদী থেকে অনেক দূরে। এখান থেকে সহজেই তারা বিক্রি করতে পারছেন।
বালু উত্তোলনকারী শফিকুল ইসলাম জানায়, তিনি তিন দিন আগে এই নদী থেকে বালু তোলা শুরু করেছেন। ব্যক্তিগত প্রয়োজনে তিনি নদীর মধ্যে শ্যালো মেশিন বসিয়েছেন। খননযন্ত্রটি ধুনট উপজেলার এলাঙ্গি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মাসুদ রানার কাছ থেকে বালু তোলার জন্য ভাড়া নিয়েছেন।
রাজু আহম্মেদ বলেন, তার আরো দুই সহযোগি মো. মিলন ও রুবেল বাঙালী নদী থেকে বালু তুলে স্থানীয় মানুষজনের কাছে বিক্রি করে আসছেন। তারা সবসময় বালু তোলেন না। মানুষের প্রয়োজন হলে তখনই তারা নদী থেকে বালু তোলেন।
এলাকাবাসীরা বলেন, বাঙালী নদী থেকে এভাবে বালু তোলা হলে নদীর পাশে ফসলি জমিগুলো ভেঙে নদীতে বিলীন হবে। এখন বর্ষার সময়। পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে আমাদের ফসলি জমিও নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। বালু ব্যবসায়ীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বাধা দিতে ভয় পাচ্ছি।
এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছা. সাবরিনা শারমিন কথা বলা হলে তিনি বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের খবর পেয়ে অভিযান চালানো হয়। ঘটনাস্থল থেকে বালু উত্তোলনে সরঞ্জামাদি স্থানীয় ইউপি সদস্যের জিম্মায় দেয়া হয়েছে।

You must be Logged in to post comment.

সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘন্টায় ৯ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৮৩     |     সাতক্ষীরায় ঢিলেঢালাভাবে চলছে লকডাউন, ৪৫ টি মামলা     |     মাদারীপুরে খাদ্য সহায়তার জন্য ৩০’টাকায় চাল ও ১৮’আটায় বিক্রি শুরু     |     নাগরপুরে একটি সড়কের অভাবে দুই গ্রামের চরম দুর্ভোগ     |     পঞ্চগড়ের বোদায় পল্লী চিকিৎসকের পরামর্শে জ্বরের পল সিরাপ সেবন করে বড় ভাইয়ের মৃত্যু, ছোট ভাইয়ের অবস্থা আশংকাজনক     |     গাংনীতে লক ডাউনে দোকান খোলা ও স্বাস্থ্য বিধি না মানার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা     |     ঠাকুরগাঁওয়ে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের বাসায় ছাত্রলীগের উপহার     |     বগুড়ার শেরপুরে অভিনব কায়দায় ট্রাক ছিনতাই     |     ঘাটাইলে সাবেক এমপি মতিউর রহমানের স্ত্রীর ইন্তেকাল     |     পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসকের গৃহহীনদের জন্য নির্মিত ০৫ টি ঘর সরেজমিন পরিদর্শন     |