ঢাকা, শনিবার, ১লা অক্টোবর ২০২২ ইং | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্ববাজারে শোভা পাচ্ছে এখন শেরপুরের টুপি

বাদশা আলম, শেরপুর, বগুড়া-গ্রাম্যবধূদের নিপুণ হাতের ছোঁয়া আর সুতা ও ক্রুশ কাঁটায় মিলিত বন্ধনেই তৈরি হচ্ছে রং-বেরঙের রকমারি টুপি। রমজানের ঈদকে সামনে রেখে বাহারি ডিজাইনের টুপি তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন বগুড়ার শেরপুরের টুপি পল্লীর কারিগররা। শেরপুরে তৈরি টুপি দেশের চাহিদা মিটিয়ে এখন সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে রপ্তানী হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কয়েক দশক আগে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার কল্যাণী গ্রামের গ্রাম্যবধূরা টুপি বুনোনের কাজ শুরু করে। সে সময় গ্রামের নারী পুরুষ সবাই টুপি তৈরি করে বিক্রি করতেন। এরপর থেকে তা আস্তে আস্তে চারদিকে ছড়িয়ে পড়তে থাকে। এমনকি বিগত ১৫ বছরের ব্যবধানে টুপি তৈরিতে অনেকটা বিপ্লব ঘটে যায়। বর্তমানে উপজেলার প্রায় শতাধিক গ্রামে কমবেশি বাণিজ্যিকভাবে টুপি তৈরির কাজ চলছে। এর মধ্যে জয়লা-জুয়ান, জয়লা-আলাদি, কল্যাণী, চক-কল্যাণী, চকধূলি গুয়াগাছী, বিনোদপুর, মির্জাপুর, খানপুর, খানপুর দহপাড়া, শেরুয়া, শেরুয়া বটতলা, হামছায়াপুর, কাঁঠালতলা, ভিমজানি গ্রাম অন্যতম। বছরের ১১ মাসই এই পেশার সঙ্গে অন্তত অর্ধলাখ মানুষ প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে যুক্ত থাকেন। যাদের মধ্যে সিংহভাগই নারী। মরিয়ম, শিল্পী খাতুন জানান, জন্মের পর থেকেই নিজেকে টুপি তৈরির পেশার সঙ্গে যুক্ত করেছেন। তাদের মতে, বাড়িতে কর্মহীন হয়ে বসে থাকার চেয়ে কিছু একটা করাই ভালো। এমন ভাবনা এবং বংশীয় ঐতিহ্যকে ধারণ করতে অনেকেই টুপি তৈরি শিল্পের সঙ্গে নিজেদের জড়িয়ে ফেলেছেন। শেরপুরের টুপি তৈরির কারিগর কুলসুম বিবি জানান, সংসারের সব কাজ শেষ করে ক্রুশ কাঁটা নিয়ে বসে থেকে টুপি তৈরি করা হয়। একেকজন একেক নামের টুপি তৈরি করে থাকেন। টুপি তৈরির পর সে সব টুপি ধুয়ে পরিষ্কার করে রোদে শুকিয়ে দেওয়া হয়। পরিষ্কার টুপি পাইকাররা বেছে বেছে প্যাকেট করে বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করেন।

শিরিন আকতার জানান, টুপি তৈরির জন্য একেকটা একেক দাম দিয়ে থাকে। ভালোমানের টুপি ১০০ টাকা পর্যন্ত এবং জালি টুপি ২০ টাকা পর্যন্ত দাম দিয়ে থাকে। এই টুপিই আবার বাজারে বিভিন্ন দামে বিক্রি হয়ে থাকে।

টুপি তৈরির কারিগর ছাবিনা খাতুন জানান, গ্রামের স্কুল পড়ুয়া ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়ার পাশাপাশি টুপি তৈরি করে থাকে। এ ছাড়া গ্রামের গৃহবধূরা সাংসারিক কাজের ফাঁকে ফাঁকে টুপি তৈরি করে আয় করে থাকে। বিশেষ করে প্রতি বছর রমজান মাসে গ্রামে গ্রামে টুপি তৈরির হিড়িক পড়ে যায়। সবকিছু বাদ দিয়ে গৃহবধূরা টুপি তৈরির কাজ করেন। এ সময় বাড়ির অন্যরাও বসে থাকেন না। তারাও কোনো না কোনোভাবে এ কাজে সহযোগিতা করেন। বাংলাদেশ জালি টুপি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. জুয়েল আকন্দ জানান, বাংলাদেশের মধ্যে বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি টুপি তৈরি হয়ে থাকে। তাহফিজ নামে জালি টুপির কদর এবার সবচেয়ে বেশি। তিনি জানান, করোনার কারণে বিগত দুই বছর ব্যবসায় স্থবিরতা ছিল। তবে সেটি ইতোমধ্যে কেটে যেতে শুরু করেছে। দেশীয় টুপি নিতে দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তের ব্যবসায়ীরা অগ্রিম অর্ডার দিয়ে থাকেন। সেই অনুযায়ী তিনি নারীদের পারিশ্্রমিক দিয়ে টুপি তৈরি করে নেন। পরে এসব বাহারি ডিজাইনের টুপি সৌদি আরব, দুবাই, কাতার, মালয়েশিয়া, ভারত, পাকিস্তান, শ্্রীলঙ্কা, নেপালসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হয়।

You must be Logged in to post comment.

সনদ নেই, তবুও দাঁতের চিকিৎসক     |     ভোলায় জেলা পর্যায়ে স্কুল ভিত্তিক দাবা প্রতিযোগিতা- ২০২২ এর শুভ উদ্বোধন     |     শেরপুরে চাঞ্চল্যকর অভি হত্যা মামলা আটক-৫     |     শেরপুরে চাঞ্চল্যকর অভি হত্যা মামলা আটক-৫     |     শারদীয়া দূর্গা পুজা উপলক্ষে টানা ১০দিন বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর দিয়ে আমদানী- রপ্তানী বন্ধ থাকবে     |     পুঁজায় দুস্থ্যদের মুখে হাসি ফোটাতে পাশে দাড়ালেন সমাজ সেবক আনন্দ গুপ্তা।     |     মাদারীপুরে শুরু হয়েছে শেখ কামাল মিনি ফুটবল টুর্নামেন্ট     |     বীরগঞ্জে স্ত্রী হত্যা মামলায় স্বামী আটক     |     ডোমারে জাল স্বাক্ষরে শিক্ষক নিয়োগসহ প্রধান শিক্ষকের নানা অনিয়ম।      |     বিজ্ঞ আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে উপক্ষো করে ঝিকরগাছার পল্লীতে বাড়ি নির্মাণ     |