ঢাকা, শুক্রবার, ৩রা ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ইং | ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শব্দদূষণে নাকাল ফুলবাড়ী পৌর শহরবাসী আইন থাকলেও নেই প্রয়োগ!

ফুলবাড়ী প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌর শহরে দিন দিন শব্দদূষণ চরম আকার ধারণ করেছে। এতে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে পৌর শহরবাসী।
স্থানীয়দের অভিযোগ, শব্দদুষণ রোধে আইনের প্রয়োগ নেই। শহরে ট্রাফিকব্যবস্থা ও বাসস্ট্যান্ড না থাকায় শব্দদূষণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। এতে করে পৌর শহরবাসীরা চরম সমস্যায় ভুগছেন তারা। বাড়ছে হৃদরোগ, শ্রবণশক্তি হ্রাসসহ বিভিন্ন রোগবালাই।
ফুলবাড়ী পৌর শহরের বেশির ভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালত ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান প্রধান সড়কের দুই পাশ দিয়ে অবস্থিত। দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়কের পার্শবর্তি তিনটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দুটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি কিন্ডারগার্টেন, একটি মাদ্রাসা এবং চারটি কলেজ রয়েছে। এছাড়াও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পশু হাসপাতাল, প্রাইভেট হাসপাতাল, পৌরসভা, বাণিজ্যিক ব্যাংক, বেসরকারি সংস্থার কার্যালয়সহ প্রায় সবকটি বড় বড় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান মহাসড়কের দুই পাশে অবস্থিত।
ফুলবাড়ী মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রদর্শক মোস্তাক আহম্মেদ বলেন, ফুলবাড়ীতে  ট্রাফিক ব্যবস্থা না থাকায় মহাসড়কসহ অভ্যন্তরীণ সড়ক গুলোতে দ্রæতগতিতে যানবাহন চলাচল করে। দ্রæতগতিতে চলাচলকারী এই যানবাহনের ইঞ্জিনের শব্দ ও হর্নের উচ্চ শব্দের কারণে এলাকাবাসী ব্যাপক শব্দ দূষণের শিকার হচ্ছে।
সমাজ কর্মি সৈয়দ সাইফুল ইসলাম জুয়েল জানান, জানা মতে নিয়ম অনুযায়ী অন্যান্য জায়গায় মাইকযোগে প্রচার চালানো হয়; কিন্তু ফুলবাড়ীতে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত উচ্চশব্দে মাইকযোগে প্রচার-প্রচারণা চালানো হলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহণের নজির নেই। যেখানে-সেখানে যন্ত্র দিয়ে দিনরাত ইট ভাঙা হয় এবং দিনরাত দাপিয়ে বেড়ায় ট্রাক্টর, ট্রলিসহ শব্দ দূষণকারী যানবাহন। এতে পৌরবাসী চরম শব্দদূষণের শিকার হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে দ্রæতই সিদ্ধাত নেওয়া প্রয়োজন।
মহাসড়কের পাশের ব্যবসায়ীরা জানান, ফুলবাড়ীতে স্থায়ী বাসস্ট্যান্ড না থাকায় ঢাকা মোড় থেকে হাসপাতাল মোড় পর্যন্ত প্রায় পৌনে এক কিলোমিটার এলাকা বাসস্ট্যান্ড হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে, যেখানে সেখানে গাড়ী দাড় করিয়ে যাত্রী ওঠানামাসহ উচ্চ শব্দে হর্ণ বাজানো হয়। ট্রাফিক পুলিশ না থাকায় সব সময় যানজট লেগে থাকে। ফলে এই সড়কের দুই পাশের ব্যবসায়ী ও ক্রেতাসহ এলাকাবাসী চরম শব্দদ‚ষণের শিকার হচ্ছেন।
ব্যবসায়ীরা আরো জানান, রাত নামলেই মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ চলে যায়। শুরু হয় জেনারেটর দিয়ে শহরের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ সরবরাহ। এসব যন্ত্রের বিকট শব্দে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে বসে থাকা দায় হয়ে যায়।
