ঢাকা, বুধবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২৪ ইং | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিমান দুর্ঘটনায় নিহত আলিফের শেষ কথা ‘মা নেপালে পৌঁছেই তোমাকে ফোন দেব’

এস এম মাহবুবুর রহমান, খুলনা : ‘আলিফ নেপালে পৌঁছে মাকে ফোন দেওয়ার কথা বলেছিল, সে জানিয়েছিল- ‘মা নেপালে পৌঁছেই তোমাকে ফোন দেব, কিন্তু সে আর ফোন দিতে পারেনি’ এটিই ছিল সোমবার সকাল সাড়ে ৭টায় যশোর থেকে বিমানে ঢাকায় যাওয়ার পথে মায়ের সঙ্গে তার শেষ কথা। নেপালের কাঠমান্ডুতে বিমান দুর্ঘটনার শিকার খুলনার আলিফুজ্জামান আলিফের (৩০) বাড়িতে মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে গেলে তার বড় ভাই মো. আশিকুর রহমান হামিম এ প্রতিবেদককে এসব কথা বলেন। আলিফুজ্জামান আলিফ খুলনার রূপসা উপজেলার আইচগাতি গ্রামের বারোপূর্ণের মোড় সংলগ্ন জিরোপয়েন্ট মসজিদের বিপরীতে (আইচগাতি স্কুল রোড) মোল্লা মো. আক্তারুজ্জামানের পুত্র। তিনি খুলনার বিএল কলেজ থেকে এবার মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি এবং মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড খুলনা জেলা শাখার তথ্য ও প্রচার সম্পাদক ছিলেন। পাশাপাশি তিনি ঠিকাদারি ব্যবসার সঙ্গেও সম্পৃক্ত ছিলেন। সকাল পৌনে ৮টার দিকে আলিফদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় একটি শোকাহত পরিবেশ। স্বজন ও প্রতিবেশিদের ভিড়। তৃতীয়তলা ভবনের দ্বিতীয় তলায় পরিবারের সঙ্গেই থাকতেন অবিবাহিত আলিফ। ঘরে ঢুকতেই চোখে পড়ে আলিফের ছোট বাবা মো. বাবর আলীর দিকে। আদরের ভাইপোর শোকে মূহ্যমান তিনি। একাধারে কেঁদেই চলেছেন, আর আলিফের সঙ্গে তার বিভিন্ন স্মৃতির কথা আওড়াচ্ছেন। বলছেন, ‘আমাকে আর কে চাচা বলে ডাকবে, আমার বুকের মানিক তুই কেন নেপালে গেলি- ইত্যাদি। একাধিকবার চেষ্টা করেও তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হলো না। আলিফের খালাতো বোন রাহিমা আক্তার শান্ত বলেন, সংবাদ শোনার পরম মঙ্গলবার সকাল ৮টার ফ্লাইটে তার খালু শাহাবুর রহমান নেপালের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। তিনি পৌঁছানোর পরই তারা সঠিক তথ্য জানতে পারবেন। তিনি জানান, বিমান দুর্ঘটনার খবর শোনার পর আলিফের অসুস্থ বাবা আরও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। আর মাও কারও সঙ্গে কথা বলার মত অবস্থায় নেই। সবাই বাকরূদ্ধ হয়ে পড়েছেন। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আলিফ স্থানীয় বেলফুলিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং খুলনার আহসান উল্লাহ কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দেয়। এরপর ২০০৭ সালে সে কাজের সন্ধানে সৌদিতে যায়। সেখানে ২০১০ সালে ফিরে পূণরায় খুলনা সিটি কলেজে ভর্তি হয়ে ডিগ্রি পরীক্ষা দেয়। সর্বশেষ সে খুলনার বিএল কলেজ থেকে মাস্টার্স পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। এখনও কয়েকটি পরীক্ষা বাকি রয়েছে। আলিফের বড় ভাই মো. আশিকুর রহমান হামিম এ প্রতিবেদককে বলেন, আলিফ রাজনীতি এবং ঠিকাদারি করতো। তার কোন শত্রু ছিল না। তার ভবিষ্যত ইচ্ছা ছিল সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচন করা। তিনি জানান, আলিফের বন্ধুরা নেপালে চলমান বাণিজ্য মেলায় স্টল দিয়েছে। সেখানে বেড়াতে যাওয়ার জন্যই আলিফ ৪ দিনের সফরে নেপাল যায়। কিন্তু দুর্ঘটনার পর থেকে তাদের সুখের সংসারে অমানিশার অন্ধকার নেমে এসেছে। আলিফের নিকটাত্মীয় মো. সাব্বির খান দ্বীপ এ প্রতিবেদককে জানান, আলিফ নেপাল ভ্রমনের জন্য সোমবার সকালে বাড়ি থেকে বের হয়। সে যশোর থেকে প্রথম ফ্লাইটে বেসরকারি ইয়ারওয়েজ নভো ইয়ারে ঢাকায় যায়। সে দুপুর পৌনে ১টার দিকে ইউএস-বাংলার (ফ্লাইট বিএস ২১১) ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রওনা হয় নেপালের উদ্দেশ্যে। সে বিমানের সর্বশেষ আসনে ছিল। নেপালের স্থানীয় সময় বেলা ২টা ২০ মিনিটে কাঠমান্ডুতে নামার সময় পাইলট নিয়ন্ত্রণ হারালে বিমানটি রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে এবং আগুন ধরে যায়। এদিকে, ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে আলিফদের আইচগাতির বাড়িতে আত্মীয়-স্বজন, প্রতিবেশিসহ উৎসুক জনতার ভিড় জমে গেছে। তার বাড়িতে এসে আলিফের খবর জানার চেষ্টা করছেন। তবে, পরিবারের সদস্যরা অনেকটাই দুঃচিন্তাগ্রস্থ ও শোকাহত হয়ে পড়েছেন।

You must be Logged in to post comment.

ভূঞাপুরে স্ত্রী কর্তৃক স্বামীর পুরুষাঙ্গ কর্তন স্ত্রী গ্রেফতার     |     মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সকে আন্তর্জাতিক মানের করা হবে -আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি     |     মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার থাকতে হবে           —- রাণীশংকৈলে এমপি সুজন     |     রাণীশংকৈলে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত     |     ঝিকরগাছায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের আলোচনা সভা, চিত্র প্রদর্শনী ও দোয়া মাহফিল     |     ঝিকরগাছায় শব্দদূষণ বন্ধে অবস্থান কর্মসূচি ও ইউএনও’র নিকট স্মারকলিপি প্রদান     |     আটোয়ারীতে এমপি রেজিয়া ইসলাম এঁর মতবিনিময় সভা     |     গাংনীতে মুকুল সেবা সংস্থার উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত     |     উপজেলা নির্বাচনে মেহেরপুর সদরে ৫ জন ও মুজিবনগরে ৪ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন     |     গাংনীতে ‘আশ্রয়’ নামে বৃদ্ধ সেবা ও এতিম শিশু পুণর্বাসন কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত     |