ঢাকা, শনিবার, ১লা অক্টোবর ২০২২ ইং | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভূঞাপুরে অবৈধ্য দখলে স-মিল, অবৈধ্য বৃক্ষ ব্যবসায়

আঃ রশিদ তালুকদার, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইল জেলার ভূঞাপুর উপজেলার ৩নং ফলদা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের পাছতেরিল্যা গ্রামের উত্তর পাড়া সরকারি রাস্তা দখল করে, শফিকুল ও তার সহযোগী আনোয়ার অরফে আনার সহ আরও কয়েক জনের এর নেতৃত্বে এক শ্রেনীর দখলদার বাহিনী তাঁদের গাছের ব্যবসার আড়ালে অবৈধ্য বৃক্ষ ব্যবসা করে যাচ্ছে।
এখানে এক শ্রেনীর গাছ ব্যবসায়ি সিন্ডিকেট তৈরী করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের সাথে যোগাযোগ করে বাংলাদেশ বন বিভাগের চোখকে ফঁকি দিয়ে বনের চোরাই বৃক্ষ, সরকারি রাস্তার দু’পাশে লাগানো সরকারি ও প্রকল্পের বৃক্ষসহ বিভিন্ন প্রকার অবৈধ্য গাছের ব্যবসায়ের সাথে জড়িত বিভিন্ন মাধ্যমে অবগত হওয়া যায়।
এই সব সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন বৃক্ষ ব্যবসায়ি, কাঠ মিস্ত্রি ও স-মিল মালিকের সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে বলে জানা যায়। সরকার ও আইন-শৃঙ্খোলা বাহিনীর নজর ফাঁকি দিতে, নিজেদের সিন্ডিকেটের মাধ্যমে নিজ নিজ অঞ্চলের চোরাই গাছ নিজ অঞ্চলে না রেখে এক অঞ্চলের বৃক্ষ অন্য অঞ্চলে সাধারণ মানুষের হাতের নাগালে পৌঁছে দেওয়ার জন্য তারা এই কাজটি করে থাকে। পাশর্^বর্তী ভারতের এ ধরনের অসাধু ব্যবসায়ির সাথে যুক্ত, এধরনের সিন্ডিকেট ব্যবসায়, অবৈধ্য ভাবে কাঠ আমদানী ও রপ্তানীর সাথে জড়িত বাংলাদেশের এই সিন্ডিকেট চক্রটি। স্থানীয় চাহিদা মেটানোর জন্য কিছু সংখ্যক গাছ এরা অবৈধ্য ও চোরাই গাছ সমূহ সিন্ডকেটের মাধ্যমে বিভিন্ন স-মিল এবং দেশ ও ভারতের বড়বড় শহর অঞ্চলের কাঠ মিস্ত্রিও ও স-মিলে পাঠানো হয়।
বৃক্ষ সিন্ডিকেট চক্র ব্যবসায়িরা একটু ব্যাপক ও সূদুর প্রসারী হওয়ায়, প্রশাসনের অসাধু কিছু উর্ধ্বতনদের হাতে রাখতে ব্যাপক হারে পয়সা খরচ করতে কুন্ঠা বোধ করেনা! যার ফলে সাধারণ নিষেধ ও জনসাধারণের তোয়াক্কা বা ধার এরা কখনোই ধারেনা বলে জানা যায়। ফলে স্থানীয় সাধারন জনগণ, তাই এদের প্রতিবাদ করতে ভয় পায় বলে জানা যায়।
তা ছাড়াও যাদের অতীতে বিভিন্ন চুরি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী মূলক কর্মকার্ন্ডের সাথে জড়িত ও যাদের সমাজে অনৈতিক দাপটের সঙ্গে চলা-ফেরা করে তাদেরকে ব্যবসায়িক স্বার্থে এই সিন্ডিকেটে দায়িত্বে রাখা হয়েছে।
ভূঞাপুর উপজেলার পাছতেরিল্যা গ্রামের এই স-মিল ও বৃক্ষ ব্যাবসায়ির মালিক ও কর্মচারীরা অতীতে সামাজিক অবক্ষয় চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িত রয়েছে বলে জানা যায়। গত ১৯ মে’২২ (বৃহস্পতিবার) সরেজমিনে তদন্ত করতে গেলে ঘটনাটির সত্যতা পাওয়া য়ায়।
৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো: আক্তার হোসেন জানান, স-মিলটির বিষয়ে তিনি অবগত আছেন, মালিক কর্মচারীর ব্যাপারে প্রয়োজনে তিনি প্রশাসনের উর্ধ্বতনদের সাথে আলোচনা করবেন।
তবে, এখনোই এসব অবৈধ্য বৃক্ষ ব্যবসায়িদের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে অদূর ভবিষ্যতে, টাঙ্গাইল ও ভূঞাপুরের বালি ব্যবসায়ির মত শক্তিশালী সিন্ডিকেটে হয়ে উঠতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। যখন কোন ভাবেই এধরনের অপরাধ সামলানো সম্ভব নয়!

You must be Logged in to post comment.

সনদ নেই, তবুও দাঁতের চিকিৎসক     |     ভোলায় জেলা পর্যায়ে স্কুল ভিত্তিক দাবা প্রতিযোগিতা- ২০২২ এর শুভ উদ্বোধন     |     শেরপুরে চাঞ্চল্যকর অভি হত্যা মামলা আটক-৫     |     শেরপুরে চাঞ্চল্যকর অভি হত্যা মামলা আটক-৫     |     শারদীয়া দূর্গা পুজা উপলক্ষে টানা ১০দিন বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর দিয়ে আমদানী- রপ্তানী বন্ধ থাকবে     |     পুঁজায় দুস্থ্যদের মুখে হাসি ফোটাতে পাশে দাড়ালেন সমাজ সেবক আনন্দ গুপ্তা।     |     মাদারীপুরে শুরু হয়েছে শেখ কামাল মিনি ফুটবল টুর্নামেন্ট     |     বীরগঞ্জে স্ত্রী হত্যা মামলায় স্বামী আটক     |     ডোমারে জাল স্বাক্ষরে শিক্ষক নিয়োগসহ প্রধান শিক্ষকের নানা অনিয়ম।      |     বিজ্ঞ আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে উপক্ষো করে ঝিকরগাছার পল্লীতে বাড়ি নির্মাণ     |