শব্দদুষণ বিধিমালা-২০০৬ অনুযায়ী হাসপাতাল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালত বা এ-জাতীয় প্রতিষ্ঠান হচ্ছে নীরব এলাকা। বিধিমালায় বলা হয়, এসব এলাকার চতুর্দিকে ১০০ মিটারে কোনো প্রকার হর্ন বাজানো যাবে না। আবাসিক এলাকার ৫০০ মিটারের মধ্যে নির্মাণকাজের জন্য ব্যবহৃত ইটভাঙার মেশিন ব্যবহার করা যাবে না। কোনো উৎসব, সামাজিক বা রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে লাউডস্পিকার বা উচ্চশব্দ সৃষ্টিকারী অন্য কোনো যন্ত্র ব্যবহার করতে হলে কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতি নিতে হবে। এসব কার্যক্রমে সর্বোচ্চ পাঁচ ঘণ্টা যন্ত্র চলবে এবং রাত ১০টার পর কোনোক্রমেই শব্দদূষণকারী যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা যাবে না। এ ছাড়াও পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে দিন-রাতভেদে নীরব এলাকায় দিনে ৪৫ ডেসিবল ও রাতে ৩৫ ডেসিবল, আবাসিক এলাকায় দিনে ৫০ ডেসিবল ও রাতে ৪০ ডেসিবল, বাণিজ্যিক এলাকায় দিনে ৭০ ডেসিবল ও রাতে ৬০ ডেসিবল এবং শিল্প এলাকায় দিনে ৭৫ ডেসিবল ও রাতে ৭০ ডেসিবল শব্দের মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মশিউর রহমান জানান, শব্দদূষণের কারণে ঘুমের সমস্যাসহ এয়ার লস, হাইপ্রেসার, হৃদরোগ হতে পারে। সর্বচ্চ পর্যায়ে মৃত্যু ঝুকি পর্যন্ত রয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শিশু ও বয়স্করা। শব্দদুষণে শিশুদের মানসিক বিকাশের অন্তরায়। তিনি আরও জানান, ৩০ থেকে ৩৫ ডেসিবল মাত্রার শব্দে স্নায়বিক দুর্বলতা ও ঘুমের ব্যাঘাত, ৬৫ ডেসিবলের বেশি মাত্রার শব্দে আলসার ও শ্রবণশক্তি হ্রাস এবং ১২০ ডেসিবলের ওপর শব্দে স্থায়ীভাবে শ্রবণশক্তি লোপ পেতে পারে।
দিনাজপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এ,কে,এম ছামিউল আলম কুরসি জানান, শব্দ দূষণের ক্ষেত্রে আমরা সাধরণত জেলার মহাসড়ক গুলোতে চলাচলকারী যানবাহনের ডাইড্রোলিক হর্ণ চেক করে থাকি। উপজেলা পর্যায়ে এ বিষয় কম যাওয়া হয়। তবে শব্দ দূষণের বিষয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সহযোগীতি নিতে পারেন এবং তিনিও ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন।
পৌর মেয়র মাহামুদ আলম লিটন জানান, পৌর শহরের ওপর দিয়ে চলাচলকারী যানবাহনের হাইড্রোলিক হর্ণ এবং মাইকিং করার বিষয়ে আমরা দ্রæত সময়ের মধ্যে উভয় পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, বিষয়টি নিয়ে জেলা মিটিং এ আলোচনা হয়েছে সেখানে সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, কোন ডাক্তার চিকিৎসা সেবার বিষয়ে কোন প্রকার প্রচার প্রচারনা করতে পারবে না। যদি কেউ করে সর্ব্বচ্চো দুই হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমান ও জেলের বিধান রয়েছে।  পৌরসভা কর্তৃপক্ষ যদি এ বিষয়ে আমাকে লিখিত ভাবে অবগত করেন, সে অনুযায়ী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। #

You must be Logged in to post comment.

টাঙ্গাইলে এক বিদ্যালয়ে দৃষ্টি নন্দন ক্রিকেট খেলার মাঠ     |     মুজিবনগর বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে সংসদে বিল পাশ     |     খালি গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আওয়ামী লীগ নেতা     |     ভোলায় মোবাইল চোর চক্রের ১ সদস্য আটক; চোরাই ৬টি স্মার্ট ফোন উদ্ধার     |     মাদারীপুরে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের উদ্বোধন     |     মেহেরপুর সরকারী কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন ক্লাস শুরু     |     ফুলবাড়ীতে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার মেশিনের সাহায্যে বোরো ধান চাষাবাদ উদ্বোধন।     |     পার্বতীপুরে নব বধূর রহস্যজনক মৃত্যু  শ্বশুর – শাশুড়ি সহ গ্রেফতার  ৪      |     নবীন বরণ অনুষ্ঠানে রেলমন্ত্রী সুজন     |     শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে আটোয়ারীতে যুবদলের শীতবস্ত্র বিতরণ     |