ঢাকা, বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ইং | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মাস্টার্স পরীক্ষা দেওয়া হলোনা পঞ্চগড়ের জনি’র

পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পঞ্চগড় মকবুলার রহমান সরকারী কলেজ থেকে বাংলা বিভাগে মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার্থী ছিলেন মাহবুবার রহমান জনি (২৫)। পরীক্ষার প্রবেশপত্রও তুলেছিলেন কলেজ থেকে। কিন্ত পরীক্ষা শুরু মাত্র একদিন আগেই পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কে জনির প্রাণ কেড়ে নেয় একটি ঘাতক ট্রাক।
শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারী) মাস্টার্স পরীক্ষা শুরু হলেও জনির ঘরে শেষ স্মৃতি হয়ে পড়ে আছে পরীক্ষার প্রবেশপত্রটি। ফাঁকা পড়ে ছিল পরীক্ষা কেন্দ্রে জনি বসার আসনটি।
শনিবার বিকেলে পঞ্চগড় পৌরসভার ধাক্কামারা এলাকায় জনিদের বাড়িতে গিয়ে দেখা মিলে পুত্রশোকে কাতর বাবা আব্দুল কাদেরের। ছেলের পরীক্ষার কথা বলতে বলতে হাউমাউ করে কেঁদে উঠলেন তিনি। একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানে সামান্য বেতনে চাকুরি করে অনেক কষ্টে ছেলে-মেয়েদের পড়ালেখা করাচ্ছেন তিনি। দুই ভাই এক বোনের মধ্যে জনিই ছিলেন বাড়ির বড় ছেলে। জনির ছোট ভাই পঞ্চগড় মকবুলার রহমান সরকারী কলেজে হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্র আর ছোট বোনটি এবার এইচএসসি পরীক্ষার্থী। দরিদ্র বাবার টানাপোড়েন সংসারে সহায়তা আর ছোট ভাই-বোনের পড়ালেখার খরচ যোগাতেই বেশ কিছুদিন ধরে লোখাপড়ার পাশাপাশি পঞ্চগড় কাঁচাবাজারের একটি সবজির আড়তে ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছিলেন জনি। নিজের সততা আর ব্যবসায়িক দক্ষতায় খুব স্বল্প সময়েই আড়তের মালিক নুরুজ্জামান ওরফে খানের বিশ্বস্ত হয়ে উঠেন জনি।
প্রতি রবি ও বৃহস্পতিবার জেলার বিভন্ন উপজেলার সবজির দোকান গুলো থেকে পাওনা টাকা সংগ্রহে যেতে হয় জনিকে। গত বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারী) রাত ৮টায় আড়তের মালিক নুরুজ্জামান ওরফে খান সহ পাওনা টাকা সংগ্রহের জন্য মোটরসাইকেল যোগে ভজনপুর বাজারে যাচ্ছিলেন জনি। মোটরসাইকেলটি চালাচ্ছিলেন আড়তের মালিক নুরুজ্জামান নিজেই। এ সময় জেলার পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কের ব্যারিস্টার বাজার এলাকায় যানবাহনের ভিড় থাকায় মোটরসাইকেলটি দাঁড় করেন তারা। ঠিক সে মূহূর্তে পঞ্চগড় থেকে তেঁতুলিয়াগামী একটি দ্রুতগতির ট্রাক পেছন থেকে ধাক্কা দেয় তাদের। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান আড়তের মালিক নুরুজ্জামান ওরফে খান। আর গুরুতর আহত অবস্থায় জনিকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় হাসপাতালের সামনে বিক্ষুব্ধ জনতা পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। কিছুক্ষণ পরে পুলিশ এসে পরস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
এদিকে পরীক্ষার হলে জনির আসনটি ফাকা থাকায় মর্মাহত হয়ে পড়েন তার দীর্ঘদিনের সহপাঠীরা।
জনির সহপাঠী পরেশ চন্দ্র রায় বলেন, ‘প্রায় ছয় বছর ধরে জনিসহ আমরা একসাথে অনার্স-মাস্টার্স পড়ে আসছি। সে আমাদের খুব ভাল বন্ধু ছিল। সবার সাথে মিশত। তার এভাবে চলে যাওয়া আমরা সহপাঠীরা কেউই মেনে নিতে পারছিনা। আজকে যখন দেখলাম পরীক্ষার হলে ওর বসার জায়গাটা ফাঁকা পড়ে আছে তখন খুব খারাপ লাগছিল।’
জনির বাবা আব্দুল কাদের বলেন, ‘আমি সামান্য বেতনে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানে কাজ দেখাশোনা করি। যে আয় করি তা দিয়ে সংসারই চালাতে পারিনা। জনি আমার বড় ছেলে, সে আমার কষ্ট বুঝতে পেরে আড়তে চাকরি নিয়েছিল। আমার প্রতিষ্ঠনের স্যারদের বলেছিলাম আমার ছেলে মাস্টার্স পরীক্ষা শেষ হলে একটা চাকুরির ব্যবস্থা করে দিবেন, তারা আমাকে কথাও দিয়েছিলেন। কিন্তু তার আগেই সব শেষ হয়ে গেল। আর কোন মায়ের সন্তানকে যেন এভাবে সড়কে প্রাণ দিতে না হয়।’

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে বিজিবি কতৃক উদ্ধারকৃত সাড়ে ৭ কোটি টাকার মাদক ধ্বংস     |     ঝিকরগাছায় গাছি ও ফুল চাষীদের মাঝে উৎপাদন সামগ্রী বিতরণ     |     সাংবাদিক বিপ্লবের উপর হামলার ঘটনায় মামলা      |     ফুলবাড়ীতে ২৬টি বেসরকারী এতিমখানায় এক কোটি ৩১লাখ ২৬হাজার টাকার চেক বিতরণ।     |     ঘাটাইলে সরকারী হাসপাতালের নাকের ডগায় গড়ে উঠেছে বেসরকারি ক্লিনিক     |     লালমনিরহাটের পৃথক ঘটনায় সড়কে নিহত ২     |     মাছের আঁশে তৈরি হচ্ছে প্রসাধনী-বৈদ্যুতিক পণ্য টাঙ্গাইলের মাছের উচ্ছিষ্ট যাচ্ছে বিদেশে     |     রুহিয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন সহায়তা তহবিল হতে স্কুল ব্যাগ বিতরণ     |     ঠাকুরগাঁওয়ে ছয় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার     |     ঘাটাইলে নব নির্বাচিত সংসদ সদস্যকে  সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত      |