ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ই মার্চ ২০২১ ইং | ২৫শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শেরপুরের শিক্ষক যখন দাদন ব্যবসায়ী!

বাদশা আলম শেরপুর(বগুড়া)প্রতিনিধি: এনজিও বা বিভিন্ন সমিতি এমনকি ব্যক্তি বিশেষ অধিক মুনাফার লোভে দাদন বা সুদের ব্যবসা করে আসছে। কোন প্রতিষ্ঠান, সংস্থা বৈধতা নিয়ে ঋনের অনুকুলে মুনাফা গ্রহন করে আসলেও অনেক ব্যক্তিরা অধিক লোভের বশীভূত হয়ে অবৈধ পন্থায় দেদারছে সুদের কারবার করে আসছে। সেক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কিছু অসাধু শ্রেণীর শিক্ষকরাও। এমনি দাদন ব্যবসার অভিযোগ উঠেছে বগুড়ার শেরপুরের মাগুড়ারতাইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে।
সহকারি শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র রায় খামারকান্দি গ্রামের মৃত বিশ^ম্ভর রায়ের ছেলে। বর্তমানে সে শেরপুর পৌরসভার ঘোষপাড়ায় বসবাস করে আসছেন। এদিকে তার দাদন ব্যবসায় সর্বশান্ত হয়ে এবং ওই শিক্ষকের দায়ের করা মিথ্যা মামলার হাত থেকে রক্ষা পেতে ১৮ ফেব্রুয়ারি শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন খামারকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরি নজরুল ইসলাম। সে একই গ্রামের মৃত বিরাজ উদ্দিনের ছেলে।
অভিযোগে জানা যায়, দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরী নজরুল ইসলাম তার পারিবারিক প্রয়োজনে ২০১৩ সালে অভিযুক্ত শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র রায়ের কাছ ২লাখ টাকা ধার নেয়। এর বিনিময়ে তাকে বেতনের চেকবই বন্ধক রেখে প্রতিমাসে ৭ হাজার টাকা সুদের অর্থ গুনতে হতো। এভাবে কয়েক বছর চলে আসার পর নিজে সর্বশান্ত হওয়ার একপর্যায়ে ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে নগদ ১লাখ টাকা ওই শিক্ষককে ফেরত দিয়ে বাকি টাকার জন্য সময় প্রার্থনা করে। এদিকে সুদের টাকা না পেয়ে দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরি নজরুলের দেয়া ফাঁকা চেকের পাতায় ৫ লাখ টাকা লিখে ব্যাংক থেকে ডিজওনার(অযোগ্য) প্রমান সাপেক্ষে আদালতে মামলা দেয় দাদন ব্যবসায়ী ওই শিক্ষক। এরফলে ওই দাদন ব্যবসায়ী শিক্ষকের দেয়া মামলা ও ব্যক্তিগত রোষানলে পড়ে সর্বশান্ত হয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন ভূক্তভোগী নজরুল ইসলাম। তাছাড়া ওই দাদন ব্যবসায়ি শিক্ষকের মামলার দায়ভার মাথায় নিয়ে এমনইভাবে সুদের চাপে সর্বশান্ত হয়ে পথে পথে ঘুরছেন উপজেলার তিরাইল বিশ^া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশ প্রহরী রাশেদুল ইসলাম, মহিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী আমিনুল ইসলামসহ আরো বেশ কয়েকজন।
ভূক্তভোগী দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নজরুল ইসলাম বলেন, শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র রায়ের কাছ থেকে ২লাখ ধার চাইলে সে স্বাক্ষরিত ফাঁকা চেকবই বন্ধক চান। পারিবারিকভাবে টাকার অতিরিক্ত প্রয়োজন হওয়ায় বাধ্য হয়ে তার প্রস্তাবে রাজি হয়। বিনিময়ে প্রতিমাসে চেকের অনুকুলে সুদের ৭ হাজার টাকা তিনিই ব্যাংক উত্তোলন করতো। এভাবে সে কতলাখ টাকা নিয়েছে তার হিসেব করা কঠিন। তারপরে আমার বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছে। আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই।
এ ব্যাপারে ওই নৈশ প্রহরীর কাছে ২লাখ টাকা পাবো এবং তার বেতনের চেকবই বন্ধক রাখার সত্যতা স্বীকার করে সহকারি শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র রায় বলেন, নজরুল আমার কাছ থেকে নেয়া বকেয়া ১লাখ টাকা না দেয়ায় ৫লাখ টাকার আদায়ের স্বার্থে আদালতে মামলা দায়ের করেছি।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আব্দুল মতিন বলেন, একজন শিক্ষক কিভাবে দাদন ব্যবসা করে মানুষকে ঠকাচ্ছে? এটা কোন নীতি নৈতিকতার মধ্যে পরে!
এ প্রসঙ্গে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী সেখ বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

You must be Logged in to post comment.

পঞ্চগড়ে আগুনে পুড়েছে ২০টি পরিবারের ঘরবাড়ি ।     |     আটোয়ারীতে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা     |     সিংড়া পৌর পরিষদের অভিষেক অনুষ্ঠান     |     ঝিকরগাছায় আন্তর্জাতিক নারী দিবসের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত     |     ঝিকরগাছায় একটি মাদ্রাসায় নিয়োগের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে হাতাহাতি     |     আটোয়ারীতে উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত     |     মেহেরপুরে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত     |     ৭ মার্চে রাণীশংকৈল থানা পুলিশের আনন্দ উদযাপন     |     তেতুঁলিয়ায় পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু     |     সাংবাদিক শাহীনের শ্যালকের দাফন সম্পন্ন     |